মালটোভা

যাযাবর ব্যাকপ্যাকার এর ছবি
লিখেছেন যাযাবর ব্যাকপ্যাকার (তারিখ: শনি, ২৩/০৪/২০১১ - ৭:৪৭অপরাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

পিপুল বাড়ি ফিরে হাত না লাগিয়ে লাথি দিয়ে পাক মারে স্কুলের জুতোজোড়া। ওর ইচ্ছা হয় জুতো ছুটে চলে যাক যেদিকে খুশি, কিন্তু ঠকাস করে গিয়ে দরজায় বাড়ি খেতেই ভয় পায় একটু। একা একা রাগ দেখিয়ে জুতো ছোঁড়া সহজ, কিন্তু সেটা বাড়ির মূল দরজায় জুতোর র‍্যাকের কাছ থেকে ছুটে গিয়ে ডাইনিং রুমে ঢুকে পড়লে সমস্যা! মা দেখলেই ক্ষেপে যাবে, ধমকা ধমকি শুরু হবে আবার। তাছাড়া এখন বাজে বিকাল সাড়ে চারটা, বাবা নিশ্চয়ই অফিস থেকে বাড়ি চলে এসেছে, বিশ্রাম নিচ্ছে ডাইনিং রুম লাগোয়া বসবার ঘরে, টিভি ছাড়া আছে নিশ্চয়ই আর খবরের কাগজটাও থাকার কথা তার সামনে।

আরো রাগ লাগে পিপুলের, এখন কোথায় একটু কার্টুন দেখতে পেলে ভালো লাগতো, তা না, যত্তোসব! রাগে গজগজ করতে থাকে মনে মনে।

খানিক আগেই ছুঁড়ে ফেলা জুতো জোড়া তুলে এনে ঠিক জায়গায় সাজিয়ে রাখে আবার পিপুল। একটু রাগ দেখাবারো জো নেই কোথাও! এই যে সে কালকে থেকে বাড়ির কারো সাথে কথা না বলে আছে, কেউ দেখেছে খেয়াল করে? কেউ গুরুত্ব দিচ্ছে ব্যাপারটার?

সকালে মা টিফিনে কী ভরে দিয়েছে দেখেনি পিপুল চেয়েও। মাও রোজকার মতন কী চায় ও, সেটা আলাদা করে জিজ্ঞেস করেনি, মিতুলকে নিয়েই ব্যস্ত ছিল। পিচ্চিটা দিন দিন পাজি হচ্ছে! একা একা খায় ঠিকই এখন, কিন্তু ইদানীং নতুন একটা খেলা শিখেছে, মুখে খাবার নিয়ে উগড়ে ফেলে দেয়, মা হাঁহাঁ করে তেড়ে যায়, এইটায় তার ভারি আনন্দ হয়, খলবল করে হেসে, টেবিলের নিচে ঢুকে যায়। তারপর সবাই মিলে তাকে টেনে বের করা লাগে। যত্তোসব!

কালকে স্কুলেও মেজাজ খারাপ ছিল। রাতুলটা বদের আঁঠি একটা, ওর অংক বইতে একটা বিচ্ছিরি স্টিকার মেরে দিয়েছে, ওকে লুকিয়ে। জানে যে তার জিনিসে হাত দেয়া সে অপছন্দ করে, যত্ন করে নিজের ব্যাগ আর বইপত্র আগলে রাখে। অংকের মলয় স্যার বোর্ডে অংক করাবার আগে প্রতিদিন একজনের থেকে বই চেয়ে নেন নিয়ম করে। কালকে ওর টার্ন ছিল। ইচ্ছা করে এই কাণ্ড করেছে রাতুলটা। গত সপ্তাহে টিফিন টাইমে ফুটবল খেলার সময়ে ওর গোল আটকে দেয়ার শোধ তুলেছে।
মাথায় রক্ত চড়ে গিয়েছিল পিপুলের। দুম করে একটা ঘুষি লাগিয়ে দিয়েছিল ক্লাসের মাঝেই। অন্যপাশে বসা মেয়েরা আঁতকে উঠে আরো দূরে সরে গেল ছেলেদের থেকে, আর খুব বিচ্ছিরি একটা অপরাধ করেছে এমনভাবে ওর দিকে তাকিয়ে নিজেদের মাঝে ফিসফিস করতে থাকলো। তারপরের ঘটনা হেডস্যার পর্যন্ত গড়িয়েছে। তবে পিপুল ছাত্র ভালো, আর এমনিতে শান্তও, আর রাতুলের প্রায়ই শাস্তি পাবার রেকর্ড আছে, তাই শেষতক স্রেফ বাসায় ফোনে জানানো পর্যন্তই থেকেছে ব্যাপারটা।

