গুরুচন্ডালী - ০২৭

ধুসর গোধূলি এর ছবি
লিখেছেন ধুসর গোধূলি (তারিখ: শুক্র, ২৯/০১/২০১০ - ১১:০৫পূর্বাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

ফুলমুন এন্ড অর নিউমুন

'সোয়েটারটা খুলি? ভীষণ গরম লাগতাছে।'

'একটু আগে জ্যাকেট খুললা, এখন সোয়েটার খুলতে চাইতেছো। আরেকটু পরে কী খুলবা? আর আমারে জিগাও ক্যানো। তোমার জামাকাপড়, তুমি চাইলে সব খুইলা ফেলো। খুইলা ডান্স শুরু করে দাও।'

আমি চারদিকে প্যাঁচার মতো মাথা ঘুরিয়ে তাকাই। বলি, 'আসছি তো তোমার সাথে, তাই তোমার অনুমতি নেই। আর একটা ব্যাপার খেয়াল করছো, এইখানে দর্শকের সবাই তো বেটি মানুষ!'

এইবার জিগলিন্ডে প্রায় ক্ষেপে যায়। বলে, 'ক্যান তোমার চোখে কি খালি বেটি মানুষই পড়ে, পুলাগুলা চোখে পড়ে না‌?'

আমি মাথা ঘুরাতে ঘুরাতেই বলি, 'তা পড়ে। কিন্তু তারা তো সব বেটিমানুষগুলার লগে আসছে। যেমন আমি আসছি তোমার লগে।'

'তো সমস্যা কী!'

আমি দাঁত কেলায়ে বলি, 'কোনো সমস্যা নাই তবে টেকনিক্যাল একটা পার্থক্য আছে। ধরো ঐ পুলাগুলা যেমন ইচ্ছে হলেই সাথের জনরে টুকুশ টাকুশ শব্দে ইয়ে করতাছে, আমার তো আর সেই সুযোগ নাই!' বলেই আমাদের পেছনের সারির ডানদিকে জিগলিন্ডের দৃষ্টি আকর্ষণ করি।

সেদিকে একবার তাকিয়ে জিগলিন্ডে আমার মাথায় ঠাউল্যা মেরে বলে, 'তোমার এতোদিকে তাকানোর কী দরকার! সামনে পর্দার দিকে তাকায়া থাকো!'

আমি ঠাউল্যা খেয়ে সামনের পর্দার দিকে তাকাই। ঘোলাটে পর্দা। সিনেমা ছাড়তে দেরি করতাছে শালারা। বিজ্ঞাপন টিজ্ঞাপন দেখায়ে এখন আবার লাইট জ্বালায়ে দিছে। মনেহয় ভুলে গেছে যে এখন সিনেমা চালাইতে হবে। কিংবা যে সিনেমা চালাবে তার বউ এইমাত্র ফোন করেছে তার মোবাইলে। বউয়ের ছোট বোনের বিয়েতে সে কী গিফট দিবে, সেইটা নিয়ে আজকে সকালে এক প্রস্থ কাইজ্যা হয়ে যাওয়ার সেকেন্ড ফেইজ। সিনেমা ম্যান বোধ'য় এখন তার বউকে নানাভাবে বুঝিয়ে সুঝিয়ে শান্ত করায় ব্যস্ত। "ওগো প্রিয়ে, এই শো'টা শেষ করেই ঘরে ফিরবো। তখন তোমার সব কথা শুনবো। তুমি যা বলবে তাই হবে, তুমি যেটা চাইবে সেই গিফটই হালার্পো শ্বশুরের ছোট মেয়ের বিয়েতে দেয়া হবে। তোমার কসম!"

সিনেমা শুরু হওয়ার কারণটা জিগলিন্ডেকে বলতেই সে কতোক্ষণ আমার দিকে তাকিয়ে থেকে বললো, 'তুমি এতো ভাবো ক্যান! মাথা ঠাণ্ডা করে বসে থাকতে পারো না!"

আমি বলি, ক্যামনে পারুম? একেতো নিয়া আসছো বেটি মানুষের সিনেমা দেখাইতে। হলভর্তি বেটি মানুষ। তায় আবার লাগতাছে গরম। আমার কী দোষ। মনে হৈতেছে আমি ঢাকার মধুমিতায় বইসা আছি, "জোছনা, দ্য ডটার অফ স্নেকচারমার" দেখার লাইগ্যা! আমি ড্যাম শিউর, ঐটায়ও এতো বেটিমানুষের সমাগম হয় নাই, যতোটা এইখানে দেখতেছি।

"জোছনা, দ্য ডটার অফ স্নেকচারমার" কী?

আমাদের দেশের একটা বিখ্যাত সিনেমা। বেটিমানুষের খুব প্রিয় হইছিলো।

ঐটা যখন দেখছো, তাইলে এইটাও দেখতে পারবা। অসুবিধা নাই। আই নো, ইউ ক্যান ডু ইট। বলেই জিগলিন্ডে দাঁত কেলায়ে হাসতে শুরু করলো।

সিনেমাম্যান বউকে শান্ত করে সিনেমা অবশেষে ছাড়লো। আমি কখনো মাথায় ঠাউল্যা, কখনো চাটি, কখনো রক্ত চোখের চাউনি, কখনো সামনের সারির গোটা দুয়েক দর্শকের ঘাড় ঘুরিয়ে পেছনে তাকানি হজম করে সিনেমাটা দেখলাম। এতো সবের পেছনে অবশ্য আমার কোনো দোষ নাই।

কোনো এক জায়গায় এসে আমি শব্দ করে খিলখিল করে হেসে উঠলাম, কিন্তু হাসির পর দেখা গেলো পুরো হল জুড়ে কেবল আমারই হাসির বিকট শব্দ। আর কেউ হাসছে না! আমি বুঝলাম না, সবাই কি রামগরুরের ছানা হয়ে গেলো নাকি!

আবার এক জায়গায় এসে 'হেইয়ো' বলে হাততালি দিয়ে বসলাম। এবারও দেখি আমি একাই। আমার কী দোষ। নাইকার বিপদে হঠাৎ নায়ক এসে উপস্থিত হলে তালি দিবো না?

মনে অনেক যাতনা পুষে রেখে দি ফুলমুন সিনেমাটা দেখে বের হলাম। জিগলিন্ডে অবশ্য বারবার বলছিলো, নামটা ফুলমুন না, নিউমুন! কিন্তু আমার কেনো জানি তালগোল পাকায়ে যাচ্ছিলো। নামটা এখনো ঠিক করে বলতে পারি না! মন খারাপ

অতঃপর খানাপিনা

ওর সাথে সিনেমা দেখতে গেলে একটা সুবিধা হলো সে খাওয়ায়। আর ওর সাথে খাওয়ার সুবিধা হলো, সে নিজে সব্জিবাদী। মাছ মাংস খায় না। আমি নির্দ্বিধায় মাছ মাংসের অর্ডার দেই। আর তারপর ওর 'অনুরোধে' তার থেকেও 'একটু' খাই। আমি মনে মনে খুশিতে বগল বাজাই। আমার খাবার তো খাইই, সাথে বোনাস হিসেবে তার থেকেও।

গত জানুয়ারিতে কি একটা ইসরায়েলি না প্যালেস্টাইনি সিনেমা দেখেছিলাম। ঐদিন মন মেজাজ প্রচণ্ড বিগড়ে ছিলো। ও সেটা নিয়ে কোনো কিছু বললো না। কেবল বললো, "চলো খাই একটা বেশ ভালো জায়গায়।"

গেলাম। বেশ মজাদার খাবার ছিলো আসলে। ভিয়েতনামিজ রেস্তোরাঁ। কনুই ডুবিয়ে খেলাম। খেয়ে দেখলাম মনটা একটু ভালো হয়ে গেছে। হাসি

দি ফুলমুন যেদিন দেখলাম, সেদিনও খেলাম। লিমাও বলে একটা পর্তুগীজ রেস্তোরাঁতে। এবার মাছ মাংস নিলাম না। ভদ্রতা করে তার মতো ভেজিটেবল ডিশ অর্ডার করলাম। আর তারপর কানে ধরলাম, আমার আসলে ভদ্রতা করা মানায় না! আমার অবস্থা দেখে জিগলিন্ডে হাসে।

ক্ষুধায় ছটফট করতে করতে যখন কিচেন-রুম দৌড়াদৌড়ি করি, কখনো জিগলিন্ডের সাথে দেখা হয়ে যায়। সে রান্না করে, আমি ক্ষুধায় কাতরাই। ও বলে, তোমার তো নক্তা বেশি। আমার খাবার নাকি তিতা লাগে। খুব বেশি ক্ষুধা লাগলে খেতে পারো, বেশি সাধুম না!