অথচ কালকে বিকেলে ওদের শিশু-পার্কে যাবার কথা ছিল! নতুন একটা কাপ-পিরিচের রাইড এসেছে, বাবা বলেছিল ওটায় চড়া হবে! কিসের কী! বাড়ি ফিরে জুটলো মায়ের বকা।

বাবা খুব গম্ভীর মুখ করে বললো, “তোমার কাছ থেকে এটা আশা করা যায় না পিপুল।“

পিপুল শুধু বলতে গিয়েছিল, “কিন্তু দোষ তো রাতুলের!”

বাবা এতে আরো গম্ভীর হয়ে গেল, “কেউ খারাপ করলেই তোমাকেও তার মতোই আচরণ করতে হবে এটা কি তুমি আমাদের কাছ থেকে শিখেছ?”
তারপর উঠে যেতে যেতে আর একবার ফিরে বললো, “অন্যকে দোষারোপের আগে নিজেকে শোধরাতে হবে, এটা সব সময়ে মনে রেখ পিপুল।“

সন্ধ্যায় একবার মিনমিন করে পিপুল আগামিকালকে শিশু-পার্ক যাওয়া যাবে কিনা কথাটা তুলতে চেষ্টা করেছিল। কিন্তু কেউ ওর কথার শুনতেই পেলো না যেন। মিতুল কেমন মুখ দিয়ে বাবল তৈরি করে, হা হা করে হেসে কুটি কুটি হচ্ছে নিজে নিজেই, তাই নিয়ে বাবা-মা মগ্ন হয়ে রইল।
তারপর থেকেই কথা বলা বন্ধ করে দিয়েছে পিপুল। কী দরকার? কেউ তো ওর জন্যে কেয়ার করে না। কেউ ওর পছন্দ-অপছন্দ দেখে না। জুতো জোড়া ঠিক জায়গায় রাখতে রাখতে চোখ ফেটে পানি আসতে চায় পিপুলের।

“দরজায় কে?” ভেতর থেকে মায়ের ডাক ভেসে আসতেই ধড়মড় করে চোখ মুছে ঠিক হবার চেষ্টা করে পিপুল। নিশ্চিত জুতো ছিটকে দরজায় লাগার আওয়াজ পেয়ে বকা দেবে! এখন কিছুতেই নিজের দুর্বলতা প্রকাশ করা যাবে না!
তাড়াতাড়ি ব্যাগ কাঁধে, যেন কিছুই হয়নি এমন ভাব করে ঘরে ঢোকে পিপুল। মা রান্নাঘর থেকে ডালপুরি ভেজে নিয়ে ডাইনিং-এ ঢোকে। বাবা টিভির সামনে, কাগজ নিয়ে। মিতুলটা ঘুমাচ্ছে মনে হয়।

ডালপুরি পিপুলের ভীষণ প্রিয়! দেখেই জিভে জল আসে। কিন্তু তাতে কী! ডালপুরি বাবারও প্রিয়, পিচ্চি মিতুলেরও প্রিয়! সে না দেখার ভান করে নিজের ঘরের দিকে চলে যেতে থাকে।

মাও ওর দিকে না ফিরেই বলেন, “হাত-মুখ ধুয়ে খেতে এস সবাই।“

পিপুল উত্তর না দিয়ে ঘরে ঢুকে যায়, হাত-মুখ ধুতে ধুতে একবার ভাবে যাবে না খেতে, বলবে খিদে নেই তার। তারপর মুখ মুছতে মুছতে টের পায় প্রচণ্ড খিদে আসলে পেটে।
দীর্ঘশ্বাস ছাড়ে একটা। তারপর ধীর পায়ে ডাইনিং-এর দিকে যায়। চেয়ার টেনে বসে পড়ে বাবার পাশে।

মিতুলটারো ঘুম ভেঙেছে, মায়ের কোলে চড়ে মুখ ধুচ্ছে ডাইনিং-এর বেসিনে। এবার মা আর মিতুল এসে বসে টেবিলে। ডালপুরির কোনা ভেঙে মুখে পুরে পিপুল, বাবা চিলি সসটা ওর দিকে এগিয়ে দেয়। নেবেনা নেবেনা করেও নেয় পিপুল। ওর মনে হয়, তাহলে বোধ হয় বাবা-মা ভুলে যায়নি ওর কথা!
গরম গরম মুচমুচে ডালপুরি গলে যেতে থাকে ওর মুখের ভেতরে, আনমনে ভাবে, কিন্তু ও যে তাদের সাথে কথা বলছে না, সেটা কি খেয়াল করেছে?

বাবা-মা জরুরি বিষয়ে আলাপ করে। পিপুল একা একাই খায়।
খেতে খেতে আজকে স্কুলের কথা ভাবে, অদিতি সব সময়ে পেন্সিল শার্পনার আনতে ভুলে যায়, অন্য সময়ে ওর থেকে ধার নেয়, আজকে শিষ ভেঙে গেলেও ওর থেকে নেয় নাই। আর সব মেয়েরাই কেমন চোখ বড় বড় করে দেখছিল ওর দিকে। আর পাজি রাতুলটা সবার চোখ এড়িয়ে ওকে ঠিকই ভেঙচি কাটছিল বারবার। সকালে ক্লাসের আগে ফার্স্ট বয় রওনক ওর পিঠ চাপড়ে সাব্বাশ বলতে এসেছিল, রাতুলের বিরুদ্ধে দাঁড়াবার জন্যে, কিন্তু বাহ্‌বাটা মোটেও ভাল লাগেনি ওর। রওনক নিজে কখনো রাতুলের নাম লেখারো সাহস পায় না শাস্তির লিস্টে। ভীতুর ডিম একটা। তবে পিপুলেরও উচিত হয়নি হিতাহিত জ্ঞান হারিয়ে রাতুলকে ঘুষি মারা। এমন বড় কিছু ঘটনা ছিল না যে মারামারি করতে হবে। তারচেয়ে সুমন আর আরিফের সাথে আলোচনা করে একটা বুদ্ধি বের করতে হবে রাতুলকে শায়েস্তা করার জন্যে। ক্লাসের সবাই ওর অত্যাচারে অতিষ্ঠ।

কিন্তু আজকে স্কুলে একটা চমৎকার ঘটনা ঘটেছে, বাংলার সুমনা ম্যাডাম ওর লেখা ‘সংকল্প’ কবিতার ভাবার্থটা দারুণ হয়েছে বলে প্রশংসা করেছেন সবার সামনে। এটা মনে পড়তেই উত্তেজিত হয়ে ওঠে পিপুল। বাবা-মাকে আরেকটু হলেই বলেই ফেলছিল প্রায়, কিন্তু পরক্ষণেই নিজেকে সামলে নেয়, মিতুলের কীর্তি দেখে হাসছে দুজনেই।
ধুর! রাগ লাগে পিপুলের।

আজকে খুবই মালটোভা খেতে ইচ্ছা করছিল। মন খারাপ থাকলে মা তাকে মালটোভা বানিয়ে দেয়। অন্য সময়ে হলে সে নিজেই তাক থেকে পেড়ে আনতো, মা বানিয়ে দিত, আর ততক্ষণে চামচ ঢুকিয়ে এমনি এমনি কিছুটা খেয়ে নিত সে। ওতে বারণ করে না মা, খালি শুকনো চামচ ঢোকাতে হবে এটা মানতে হয়। একবার মায়ের পেছনে দেয়ালের তাকে চিনি আর বিস্কুটের বয়ামের মাঝে রাখা মালটোভার বয়ামটার দিকে দেখলেও, মুখে কিছুই আবদার করে না।
মনটা খারাপ লাগে। এই যে ও কারো সাথে কথা বলছে না কালকে থেকে, কেউ খেয়ালও করছে না ব্যাপারটা। নিজেকে কেমন যেন অদৃশ্য মনে হয়, গুরুত্বহীন মনে হয়।

টেবিল ছেড়ে উঠে নিজের ঘরের দিকে চলে যাবার সময়ে মা ডাকে –

“পিপুল -”

দরজার কাছে থমকে দাঁড়ায় পিপুল।

“মালটোভা খাবি?”