মাঝে মাঝে খাই, আর মাঝে মাঝে মুখটা বাংলা 'ঙ'র মতো করে রান্না করতে লেগে যাই। হুদা সব্জি খাইতে কার ভালো লাগে! মন খারাপ

ফুলমুন অথবা ডিমের কুসুম

কোলন শহরে বেশ বড় করে, ঘটা করে আমাদের দেশীয় বা সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান হয়- দুই বাংলার জনগণের আয়োজনে। তেমনি একটা অনুষ্ঠানে গিয়েছিলাম বছর তিনেক আগে, দলবল সহ। যেখানে বসে অনুষ্ঠান দেখছিলাম, হঠাৎ খেয়াল করলাম বেশ শৈল্পিক টাক মাথার এক জার্মান ভদ্রলোক আমার সামনেই বসে 'জুতা আবিষ্কার' আবৃত্তি শুনছেন মন দিয়ে। আমি সুযোগ কাজে লাগিয়ে বেশ মন দিয়ে তাঁর মাথার কয়েকটা স্ন্যাপ নিলাম, বেশ কয়েকটা এ্যাঙ্গেলে। সেই ছবির একটা এমএসেন ডিসপ্লেতে ব্যবহারও করেছিলাম। কয়েকজন অবশ্য জিজ্ঞেসও করেছে, "কী ব্যাপার, ডিসপ্লেতে ডিমের কুসুম কেনো!"

ছবিগুলো খুঁজলাম, পেলাম না। দারুণ ছিলো মাথাটা। হাসি

...পরিশিষ্ট

হিরোস'এর চতুর্থ সিজন শুরু হয়েছে। প্রথম সিজনের পরেই কাহিনি বিরাট প্যাঁচায়ে গেছে। এখন কোত্থেকে কী হয় বুঝা মুশকিল! চতুর্থ সিজনে এই অনুভূতিটাও প্যাঁচায়ে গেছে। তাও দেখা শুরু করছি। প্যাঁচানী প্যাঁচানীতে কাটাকাটি!

অ্যাভাটার, দ্য লাস্ট এয়ারবেণ্ডারের তিনটা সিজনই শেষ করার পর একটা বিচিত্র অনুভূতি হয়েছিলো। কোনো সিরিজ দেখে, শেষ হয়ে যাবার পর এমন অনুভূতিটা অনেকদিন হয় নাই। ছোট বেলায় আমি প্রথম প্রেমে পড়েছিলাম এক কার্টুন চরিত্রের। প্রথম প্রেমের সেই 'কেমন করা' অনুভূতিটা ফিরে এসেছিলো অনেক অনেক বছর পর, আরেকবার।

ওয়েডিং ক্র্যাশার্স দেখলাম দু'দিন আগে, অনেকদিন পর। একা একা বেশ শব্দ করে হাসলাম। কয়েকটা জায়গা ভুলে গিয়েছিলাম, ভীষণ ছুঁয়ে গেলো আবার। জন আর ক্লেয়ার সাইক্লিং-এ বের হয়। দৃশ্যগুলো মনে দাগ ফেলে। আর দাগ ফেলে এই গানটা, গানের সাথের দৃশ্যটুকুও।

শার্লক হোমস আংরেজী ভার্সনে এসেছে। শনিবার বিকেলে দেখতে যাওয়ার কথা। শুক্রবারের মধ্যে জিগলিন্ডেকে জানাতে হবে, পারবো কি না! মেয়েটা অসাধারণ বন্ধু। বেশ লম্বা একটা সময় ধরে আমাদের আগের মতো করে বন্ধুতার জন্য সময় ব্যয় করা হচ্ছে না। শনিবার বিকেল থেকে সময়টা বন্ধুর জন্যই তাই তুলে রাখবো ভাবছি...


মন্তব্য

রেশনুভা এর ছবি

কোলনে আসতেছি।
আপনার জিগলিন্ডে রে দেখতে মন চায় ... খাইছে
অনেক হাসলাম লেখা পইড়া। দেঁতো হাসি

ধুসর গোধূলি এর ছবি
মেহবুবা জুবায়ের এর ছবি

আমি আরো কোথায় ভাবছিলাম আপনাকে দিয়েই ঘটকালির বউলি করবো। সেই আপনিই জিগলিন্ডে জুটিয়ে ফেললেন! এখন আমার ঘটকালি ব্যাবসার কী হবে?

--------------------------------------------------------------------------------

ধুসর গোধূলি এর ছবি

- হা হা হা ভাবী।

জিগলিন্ডে আমাকে একবার প্রশ্ন করেছিলো কেমন মেয়ে পছন্দ আমার! তাকে ধরে একটা গান শুনিয়ে দিয়েছিলাম। গান ও মন দিয়ে শুনলো, তারপর বললো, আমি তো বাংলা বুঝি না, কী বললো গানে!

আমি বললাম, গানে কী বললো সেটাই তো খুঁজতেছি। যে আমাকে গানটা বুঝিয়ে দিতে পারবে, এমন মেয়েকেই আমি পছন্দ করবো!

গানটা কী ছিলো জানেন ভাবী? তালাত মাহমুদের সেই বিখ্যাত গানটা। চাঁদ-তারা নিয়ে যে গানটা, ঐটা। হাসি

জিগলিন্ডে যেহেতু গানটা আমাকে বুঝিয়ে দিতে পারেনি, তাই তার সাথে কেবল বন্ধুত্বটাই রয়ে গেছে। মনে হচ্ছে না তালাত মাহমুদ শোনে, এমন ইয়োরোপিয়ান কোনো ললনাকে ইহজনমে খুঁজে পাবো! সুতরাং, শেষমেশ মনে হচ্ছে আপনার ঘটকালিই ভরসা! দেঁতো হাসি
___________
চাপা মারা চলিবে
কিন্তু চাপায় মারা বিপজ্জনক

মেহবুবা জুবায়ের এর ছবি

-সেটা না হয় বুঝলাম, কিন্তু ছেলের চরিত্র কেমন জিঞ্জেস করলে কী বলবো? "ছেলের চরিত্র আর দেখতে হবেনা, একেবারে ফুলের মতো পবিত্র। শুধু সপ্তাহের শেষে জিগলিন্ডেকে নিয়ে সিনেমা দেখতে যায়, সিনেমা দেখার পরে একটু হোটেলে/ফোটেলে খাই দাই করে, খাই দাই করার পর বান্ধবীকে একটু সংগো দেবার জন্য ওর বাসায় যায়-----------ইত্যাদি, ইত্যাদি। না ভাই আপনি আমার মনটাই গোধূলি করে দিলেন। এত ভালো একটা মেয়ে ছিলো হাতে। দেখলে টাসকি খেয়ে যেতেন!