ধীরে ধীরে ঘুরে দাঁড়ায় পিপুল, মাথাটা এক দিকে কাত করে লক্ষ্মী ছেলের মতো বলে, “হুঁ”।

তারপর আস্তে আস্তে ফিরে আসে টেবিলে। বাবা মুচকি হেসে তার পাশের চেয়ারটা এগিয়ে দেন ওর বসার জন্যে।

-------------------------------------------------------------

প্রিয় বড় ভাই, নতুন বাবা মাহবুব মুর্শেদ আর বন্ধু অভিমানী লিংকিন পার্ক অতন্দ্র প্রহরীকে জন্মদিনের শুভেচ্ছা! হাসি

অমিত আহমেদকে ধন্যবাদ ছোটবেলার কথা মনে করিয়ে দেবার জন্যে।
লিংকিন পার্ক নামকরণ কৃতিত্ব জিএমটি


মন্তব্য

দ্রোহী এর ছবি

পিপুল ও মিতুলকে জন্মদিনের শুভেচ্ছা। দেঁতো হাসি

যাযাবর ব্যাকপ্যাকার এর ছবি

খাড়ান, আর কয়টা দিন! তারপর আপনার পোনায় কী কী করে, কত মাল্টোভায় কত মিল্কশেক বানায় দেইখেন! দেঁতো হাসি

___________________
ঘুমের মাঝে স্বপ্ন দেখি না,
স্বপ্নরাই সব জাগিয়ে রাখে।

মুস্তাফিজ এর ছবি

পিপুল ও মিতুলকে জন্মদিনের মাল্টোভা মার্কা শুভেচ্ছা। দেঁতো হাসি

...........................
Every Picture Tells a Story

যাযাবর ব্যাকপ্যাকার এর ছবি

আচ্ছা, পিপুল আর মিতুল কেডা? চিন্তিত
তবে তাদেরকেও শুভেচ্ছা! দেঁতো হাসি

___________________
ঘুমের মাঝে স্বপ্ন দেখি না,
স্বপ্নরাই সব জাগিয়ে রাখে।

মর্ম এর ছবি

পিচ্চিদের গপ্পো, তার উপর আবার চমত্‍কার লেখা, খুব খুব ভাল লাগল পড়ে!

পিচ্চি যারা এ গপ্পো পড়বে ওরাও নিশ্চিত পড়তে পড়তে ভাববে, "আমার কথা এরা জানল কীভাবে?!"