--------------------------------------------------------------------------------

ধুসর গোধূলি এর ছবি

- টাসকি খাওয়ার সুযোগটা গেলো গিয়া? পুরা নাইনটি ডিগ্রী এঙ্গেলে দিল মে চাক্কু মেরে দিলেন ভাবী! মন খারাপ

আমি তো জিগলিন্ডের বাসায় যাই না। আমরা একই ফ্লোর, কিচেন শেয়ার করি, একই গোছলখানাও। শুধু আমাদের ঘরগুলো একটু দূরে দূরে হয়ে গেছে আরকি! মন খারাপ

আগের দিনে চেয়ারম্যানের চারিত্রিক সাট্টিফিকেট নিয়া ঘুরতাম। এখন আর সাট্টিফিকেট না, স্বয়ং মেম্বর নিয়ে ঘুরি। সচলের একমাত্র দুর্নীতিবাজ মেম্বর জনাব দ্রোহী এই মর্মে আমার চরিত্রের সাট্টিফিকেট প্রদান করবেন।

তাঁর পদবীতে কাজ না হলে প্রয়োজনে তাকে মেম্বর থেকে চেয়ারম্যান পদে প্রমোশন দেয়া হবে। সেটাও পর্যাপ্ত না হলে তাঁকে নোটারী পাবলিক করে দেয়া হবে। তাতেও কাজ না হলে তাঁকে প্রথম শ্রেণীর গেজেটেড কর্মকর্তা বানিয়ে দেয়া হবে। আশাকরি এবার আর আমার চরিত্র নিয়ে কোনো সংশয় থাকবে না! দেঁতো হাসি
___________
চাপা মারা চলিবে
কিন্তু চাপায় মারা বিপজ্জনক

মেহবুবা জুবায়ের এর ছবি

--এ্যা মা গোসলখানাও!!!
কিন্তু দ্রোহীর চরিত্রের সাট্টিফিকেট দিবে কে? একে তো দুর্নীতিবাজ, তারপর ঐ রকম একখানা বডি ওর! আমি ডরাইছি।

--------------------------------------------------------------------------------

সুলতানা পারভীন শিমুল এর ছবি

হা হা হা
আপনাকে স্যালুট ভাবী।
এতোদিনে কাউকে পাওয়া গেলো, যে এইসব প্রশ্ন করে ধুগোকে বা মেম্বরকে চিপায় ফেলতে পারে।
দুইটাই তো জিনিস। দেঁতো হাসি

...........................

কেউ আমাকে সরল পেয়ে বানিয়ে গেছে জটিল মানুষ

...........................

একটি নিমেষ ধরতে চেয়ে আমার এমন কাঙালপনা

ধুসর গোধূলি এর ছবি

- এই আইছে জালপট্টি মসজিদের ইমাম সাব মুফতি তাজুল ইসলাম! এখন আমার বিরুদ্ধে অমুক কেতাব, তমুক শাস্ত্র থাইকা খালি ফতোয়া বাইর হৈবো। মন খারাপ
___________
চাপা মারা চলিবে
কিন্তু চাপায় মারা বিপজ্জনক

সুলতানা পারভীন শিমুল এর ছবি


মাটিত বাড়ি দিলে গুনাগার চেতি উডে... চোখ টিপি

...........................

কেউ আমাকে সরল পেয়ে বানিয়ে গেছে জটিল মানুষ

...........................

একটি নিমেষ ধরতে চেয়ে আমার এমন কাঙালপনা

ধুসর গোধূলি এর ছবি
ধুসর গোধূলি এর ছবি

- শুধু কি গোসলখানা? আরও আছে। আমাদের ফ্লোরে নতুন আসা দিল উ ধাকধাক করা চাঙ্কু ললনার কথা তো শুরুই করলাম না এখনো! দেঁতো হাসি

চিন্তা করতেছি মেম্বররে এই চাঙ্কুর কাছ থাইকা চরিত্রের সাট্টিফিকেট আইনা দিমু। চোখ টিপি
___________
চাপা মারা চলিবে
কিন্তু চাপায় মারা বিপজ্জনক

মেহবুবা জুবায়ের এর ছবি

ওটা বউনি হবে

--------------------------------------------------------------------------------

বাউলিয়ানা এর ছবি

আহ্‌। অনেকদিন পর আবার পড়লাম গুরুচন্ডালী।
লেখায় যথারীতি চলুক

রায়হান আবীর এর ছবি

সম্ভাবনাময় কথা বার্তা হইতেছে। গ্যালারিতে বসলাম দেঁতো হাসি

সুলতানা পারভীন শিমুল এর ছবি

চামে লাইনে আইসা খাড়াইতেও দেরী হবে না। চোখ টিপি

...........................

কেউ আমাকে সরল পেয়ে বানিয়ে গেছে জটিল মানুষ

...........................

একটি নিমেষ ধরতে চেয়ে আমার এমন কাঙালপনা

ধুসর গোধূলি এর ছবি

- সেইটা আমরা আমরা বুঝুম! দরকার হৈলে হয়রান মিয়ার লাইগা ভাবীর টাসকি খাওয়া বালিকার ছুটু বইনরে ঠিক্করুম। চোখ টিপি
___________
চাপা মারা চলিবে
কিন্তু চাপায় মারা বিপজ্জনক

সুরঞ্জনা এর ছবি

আবীর পপকর্নের ঠোঙা টা এদিক দিস তো...
---------------------------------------------------
জগতে সকলই মিথ্যা, সব মায়াময়,
স্বপ্ন শুধু সত্য আর সত্য কিছু নয় ।

............................................................................................
এক পথে যারা চলিবে তাহারা
সকলেরে নিক্‌ চিনে।

ধুসর গোধূলি এর ছবি

- এই গুণী বালিকার ভুট কোন্দিকে যাবে বুঝতাছি না। বেনিফিট অব ডাউটে এইটার ভুট খানাও আমার ব্যালট বাক্সে যোগ করে নেয়া যেতে পারে। দেঁতো হাসি

সাকুল্যে হৈলো দুই ভুট।
___________
চাপা মারা চলিবে
কিন্তু চাপায় মারা বিপজ্জনক

স্বপ্নাহত এর ছবি

গ্যালারিতে কি করস ? জায়গামত লাগামু নাকি ফুন? যা ব্যাটা,আমগোরে সাইড দে। আর তুই বাউনিয়া যা!

---------------------------------

তবে যে ভারি ল্যাজ উঁচিয়ে পুটুস্‌ পাটুস্‌ চাও?!

---------------------------------

বাঁইচ্যা আছি

ধুসর গোধূলি এর ছবি

- বাউনিয়া? বাউনিয়া কী অর? অর চরিত্র দেহি আমার চাইতেও খারাপ। ক্যানসেল, হয়রানের লগে ডিল ক্যানসেল। টাসকি খাওয়া বালিকার ছুটু বইন স্বপ্নাহত'র লাইগ্যা বরাদ্দ করলাম।

এইখানে দুই ভুট (একটা জেনুইন, বাকিটা 'জাল') দেঁতো হাসি
___________
চাপা মারা চলিবে
কিন্তু চাপায় মারা বিপজ্জনক

সুলতানা পারভীন শিমুল এর ছবি

"টাসকি খাওয়া বালিকার ছুটু বইন স্বপ্নাহত'র লাইগ্যা বরাদ্দ করলাম।"
এক কুমিরের ছাও যে এখন কয়জনরে দেখাইবো... চোখ টিপি

...........................

কেউ আমাকে সরল পেয়ে বানিয়ে গেছে জটিল মানুষ

...........................

একটি নিমেষ ধরতে চেয়ে আমার এমন কাঙালপনা

ধুসর গোধূলি এর ছবি

- পয়োজন পড়িলে পুরা দুনিয়ারে দেখামু! আপনে দেখপেন? আপনেরেও দেখাই তাইলে। এইটা আমার ভায়রা ভাই দুর্নীতিবাজ মেম্বরের কাছ থাইকা শিখছি। দেঁতো হাসি
___________
চাপা মারা চলিবে
কিন্তু চাপায় মারা বিপজ্জনক

স্বপ্নাহত এর ছবি

টাসকি খাওয়া বালিকাটা ক্যাঠা? চিন্তিত

---------------------------------

বাঁইচ্যা আছি

---------------------------------

বাঁইচ্যা আছি

তিথীডোর এর ছবি

হ...
সিরিকাস আলুচনা চলিতেছে,
মিস করন যাইবো না!!

--------------------------------------------------
"আমি তো থাকবোই, শুধু মাঝে মাঝে পাতা থাকবে সাদা/
এই ইচ্ছেমৃত্যু আমি জেনেছি তিথির মতো..."
*সমরেন্দ্র সেনগুপ্ত

________________________________________
"আষাঢ় সজলঘন আঁধারে, ভাবে বসি দুরাশার ধেয়ানে--
আমি কেন তিথিডোরে বাঁধা রে, ফাগুনেরে মোর পাশে কে আনে"

রাহিন হায়দার এর ছবি

হ! একটু চাইপা বয়।
________________________________
তবু ধুলোর সাথে মিশে যাওয়া মানা

________________________________
মা তোর মুখের বাণী আমার কানে লাগে সুধার মতো...

ধুসর গোধূলি এর ছবি
ধুসর গোধূলি এর ছবি

- বলি সবাই খালি গ্যালারীতে গিয়া ঠাসাঠাসি, ঠেলাঠেলি, হাউকাউ করলেই হবে? লবিং করতে হবে না? জোর লবিং চলুক মহামান্য ধুগোর চরিত্রে উড়োজাহাজ মার্কা আলকাতরা লেপনের বিরুদ্ধে।

ভাবী কই, এই যে আমার পক্ষে হয়রান আবীরের এক ভুট যোগ করেন।
___________
চাপা মারা চলিবে
কিন্তু চাপায় মারা বিপজ্জনক

রায়হান আবীর এর ছবি

হ। কালে কালে তো আর আপনার বয়স কম হইলোনা, এইবার একটা ভুট দেওয়াই যায় দেঁতো হাসি

তারানা_শব্দ এর ছবি

পড়ে মজা পেলাম। হিহিহিহিহিহি। দেঁতো হাসি

কোল্ড প্লে এর "স্পার্ক" গানটা প্রথম যেদিন শুনি কেঁদে ফেলি। এরপর সেই রাতে টানা অনেক বার শুনি, প্রতিবার ই কাঁদি।
ভিডিওটা এত্তো সুন্দর। শেয়ার করার জন্য ধন্যবাদ। মুভিটা দেখতে হবে। চিন্তিত

"মান্ধাতারই আমল থেকে চলে আসছে এমনি রকম-
তোমারি কি এমন ভাগ্য বাঁচিয়ে যাবে সকল জখম!
মনেরে আজ কহ যে,
ভালো মন্দ যাহাই আসুক-
সত্যেরে লও সহজে।"

ধুসর গোধূলি এর ছবি

- সিনেমার এই অংশটা আমার কাছে চমৎকার লেগেছে। আরেকটা লেগেছে সাইকেল চালানোর সময়।

কোল্ড প্লে'র এই গানটা কেমন জানি। ভেতর ধরে টানাটানি করে। আপনি গানটা শুনে কেঁদেছেন জেনে অবাক হলাম না। আমার এখানেও বাজে গানটা, অনবরত...
___________
চাপা মারা চলিবে
কিন্তু চাপায় মারা বিপজ্জনক

তাসনীম এর ছবি

ভালো লেগেছে আপনার লেখা...তবে...

জিগলিন্ডে আমাকে একবার প্রশ্ন করেছিলো কেমন মেয়ে পছন্দ আমার! তাকে ধরে একটা গান শুনিয়ে দিয়েছিলাম। গান ও মন দিয়ে শুনলো, তারপর বললো, আমি তো বাংলা বুঝি না, কী বললো গানে!

আমি বললাম, গানে কী বললো সেটাই তো খুঁজতেছি। যে আমাকে গানটা বুঝিয়ে দিতে পারবে, এমন মেয়েকেই আমি পছন্দ করবো!

যেদিন এরকম মেয়ে পাবেন সেদিন এই ব্লগটা মুছে দিয়েন...পাছে পাত্রের চরিত্র নিয়ে কেউ অন্যায্য প্রশ্ন তুলে হাসি

--------------------------------------
যে কথা এ জীবনে রহিয়া গেল মনে
সে কথা আজি যেন বলা যায়।

________________________________________
অন্ধকার শেষ হ'লে যেই স্তর জেগে ওঠে আলোর আবেগে...

ধুসর গোধূলি এর ছবি

- আপনিও আমার চরিত্র নিয়ে দুষ্টু কথা বললেন? আমি আরও ভাবলাম আপনাকে উকিল করে মেহবুবা ভাবীর কাছে নানা উপঢৌকণের বহর সাজিয়ে তশরিফ আনতে বলবো দুর্নীতিবাজ মেম্বর ওরফে চেয়ারম্যান ওরফে নোটারী পাবলিক ওরফে প্রথম শ্রেণীর গেজেটেড সচল দ্রোহী মেম্বরের দেয়া সাট্টিফিকেট সহ! মন খারাপ

ঠিক্কর্ছি, অমন কাউকে খুঁজে পেলে এই লেখাটা প্রিন্ট করে নিউমার্কেট থেকে কেরোসিন কাঠের ফ্রেমে বাধাই করে তারপর গিফট করবো। নিচে আমার অটোগ্রাফ সহ। দেঁতো হাসি
___________
চাপা মারা চলিবে
কিন্তু চাপায় মারা বিপজ্জনক

সাফি [অতিথি] এর ছবি

ওয়েডিং ক্র্যাশারের খাবার টেবিলের সিনটা ভুলার মতন না দেঁতো হাসি

যাউকগা, বেফাঁস ব্লগ লেইখা কতগুলা যে সম্বন্ধ হাতছাড়া করলেন, তা আর বললাম না

ধুসর গোধূলি এর ছবি

- সিনেমাটায় মারাত্মক কিছু সিন আছে যেগুলো দেখলে ক্রনিক্যাল আমাশয়ের রুগীও খিকখিক করে হেসে উঠবে। দেঁতো হাসি

হায় হায়, কামটা করলাম কী বস! আপনার কাছেও আমারে টাসকি খাওয়ানো কেউ ছিলো নাকি? চিন্তিত
___________
চাপা মারা চলিবে
কিন্তু চাপায় মারা বিপজ্জনক

সাফি [অতিথি] এর ছবি

নাহ আমার কাছে থাকলে কি আর আমি আপনার কাছে পাঠাইরে ভাই?

স্বপ্নাহত এর ছবি

গুরু, আপ্নে আর মানুষ হইলেন না দেঁতো হাসি

( যেইদিন মানুষ হবেন সেইদিন থেকে কিন্তু আর গুরু থাকবেন্না চোখ টিপি )

---------------------------------

তবে যে ভারি ল্যাজ উঁচিয়ে পুটুস্‌ পাটুস্‌ চাও?!