এমন আরো আরো গল্প পাবার আশায় রইলাম দেঁতো হাসি

~~~~~~~~~~~~~~~~
আমার লেখা কইবে কথা যখন আমি থাকবোনা...

যাযাবর ব্যাকপ্যাকার এর ছবি

আসলে এইটা কিন্তু ছোটবেলারই গল্প, সবারই পিপুলের মতো এইরকম কাছাকাছি কিছু ঘটনা আছে মনে হয়! আর বাবা-মারা যে কী! ঠিকই সব বুঝে যায় ক্যাম্নে ক্যাম্নে যানি! অ্যাঁ

অনেক অনেক আপনারে অসংখ্য -ধইন্যাপাতা-

___________________
ঘুমের মাঝে স্বপ্ন দেখি না,
স্বপ্নরাই সব জাগিয়ে রাখে।

নীলকান্ত এর ছবি

উভয়কেই শুভ জন্মদিন। এখন একটা কথা কই।
খিদা লাগছে। ওঁয়া ওঁয়া কেক খামু দেঁতো হাসি


অলস সময়

যাযাবর ব্যাকপ্যাকার এর ছবি

কেউ আর কেক্কুকের কথা কয় না রে ভাই... জালেম দুইন্যা... মন খারাপ

___________________
ঘুমের মাঝে স্বপ্ন দেখি না,
স্বপ্নরাই সব জাগিয়ে রাখে।

এস এম মাহবুব মুর্শেদ এর ছবি

চমৎকার গল্প! এবং অসংখ্য ধন্যবাদ!

যাযাবর ব্যাকপ্যাকার এর ছবি

পাপুন্তুস আরেকটু বড় হোক ভাইয়া, ইশকুল টিশকুল যাওয়া শুরু করুক, তারপর টের পাবেন ইমোশোনাল ব্ল্যাকমেইলিং কত মজার খেলা! দেঁতো হাসি দেঁতো হাসি

পাপুন্তুসকে নিয়ে আপনার আর আপুর উজ্জ্বল ভবিষ্যতের অনেক অনেক শুভেচ্ছা। শুভ জন্মদিন। হাসি

___________________
ঘুমের মাঝে স্বপ্ন দেখি না,
স্বপ্নরাই সব জাগিয়ে রাখে।

ওডিন এর ছবি

গল্প খুবই চমৎকার!
মালটোভা হরলিক্স বুস্ট প্লাস সাথে কোন দুধজাতীয় এবং স্বাস্থ্যকর জিনিসই আমার পছন্দ না (তাই পিচ্চিকালেই নিজেকে ল্যাকটোজ ইনটলারেন্ট বলে ঘোষণা দিছিলাম খাইছে ) তবে এই মানুষ দুইজনকে আমার খুবই পছন্দ হাসি

মুর্শেদ ভাই আর লিঙ্ক-ইন-পার্ক, দুইজনকেই জন্মদিনের শুভেচ্ছা! আর চকলেটমিল্কশেক এর ওপরে একটু আইসক্রিম ভাসানো থাকলে আমি অবশ্য আপত্তি করিনা, এই কথাটা আপনারা একটু খেয়াল রাইখেন। দরকার হলে মেডিকেল সার্টিফিকেট দেখাতে পারি যে আমার ল্যাকটোজ ইনটলারেন্স নাই, দেঁতো হাসি

যাযাবর ব্যাকপ্যাকার এর ছবি

ধনেপাতা ওডিনদা। এই দুইজন আমারো খুবই পছন্দের মানুষ।
তবে আমি কিন্তু এখনো এমনি এমনিই খাই!! খাইছে

আর ধরো গিয়ে চকলেটমিল্কশেক এর ওপরে একটু আইসক্রিম ভাসানো থাকলে, আমি মানে খুবই পছন্দ করি! (হিন্ট! হিন্ট!) চোখ টিপি দেঁতো হাসি

___________________
ঘুমের মাঝে স্বপ্ন দেখি না,
স্বপ্নরাই সব জাগিয়ে রাখে।

মেঘের ছোট ছেলে এর ছবি

ওদেরকে জন্মদিনের শুভেচ্ছা। চমত্‍কার লেখা। ছোট বেলার কথা মনে পড়ে গেল।

যাযাবর ব্যাকপ্যাকার এর ছবি

আপনারে অসংখ্য -ধইন্যাপাতা-

___________________
ঘুমের মাঝে স্বপ্ন দেখি না,
স্বপ্নরাই সব জাগিয়ে রাখে।

তিথীডোর এর ছবি

পিপুল ও মিতুলকে জন্মদিনের মাল্টোভা মার্কা শুভেচ্ছা।