---------------------------------

বাঁইচ্যা আছি

ধুসর গোধূলি এর ছবি

- এতোদিনে যখন হৈতে পারলাম না, নরকে যাওনের আগে মানুষ হওয়ার আর সম্ভাবনা দেখতাছি না। একবারে নরকে গিয়াই কোল বালিশে ঢেলান দিয়া মাধুরী-শ্রীদেবীর যৌথ মুজ্রা দেখতে দেখতেই মানুষ হমু ভাবতাছি।
___________
চাপা মারা চলিবে
কিন্তু চাপায় মারা বিপজ্জনক

সুহান রিজওয়ান এর ছবি

পোলা তো নয় সে যে আগুনেরি গোলারে...

নিউমুন দেখি নাই, দেকবো না...শার্লক হোমস ভালোই লাগসে, ওয়ান্টাইম মুভি...

_________________________________________

সেরিওজা

ধুসর গোধূলি এর ছবি

- নিউমুন দেখলেই বরং দুইটা কথা শোনাইতাম এখন! হাসি

শার্লক হোমস শুনলাম ভালোই নাকি করছে। দেখা যাক, কেমন লাগে! ট্রেইলারে অবশ্য হোমসের চেয়ে ওয়াটসনরেই বেশি কেন্দ্রে মনে হৈছে আমার।
___________
চাপা মারা চলিবে
কিন্তু চাপায় মারা বিপজ্জনক

অতিথি লেখক এর ছবি

তার কারণ মনে হয়, গল্পের শার্লকের সাথে তাও জুড ল'র কিছু মিল খুঁজে পাওয়া যাবে, কিন্তু রবার্ট ডাউনি কে কি করে শার্লক বানায় দিল কাস্টিং ডিরেক্টর এটা আমার কাছে এক গভীর রহস্য।:O আমার অবশ্য এমনিতে রবার্ট ডাউনি কে ভাল লাগে, আর আয়্রন ম্যান হিসেবে চমৎকার হয়েছিল। সিনেমার কাহিনী কিন্তু ভাল লেগেছে। হাসি

যাযাবর ব্যাকপ্যাকার
___________________
ঘুমের মাঝে স্বপ্ন দেখি না,
স্বপ্নরাই সব জাগিয়ে রাখে।

ওডিন এর ছবি

এহহে, মিয়া ভাই তো ভালোই প্যাচে পইড়া গেলেন মনে হয়। ব্লগে মনের কথা লেখা আর খাল কেটে নিজের পুকুরে হাঙ্গর আমদানী করা অনেকটা কাছাকাছি ব্যপার। শয়তানী হাসি

ফুলমুনের টিকেটের পয়সা আশা করি আপ্নার বান্ধবীই দিছে। না দিলে আপনার জন্য সহানুভুতি থাকলো!

হিরোজ প্রথম সিজনের পরে আর ফলো করতে পারতেছি না। এমন গিট্টু লাগাইছে যে এখন আর আমি ব্যপারস্যপারগুলা ঠিক ঠাহর করে উঠতে পারি না। কিন্তু শুরুটা বেশ প্রমিজিং ছিলো।

আপনে কি সামুরাই সেভেন দেখসেন? কুরোসাওয়ার সিনেমাটা অবলম্বনে বানানো ছাব্বিশ পর্বের একটা অ্যানিমি? পারলে দেইখেন, ভালো লাগবে আশা করি।
______________________________________
যুদ্ধ শেষ হয়নি, যুদ্ধ শেষ হয় না

ধুসর গোধূলি এর ছবি

- ওরে কেষ্টারে হাঙ্গর কি, আমি তো দেখতেছি নীল তিমি এসে আমার খাটে শুয়ে, বগল বাজাতে বাজাতে আমাকে ঠেলে মেঝেতে নামিয়ে দিচ্ছে! মন খারাপ

নাহ, ফুলমুনের টিকেটের পয়সা আমার গাঁট থেকে যায় নাই।

হিরোস-এর প্রথম সিজনটাই আসলে সেরা। বাকিগুলা হুদাই ত্যানাপ্যাচানী মনে হৈছে আমার কাছে। তাও দেখি, কী আর করুম।

সামুরাই সেভেন দেখি নাই। বললেন যখন, দেখা শুরু করবোনি শীঘ্রই।
___________
চাপা মারা চলিবে
কিন্তু চাপায় মারা বিপজ্জনক

দ্রোহী এর ছবি

জুবায়ের ভাবী, ওসব জিগলিন্ডে-ফিন্ডে কিছু না। আসল ঘটনা হচ্ছে "নিউ মুন" একা একা দেখতে গেছে শুনলে সবাই নাক সিটকানো শুরু করবে। তাই কাহিনিতে জিগলিন্ডে নামক এই চরিত্রের উদয়। আপনি নিশ্চিন্তে ধু.গো'র বিয়ের বন্দোবস্ত করতে পারেন। ☺

ফাহিম এর ছবি

"আ বিউটিফুল মাইন্ড" অফ ধু.গো.!!!

=======================
যদি আমি চলে যাই নক্ষত্রের পারে —
জানি আমি, তুমি আর আসিবে না খুঁজিতে আমারে!

=======================
কোথাও হরিণ আজ হতেছে শিকার;

ধুসর গোধূলি এর ছবি
রাহিন হায়দার এর ছবি

আহা! স্পার্ক্স গানটা নিয়া যে কত পরিকল্পনা আছে...
________________________________
তবু ধুলোর সাথে মিশে যাওয়া মানা

________________________________
মা তোর মুখের বাণী আমার কানে লাগে সুধার মতো...

ধুসর গোধূলি এর ছবি
দুর্দান্ত এর ছবি

সিগ হাইল জিগলিন্ডে।
সরাসরি ফলকাইরির পাতা থেইকা মারসো নাকি ধুগো?
জলজ্যান্ত হইলেও মাশাল্লা যেই নাম। খিয়াল কইরা। গোস্তমোস্ত খাওয়াইয়া মোটাতাজা কইরা কোন এক আন্ধার রাইতে তোমার লোহার তালা ভাংগার মতলব নাই তো।
এর থেইকা চীন দেশ অনেক ভাল। সেখানের তারা পাসিভ এগ্রেসিভ।

ধুসর গোধূলি এর ছবি

- শাস্ত্রে আছে, "নলেজ পাইতে হৈলে চীন্দেশে যাওগা"। শাস্ত্রের উপ্রে কোনো কথা আছে? চোখ টিপি
___________
চাপা মারা চলিবে
কিন্তু চাপায় মারা বিপজ্জনক

দুর্দান্ত এর ছবি

হুম। আপাতত এইটা থেইকা টেরনিং নিতে পারো। তবে একটা টুপি লাগবে।

ধুসর গোধূলি এর ছবি
আশরাফ মাহমুদ এর ছবি

লেখা, মন্তব্যসকল পড়ে হা হা প গে! দেঁতো হাসি
উনার খোমা দেখিতে মঞ্চায়! চোখ টিপি

==============================
ঢাকার মৌন ঘ্রাণে বকুলফুলের নাভি
==============================
হা-তে এ-ক প্র-স্থ জো-ছ-না পা-ড়ে-র ঘ্রা-ণ

ধুসর গোধূলি এর ছবি

- কুনার খোমা আশরাফ ভাই? জুবায়ের ভাবী যে বালিকার কথা বললেন তাঁর?

কই গেলেন ভাবী, এই যে আরেক ভুট যোগ হৈলো। এইবার ফটুক দেখান, টাসকি খাই। দেঁতো হাসি
___________
চাপা মারা চলিবে
কিন্তু চাপায় মারা বিপজ্জনক

তানভীর এর ছবি

এখন বুঝছি জার্মানবাসীরা ক্যান খালি মনিরোশেনের পিছে লাগে...তারা জিগলিন্ডে নিয়া হিংসিত...পইড়া যেমন আমিও এট্টু হিংসিত হইলাম

ধুসর গোধূলি এর ছবি

- মনিরোশেনের হাউসের রোশনাই তো অন্য জায়গায়। ঐটা নলেজ সন্ধানী দেশের দিকে নির্দেশিত।

বাদবাকি জর্ম্মনবাসীদের হাউসে যা আছে তারাও উহাদের মতোই আল-সূদানী! একটা কষারুগী তো আরেকটা ক্রনিক্যাল ডায়েরিয়ায় ভুগে। তো অরা হিংসিত হৈবে নাতো কারা হৈবে, আপনে?

আইচ্ছা, আসলেই তো। আপনে হিংসিত ক্যান? ভাবীর ফুন নাম্বারটা দেন দেহি ঘটনাটা জানাই উনারে... চোখ টিপি
___________
চাপা মারা চলিবে
কিন্তু চাপায় মারা বিপজ্জনক

অতন্দ্র প্রহরী এর ছবি

স্পার্কস-এর জন্য ধন্যবাদ দিতে আসলাম।

ধুসর গোধূলি এর ছবি

- এনিটাইম, বিডিআর।

পুরো গানটা এখানে দিলাম। ডাউনলোড না করেও শোনা যাবে। বাফার হতেও খুব বেশি সমস্যা হবার কথা না।

___________
চাপা মারা চলিবে
কিন্তু চাপায় মারা বিপজ্জনক

নৈষাদ এর ছবি

জোছনা, দ্য ডটার অফ স্নেকচারমার - বেটিমানুষের খুব প্রিয় হইছিলো। - আমি তো জানতাম বেটামানুষের কাছে স্নেকচারমারের ডটার বেটি মানুষটা খুব প্রিয় হইছিলো।

গ্যালারিতে আমিও বসলাম, দেখি কোথাকার ওয়াটার কোথায় গড়ায়…।

ধুসর গোধূলি এর ছবি

- হে হে হে আপনিও দর্শক মণ্ডলী হয়ে গেলেন?
আমি তো ভাবছিলাম আপনি অন্তত ওয়াটার সেঁচ কর্মের জন্য "টাসকি খাইতে পারি" এমন কাউকে প্রস্তাব করবেন!

নাহ, এখন দেখতাছি একমাত্র ভাবীর ঘটকালি ছাড়া আর কারো উপরেই কোনো ভরসা নাই!
___________
চাপা মারা চলিবে
কিন্তু চাপায় মারা বিপজ্জনক

নিবিড় এর ছবি

গুরু আর কি কি শেয়ার করেন জিগলিন্ডের সাথে চিন্তিত


মানুষ তার স্বপ্নের সমান বড় ।

হাসিব এর ছবি

স্কৃনশট রাখা হৈলো ।

ধুসর গোধূলি এর ছবি
অনার্য সঙ্গীত এর ছবি

(স্বগতোক্তি: দারুণ! গৌতম'দার বৌভাতই শেষ নয়। আরো আসছে... দেঁতো হাসি )

ধুগো'দা ভালু লুক। আমি স্বাক্ষী। হাসি
____________________________
নিজের ভেতর কোথায় সে তীব্র মানুষ !

______________________
নিজের ভেতর কোথায় সে তীব্র মানুষ!
অক্ষর যাপন

ধুসর গোধূলি এর ছবি
অনিকেত এর ছবি

হা হা হা
গ্যালারীতে আমিও ঠেলে ঠুলে জায়গা নিলাম---!

নিউমুন দেখতে যাওয়া এবং সম্পূর্ণ খতম করে জীবিত অবস্থায় বেরিয়ে আসার জন্যে ধু গো কে 'চন্দ্রশিকারী' উপাধিতে ভূষিত করা হইল---
টোয়ালাইট দেখেই মগজে নানান জায়গায় বিষ্ফোরন ঘটেছিল। সেগুলো সামলে উঠতে পারিনি এখনো। তারপরও ডিপার্টমেন্টের লোকজনরে অনেকদিন 'হ্যারাস' করেছি নিউমুন দেখতে যাবার কথা বলে। লোকজন এখন শুক্কুরবারে আমার ঘরের ধারে কাছেই আসে না---যদি ধরে নিয়ে যাই নিউমুন দেখতে--!!

শার্লক হোমস দেখেছি। দেখার একমাত্র উদ্দেশ্য ছিল রবার্ট ডাউনি জুনিয়রের অভিনয়। এই লোকটার অভিনয় কুশলীতায় আমি মুগ্ধ। তবে মেজাজ খারাপ হয়েছে গাই রিচির পরিচালনা দেখে। বিরাট একটা 'গাই'(বাংলা গাই কিন্তু--খুউপ খিয়াল কৈরা) না হলে কেউ শার্লক হোমসরে এইরকম বানায়? যারা কোনান ডয়েলের লেখা পড়ে নাই, তাদের কথা ভিন্ন। কিন্তু যারা পড়েছেন তারা গাই রিচি'র #চি (রিচি-র সাথে ছন্দ মিলিয়ে কিছু একটা '#' স্থানে বসবে---হে হে হে --- ) চিবিয়ে খেয়ে ফেলতে চাইলে আমি খুব একটা দোষ দিতে পারব না।

ধুসর গোধূলি এর ছবি

- না, হবে না। সবাই খালি গ্যালারীর দিকে হাঁটে। আমি এদিকে একলা একলাই মাঠে খালি বারের দিকে দৌঁড়াইয়া ফিট খাইয়া পইড়া যাইতাছি!

চন্দ্রশিকারী বলেন আর তারাশিকারী- আমি সেদিন আরেক্টু হৈলেই জনগণের পিটনা খাইতাম! সবাই পূর্ণমনোযোগে ফুলমুন দেখে আর আমি তাগো ধ্যানের মাঝে অমাবস্যা টাইনা আইনা তাগো ফিলিংসের বারোটা বাজাই।

পূর্ণস্বাস্থ্য নিয়া যে সেদিন ফিরা আসছি সেইজন্য আগে স্বাস্থ্যসচিব উপাধী দিয়া নেন।

সিনেমা দেখার সময় আমি একটা সূত্র ফলো করি, বিশেষ করে কোনো বই অনুসরণ করে সিনেমা হলে আর কোনো দৈবক্রমে সেই বইটা আমার পড়া থাকলে। সূত্রটা হলো, আমি দেখতে বসি আমার এক্সপেক্টশনের বাক্স একদম খালি করে। যে কারণে পরিচিত কোনো সিনেমা দেখার পরে আমি আশাহত হই খুব কম।

একটা উদাহরণ দেই অনিকেত'দা। একটা বই যখন আপনি পড়েন, নিজের অজান্তেই তার দৃশ্যাবলী আপনি কল্পনা করে ফেলেন প্রতিটা লাইনে। এই কল্পনার প্রবণতা আমার অন্য যেকোনো পাঠকের থেকে আলাদা। আপনি একই দৃশ্যকে কল্পনা করছেন একভাবে, একই বই পড়ার সময়ে আমি সেই একই দৃশ্য কল্পনা করছি আরেকটু অন্যভাবে। তৃতীয় কেউ একদমই অন্যভাবে। তো যে সিনেমা বানায় সেও দৃশ্যের কল্পনাগুলো করে তার নিজের মতোই। সেটা থেকেই সে বইটার সিনেমারূপ দেয়। বেলাশেষে দেখা যায় সিনেমা হিসেবে যা দাঁড়ায় তাতে পাঠক আপনার কিংবা আমার কল্পনার প্রতিফলন খুব কম।

এইজন্য আমি পরিচিত সিনেমা দেখার সময় বইটাকে মনে রাখি না, আমি সিনেমাটোগ্রাফী দেখি। আমি ক্যামেরার কাজ দেখি, আমি অভিনয় দেখি। আমি নাইকার ত্যাড়াব্যাঁকা পোজ দেখি। মোদ্দাকথা সিনেমাটা আমি উপভোগ করি। আপনিও করে দেখেন, বেশ ভালো লাগবে।

একটা জানা জিনিষকে সম্পূর্ণ অজানা চোখ দিয়ে দেখার একটা আলাদা মজা আছে। হাসি
___________
চাপা মারা চলিবে
কিন্তু চাপায় মারা বিপজ্জনক

অনিকেত এর ছবি

একটা জানা জিনিষকে সম্পূর্ণ অজানা চোখ দিয়ে দেখার একটা আলাদা মজা আছে।

---তুমুল!!