হো হো হো
'মুর্শেদ ভাই এবং প্রহরী'দাকে জম্মদিনে শুভ কামান! হাসি

________________________________________
"আষাঢ় সজলঘন আঁধারে, ভাবে বসি দুরাশার ধেয়ানে--
আমি কেন তিথিডোরে বাঁধা রে, ফাগুনেরে মোর পাশে কে আনে"

অতীত(অতিথি) এর ছবি

পয়দাদিবসের শুভেচ্ছা উভয়কে

রোমেল চৌধুরী এর ছবি

এস এম মাহবুব মুর্শেদ ও অতন্দ্র প্রহরী,
আপনার দুজনের জন্মদিন শুভ হোক!

------------------------------------------------------------------------------------------------------------------------
আমি এক গভীরভাবে অচল মানুষ
হয়তো এই নবীন শতাব্দীতে
নক্ষত্রের নিচে।

নৈষাদ এর ছবি

জন্মদিনের শুভেচ্ছা রইল পিপুল ও মিতুলের জন্য।

(সেই দিন আর নেই... লোকজন কেক্কুকের কথা বলে না আর...)

যাযাবর ব্যাকপ্যাকার এর ছবি

আহা... কেক্কুক... আইসক্রিম হলেও চলে অবশ্য... চিন্তিত

___________________
ঘুমের মাঝে স্বপ্ন দেখি না,
স্বপ্নরাই সব জাগিয়ে রাখে।

কৌস্তুভ এর ছবি

দুই খোকাকেই জন্মদিনের শুভেচ্ছা... খেলনাপাতি কিছু উপহার দেওয়া যায় কিনা ভাবতেছি...

যাযাবর ব্যাকপ্যাকার এর ছবি

গল্প নিয়ে কিছুই কয় না দেখি! চিন্তিত

___________________
ঘুমের মাঝে স্বপ্ন দেখি না,
স্বপ্নরাই সব জাগিয়ে রাখে।

কৌস্তুভ এর ছবি

আরে! গপ্প মিট্টি হইছে গো!

যাযাবর ব্যাকপ্যাকার এর ছবি

হ, তাইলে ঠিকাছে। তবে দেরি করে বলায় তোমার কাছে আরো কিছু চক্কেট পাওনা হলো আরকি! চোখ টিপি

___________________
ঘুমের মাঝে স্বপ্ন দেখি না,
স্বপ্নরাই সব জাগিয়ে রাখে।

অনার্য সঙ্গীত এর ছবি

মুর্শেদ ভাই এবং অপ্র'দা রে জন্মদিনের শুভেচ্ছা।

______________________
নিজের ভেতর কোথায় সে তীব্র মানুষ!
অক্ষর যাপন

সুহান রিজওয়ান এর ছবি

বুড়ো পিপুলদের বড় করে শুভেচ্ছা জানালাম।

পোয়েট অব এ ডিমাইজ এর ছবি

জন্মদিনের শুভেচ্ছা রইল।

চমৎকার গল্প। শৈশব দৃশ্যমান হল।

যাযাবর ব্যাকপ্যাকার এর ছবি

হাসি

___________________
ঘুমের মাঝে স্বপ্ন দেখি না,
স্বপ্নরাই সব জাগিয়ে রাখে।

অদ্রোহ এর ছবি

বুড়ো বয়েসে খোকাটে হওয়ার মওকা তো রোজ রোজ আসেনা হাসি

শুভ জন্মদিন খোকাবাবুদ্বয়!!

--------------------------------------------
যদ্যপি আমার গুরু শুঁড়ি-বাড়ি যায়
তথাপি আমার গুরু নিত্যানন্দ রায়।

সৈয়দ সাহেবের ভূত এর ছবি

চমৎকার লেখা। ফিরে গেলাম সেই স্কুলবেলার দিনগুলোতে।

বড় হওয়ার কষ্ট অনেক। জটিলতায় যে ভরে যায় প্রতি মুহূর্ত। কিন্তু আনন্দ রয়ে যায় স্মৃতিতে- এক গ্লাস মাল্টোভার। আমার মনে আছে, কি যেন হয়ে ছিল এক বিকেলে, ভীষণ মন খারাপ- মা তখন পরোটা বানিয়ে দিল, সুজি দিয়ে খাবার জন্য। আমার অনন্দ আর কে দেখে। হয়ত জীবনে এরপর আরো অনেক ভাল খাওয়া জুটেছে, কিন্তু মনে আছে সেদিনের সেই আনন্দ।