অতিথি লেখক এর ছবি

উফ্‌! ভাই অনেক ধন্যবাদ আপনাকে, আমি একাই খালি এই কথাটা বলছিলাম নাকি সবাইকে এই ভয় ধরে যাচ্ছিল মনে। যাক! আরো লোক আছে দলে!! শান্তি পেলাম পড়ে।

যাযাবর ব্যাকপ্যাকার
___________________
ঘুমের মাঝে স্বপ্ন দেখি না,
স্বপ্নরাই সব জাগিয়ে রাখে।

অতিথি লেখক এর ছবি

জিগেলিন্ডে কে আসলে হাসি

হিমু এর ছবি

কারোলিনের কথা বাদ্দিলাম ... ইউলিয়া জানে এইসব? দেখিস পরে জানাজানি হয়া গেলে আমারে ঝাড়ি মারতে আহিস্না।



বুকে BOOK রেখে বন্ধু চলো আজ যাবো বরাহশিকারে মোরা ধার ধার ধার দিও বল্লমে ♪♫

ধুসর গোধূলি এর ছবি

- বন্ধুর দুর্দিনে বন্ধুই আগায়া আসে। তুইও আসলি। দোস্ত, তুই ইউলিয়া'র এইখানে প্রোক্সি দিতে থাক। প্লিজ না করিস না! চাইলে কারোলিনও তোর, একেবারে হামদর্দের ওয়াক্ফ করে দিয়া দিলাম।
___________
চাপা মারা চলিবে
কিন্তু চাপায় মারা বিপজ্জনক

ভ্রম এর ছবি

আপনার বন্ধু কি জার্মান? জার্মান মেয়েদের নাম এত উদ্ভট হয় কেন? আমার এক ক্লাসমেটের গার্লফ্রেন্ডের নাম "বেটিনা" যদিও তার ব্যাটা হওয়ার কোন রকম সুযোগ নাই...

এখন আর হিরোস দেখিনা... সিজান ওয়ানের পর থেকে আর সহ্য হয়না। এই ক্লেয়ার বেনেটটাকে কেউ খ্যাদায়না কেন!

ধুসর গোধূলি এর ছবি

- না, ইটালিয়ান। তবে ওর সাথে যাকে সম্পর্কে জড়াতে চেষ্টা করছি, সে জার্মান। এরা দু'জনে থাকে সামনা সামনি রুমে। "দরজা খুইলা দেখুম যারে"-টাইপ অবস্থা। কিন্তু সমস্যা হলো, একটা আরেকটারে দেখতে পারে না। এদের কাহিনী নিয়া লিখতে গেলে আরও মিনিমাম তিনটা গুরুচন্ডালী ছাড়তে হবে! হাসি

ক্লেয়ার বেনেটকে সরানোর তো কোনো উপায় দেখতেছি না। শালি তো মরেও না!
___________
চাপা মারা চলিবে
কিন্তু চাপায় মারা বিপজ্জনক

সাইফুল আকবর খান এর ছবি

বহুদিন পরে এমন ভালো ক'রে ‌'গুরুচন্ডালী' পড়া হ'লো। অনেক দারুণ মারাত্নক ফাটাফাটি ব্যাপক চ্রম ভাল্লাগলো। মন্তব্যের অংশের বিস্তর মজা আছে। দেঁতো হাসি
আপ্নে মিয়া মানুষ্ণা, পুরাই একটা আমলক্কি! চোখ টিপি

"জিগলিন্ডে'রে আমারও দেক্তে মঞ্চায়" আর কৈলাম্না (সবাই এক কথা কৈলে কেম্নে কী!), কিন্তু আমারে এট্টু কন তো, আমি যদি আপ্নেগো কোলনে আসতে চাই, আমারে কী করতে হৈবো?! আমার বয়স সাড়ে একত্রিশ! আর, ছত্র-ছাড়া ছাত্রজীবন ঢাকায়ই কাটাইছি; গত বছর একবার খালি পাতায়া-ব্যাংকক গিয়া এট্টু অফিশিয়াল ঘোরা-বেড়ানো-কাজ ক'রে আর অনেক যাতনা মনে পুষে নিয়ে আসছি, আর কোনোকালে কোনো সেমিকোলনেও গেলাম্না!
প্লিজ এট্টু জানায়েন আমারে। আমি কিন্তু সিরিয়াস, কাঞ্চন! খাইছে

___________
স্বাক্ষর?!
মাঝেসাঝে বুঝতে পাই- আমি
নিরক্ষর!

___________
সবকিছু নিয়ে এখন সত্যিই বেশ ত্রিধা'য় আছি

ধুসর গোধূলি এর ছবি

- জিগলিন্ডে আমাদের দেশের মেয়েদের মতোই দেখতে। বাদামী চোখ, তবে চুল সম্পূর্ণ কালো না। ওরে আমি বলি যে তোমারে বাংলাদেশে নিয়া বেইচা দেয়া যাবে, কেউ ধরতেও পারবে না। খালি কষ্ট কইরা ভাষাটা শিখ্যা ফেলাও।

আপনের সিরিয়াস প্রশ্নের সিরিয়াস উত্তর হৈলো, প্লেনের টিকেট কাটেন, এয়ারপোর্ট যান, প্লেনে উঠেন, ফ্রাঙ্কফুর্ট আইসা নামেন, তারপর আইসিই ট্রেইনে করে কোলন আইসা পড়েন। আল্লা ভরসা।

আর ভুগিচুগি উত্তর দিতে হৈলে অন্য জাগায় দিমুনি, কী কন! হাসি
___________
চাপা মারা চলিবে
কিন্তু চাপায় মারা বিপজ্জনক

সাইফুল আকবর খান এর ছবি

না থাউক, আপনের শেষমেশ জিগলিন্ডে-ব্যাপারি হওনের কাম নাই। তবে, বাংলাটা পুরাপুরি শিখায়া দ্যাহেন বরং, তালাত মাহমুদের ওই গান তো সে বুঝলেও বুঝতারে! ঠিক না? চান্স-টা মিস করন দিবেন ক্যান?
ভালো কথা, ওই গানটা কোনটা? "ঘুমেরো ছায়া চাঁদেরো চোখে", না কি "আধো রাতে যদি ঘুম ভেঙে যায়"? এইটাও কিন্তু সিরিয়াস কোয়েচ্চন! ইয়ে, মানে...

___________
স্বাক্ষর?!
মাঝেসাঝে বুঝতে পাই- আমি
নিরক্ষর!

___________
সবকিছু নিয়ে এখন সত্যিই বেশ ত্রিধা'য় আছি

ধুসর গোধূলি এর ছবি

- দ্বিতীয় গানটা কি তালাত মাহমুদের? প্রথমটা বিখ্যাত হলো ক্যামনে? আমি নিজেই তো শুনি নাই।

আরেকটু খাটেন, পেয়ে যাবেন। খুবই বিখ্যাত গান। বিশাল রোমান্টিক! দেঁতো হাসি
___________
চাপা মারা চলিবে
কিন্তু চাপায় মারা বিপজ্জনক

সাইফুল আকবর খান এর ছবি

হুইম্মিয়া! আমি তো আপ্নেরে হার্ডকোর তালাতো ভাই মনে করছিলাম, এহন দেহি আপ্নে প্রথমটা শুনেনই নাই, আর দ্বিতীয়টাও যে আসোলে তালাতের, সেইটা জানেনই না! অ্যাঁ
যাউকগা, হুনেন, প্রথমটা অনেক সুন্দর গান, আপ্নে শুনলে পরে ওই গানের লিংক দিয়া গুরুচন্ডালী লিখবেন, কাসাম-সে! আর, দ্বিতীয়টা মূলত তালাতের গান, পরে অনুপ ঘোষাল-সহ আর কয়েকজন চেষ্টা করছে গাওয়ার, কাছাকাছি কিছুও পারে নাই!

তালাত আমি শুনছি ছোটবেলায়, ভালো পরিমাণেই। আরো বেশ কিছু সুপারডুপাররোমান্টিক গান মনে আসতেছে, কিন্তু চাঁদ-তারাওয়ালা তো আর কোনোটাই দেখতে পাইতেছি না এখনও! আমি নিশ্চিত, আপ্নে যেই গানের কথা কইতেছেন, সেইটা যদি তালাত কাকুরই হয়া থাকে সত্যি সত্যি, তো নিশ্চয়ই আপ্নে কওনের লগে লগে আমি চিক্কুইর দিয়া কমু, - "ইস, এইটা?! এট্টুর জন্য মনে হৈলো না!"

কয়া দ্যান ভাই। পিলিজ লাগে। অফিস যেই পরিমাণ খাটায়, মাথা গরম হয়া থাকে, আপ্নে অলরেডি খাটায়া ফালাইছেন ভালো, আর না খাটায়া এট্টু কয়া দ্যান ভাইডি!

___________
স্বাক্ষর?!
মাঝেসাঝে বুঝতে পাই- আমি
নিরক্ষর!

___________
সবকিছু নিয়ে এখন সত্যিই বেশ ত্রিধা'য় আছি

ধুসর গোধূলি এর ছবি

- আরে খান ভাই, তালাতের এক গান বুঝানেরই মানুষ খুঁইজা পাইনা, আপনে কন তালাতো ভাই হৈয়া যাইতে। বুঝদার পাওয়ার যা-ও একটা চান্স আছে, সেইটাও যাক আরকি!

মূল গানটা পাইলাম না হাতের কাছে, খুঁজতে পারুম না। মাথামোথা কাম কর্তাছে না। হুদা বাদ্যটাই শোনাই। আশাকরি এইটাও ভালো লাগবে।


___________
চাপা মারা চলিবে
কিন্তু চাপায় মারা বিপজ্জনক

সাইফুল আকবর খান এর ছবি

ইস, এইটা?! !!!!!!! মন খারাপ

এইটাতে চাঁদ তো পরে, আর তারা তো নাই, তাই এইটা আপ্নের ওই চাঁদতারা কনসিডারেশন সেট-এ মনেই হয় নাই আমার।

হ, এইটা সুন্দর। কিন্তু কঠিন তো না একদমই! এই গানের মানে আপ্নের বাঙ্গালিনি বালিকারা কেউ কইতে পারলো না এতদিনে?! আফসুসসসসস! খাইছে

___________
স্বাক্ষর?!
মাঝেসাঝে বুঝতে পাই- আমি
নিরক্ষর!

___________
সবকিছু নিয়ে এখন সত্যিই বেশ ত্রিধা'য় আছি

অনিন্দিতা চৌধুরী এর ছবি

হুম....
জিগলিন্ডের সাথে শুধু বন্ধুত্ব?
এত জটিল ধাঁধা দিলে তো বন্ধুত্ব ও পালিয়ে যাবে।
দাঁড়ান আগে ওর সাথে দেখা করি তারপর মজা টের পাবেন।

ধুসর গোধূলি এর ছবি

- বন্ধুত্ব ছাড়া অন্য কিছু দিয়ে এই বন্ধুত্বকে নষ্ট করার কোনো ইচ্ছা আমার নাই, তারও নাই। দুনিয়ার বাকি সবকিছুতেই ভেজাল। একমাত্র বন্ধুত্বই হলো ভেজালহীন, না কী বলেন! ধাঁধাঁটা তাই এখনো চলছে, মনে হয় না এটা ভেঙে যাবে সহসা। হাসি
___________
চাপা মারা চলিবে
কিন্তু চাপায় মারা বিপজ্জনক

অনিন্দিতা চৌধুরী এর ছবি

দুনিয়ার বাকি সবকিছুতেই ভেজাল। একমাত্র বন্ধুত্বই হলো ভেজালহীন,

আপনার উত্তরটা খুব মনে ধরল।
তাই হুমকিটা তুলে নিলাম।
হা. হা. হা।

তুলিরেখা এর ছবি

আহা এই দিলওয়ালি জিগরওয়ালি জিগলিন্ডের ছবি দিলেন না?
জিগাইয়েন তো ওরে, ওর ভাইবোন কেউ আছে নাকি? হাসি
আমি এক গল্পে পড়ছিলাম জিগলিন্ডে আর জিগমুন্ড ছিলো যমজ ভাইবোন। আবার গল্পে আরেকজন ছিলো জিগফ্রীড। আরো সব অনেক কিছু ছিলো গল্পে, নামগুলি বড় পেইন দিতো।
আপনের লেখাখান জব্বর হইছে, ভালো থাইকেন, আরো ঘন ঘন লিখ্যেন।
-----------------------------------------------
কোন্‌ দূর নক্ষত্রের চোখের বিস্ময়
তাহার মানুষ-চোখে ছবি দেখে
একা জেগে রয় -

-----------------------------------------------
কোন্‌ দূর নক্ষত্রের চোখের বিস্ময়
তাহার মানুষ-চোখে ছবি দেখে
একা জেগে রয় -

ধুসর গোধূলি এর ছবি

- এই জিগলিন্ডে জিগরওয়ালী কিনা জানা নেই তবে সে দিলওয়ালী, এইটা জানি। আর সে দুনিয়াতে আসার সময় ভাই বোনের ল-শারীক হৈয়া আসছে। একটা ছুডুমুডু বইন থাকলেও তো আমার পোয়াবারো হৈতো! মন খারাপ

আপনেরে একটা গান শুনাই। দ্য ডাবলিনার্স-এর। শার্লক হোমসে গানটা চরমভাবে ব্যবহৃত হৈছে দেখলাম। পুরাই চরম।

গানটা beemp3 এর সৌজন্যে।

___________
চাপা মারা চলিবে
কিন্তু চাপায় মারা বিপজ্জনক

নাশতারান এর ছবি

খিক খিক !!!

"জিগলিন্ডে" মানে কী? এইটা যে কারো নাম সেইটা বুঝতেই খানিক সময় লেগে গেলো। খাইছে

_____________________

আমরা মানুষ, তোমরা মানুষ
তফাত শুধু শিরদাঁড়ায়।

ধুসর গোধূলি এর ছবি

- যাক, অবেশেষে ধরতে পারছেন।
আমি প্রায় এক গ্যালন হাঁফ ছাড়লাম, বাতাসকে খুশি করে বাঁচলাম। দেঁতো হাসি
___________
চাপা মারা চলিবে
কিন্তু চাপায় মারা বিপজ্জনক

আনন্দী কল্যাণ এর ছবি

দেঁতো হাসি

নতুন মন্তব্য করুন

এই ঘরটির বিষয়বস্তু গোপন রাখা হবে এবং জনসমক্ষে প্রকাশ করা হবে না।