অলস শনিবার দুপুরে আবার মনটা খারাপ হয়ে গেল। মনে হলো, বড় হওয়ার কোন প্রয়োজন ছিল না।

যাযাবর ব্যাকপ্যাকার এর ছবি

অনেক ধন্যবাদ।
আর সেটাই, বড় হয়ে যাওয়া মানেই চিন্তাভাবনায় অহেতুক অনেক বেশি জটিলতা, এই জন্যেই বড় হয়ে যাবার কোন প্রয়োজন নাই! আমি তো সে কারণেই বড় হতে চাই না কক্ষণো! You are only as young as your heart is! হাসি

___________________
ঘুমের মাঝে স্বপ্ন দেখি না,
স্বপ্নরাই সব জাগিয়ে রাখে।

শুভাশীষ দাশ এর ছবি

জন্মদিনের শুভেচ্ছা।

সৈয়দ নজরুল ইসলাম দেলগীর এর ছবি

জন্মদিনের শুভেচ্ছা
কেক্কুক খাওয়ার বিষয়টা কী হবে?
গল্প চমৎকার হইছে

______________________________________
পথই আমার পথের আড়াল

যাযাবর ব্যাকপ্যাকার এর ছবি

আপনারে অসংখ্য -ধইন্যাপাতা- দেঁতো হাসি

___________________
ঘুমের মাঝে স্বপ্ন দেখি না,
স্বপ্নরাই সব জাগিয়ে রাখে।

নাশতারান এর ছবি

মালটোভা ভালু পাই। গল্প মালটোভায়িত হয়েছে।

বাঘুর বাবা আর প্রহরী ভাইকে জন্মদিনের শুভেচ্ছা।

_____________________

আমরা মানুষ, তোমরা মানুষ
তফাত শুধু শিরদাঁড়ায়।

যাযাবর ব্যাকপ্যাকার এর ছবি

নাও নাও ধোঁয়া ওঠা মালটোভা খাও! দেঁতো হাসি

___________________
ঘুমের মাঝে স্বপ্ন দেখি না,
স্বপ্নরাই সব জাগিয়ে রাখে।

তুলিরেখা এর ছবি

আরে নাম দেখে আমি তো ভাবলাম মলোটভ ককটেলের মতন কোনো বোমাটোমা বুঝি হাসি
খুব ভালো হয়েছে লেখা, খাঁটি পিচ্চিতোষ।
দুইজনকেই জন্মদিনের শুভেচ্ছা। থালাভরা ফুলকো লুচি, ঝাল ঝাল ঘুগনি আর জামবাটি ভরা পায়েস লন। হাসি

-----------------------------------------------
কোন্‌ দূর নক্ষত্রের চোখের বিস্ময়
তাহার মানুষ-চোখে ছবি দেখে
একা জেগে রয় -

যাযাবর ব্যাকপ্যাকার এর ছবি

আপনাকেও অনেক অনেক বাবুতোষ ধন্যবাদ আমার পক্ষ থেকে তুলিরেখাপু!! দেঁতো হাসি

থালাভরা ফুলকো লুচি, ঝাল ঝাল ঘুগনি আর জামবাটি ভরা পায়েস

কিন্তু অসময়ে এগুলো কী শোনালেন!! আয় হায়! মন খারাপ

___________________
ঘুমের মাঝে স্বপ্ন দেখি না,
স্বপ্নরাই সব জাগিয়ে রাখে।

রানা মেহের এর ছবি

কী মিষ্টি একটা গল্প।
মন ভালো হ‌য়ে যায় এরকম গল্প পড়লে।
লোকজনের জন্মদিন ভাগ‌্য দেখে ঈর্ষা মন খারাপ

-----------------------------------
আমার মাঝে এক মানবীর ধবল বসবাস
আমার সাথেই সেই মানবীর তুমুল সহবাস

যাযাবর ব্যাকপ্যাকার এর ছবি

আপনারে অসংখ্য -ধইন্যাপাতা- আপনারে অসংখ্য -ধইন্যাপাতা-

আসলে ব্যাপার কী রানাপু, এই মুর্শেদ ভাই নাকি অল্প কিছু চক্কেটে টক্কেট পাঠিয়েছিলেন দেশে, তা ছোট বোনের কথা যেন নেক্সটবার ভুলেটুলে না যান এই জন্যেই মানে... হে হে। আর অপ্রটা খালি পাস্তা খেয়ে বেড়াচ্ছে শুনছি ইদানীং! তাই ওকে একটু মনে করিয়ে দেয়া আরকি! তাছাড়া গরমের দিন মানে আইসক্রিম সিজন চলে এসেছে... বুঝতেই পারছেন, নিজের সুইট টুথের জানান দিলাম আরকি এট্টু...

তা আপনার বাঢঢেটা জানি কবে? দেশে আসছেন তো নাকি সামনে? অবশ্য অসুবিধা নেই, ইনবক্সে জানিয়ে প্রপার ইন্সেন্টিভ দিলেই কিন্তু... হে হে হে... দেঁতো হাসি

___________________
ঘুমের মাঝে স্বপ্ন দেখি না,
স্বপ্নরাই সব জাগিয়ে রাখে।

অমিত আহমেদ এর ছবি

লোকজনের জন্মদিন ভাগ‌্য দেখে ঈর্ষা

আমারও!

যাযাবর ব্যাকপ্যাকার এর ছবি

ইনবক্সে মেসেজ রাইখা, কিউতে খাড়ান! চোখ টিপি

___________________
ঘুমের মাঝে স্বপ্ন দেখি না,
স্বপ্নরাই সব জাগিয়ে রাখে।

লুৎফর রহমান রিটন এর ছবি

তোমার লেখাটা তো দারূণ!
চাইল্ড সাইকোলজি খুবই ভালো বোঝো তুমি।

মাহবুম মুর্শেদ আর অতন্দ্র প্রহরীকে জন্মদিনের শুভেচ্ছা।

হাবু বেশ বড়সড়,গাবুটা তো পিচ্চি
হেরে গিয়ে হাবু বলে--উৎসাহ দিচ্ছি!

যাযাবর ব্যাকপ্যাকার এর ছবি

অনেক ধন্যবাদ রিটন ভাই!
আসলে মুর্শেদ ভাই আর অপ্রর জন্যে কী ধরনের লেখা পোস্ট যায় ভাবছিলাম অনেক্ষণ ধরে, কিন্তু কিছুই স্থির করতে পারছিলাম না। এমন সময়ে অমিত আহমেদের সাথে কথার ফাঁকে, ছোটবেলায় বাবা-মার সাথে অভিমান আর চকলেট ড্রিংকের কাহিনি কমন পড়লো। তো চটপট লিখে ফেললাম নিজেদেরই গল্প! দেঁতো হাসি

আপনাকে আবারো আপনারে অসংখ্য -ধইন্যাপাতা-

___________________
ঘুমের মাঝে স্বপ্ন দেখি না,
স্বপ্নরাই সব জাগিয়ে রাখে।

নীড় সন্ধানী এর ছবি

গল্পের থীম বুঝতে একদম শেষে এসে ব্রেক কষতে হলো।
মাহবুব মুর্শেদ আর অতন্দ্র প্রহরীকে জর্মদিনের যৌথ শুভেচ্ছা।

মালটোভা আমারো প্রিয় ছিল। তবে শুকনা। গুড়া গুড়া মালটোভা খাতার ছিড়ে নেয়া পৃষ্টায় নিয়ে খাটের কোনায় গিয়ে চুপি চুপি খাওয়া।

‍‌-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.--.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.
সকল লোকের মাঝে বসে, আমার নিজের মুদ্রাদোষে
আমি একা হতেছি আলাদা? আমার চোখেই শুধু ধাঁধা?

যাযাবর ব্যাকপ্যাকার এর ছবি

ইয়ে, কিন্তু বোঝা যাচ্ছে কী ... ? চিন্তিত

আমিতো বললামই, আমি এখনো এমনি এমনি খাই! দেঁতো হাসি
আপনারে অসংখ্য -ধইন্যাপাতা-

___________________
ঘুমের মাঝে স্বপ্ন দেখি না,
স্বপ্নরাই সব জাগিয়ে রাখে।

সুমিত রহমান এর ছবি

"পিপুল - মালটোভা খাবি" শেষটা আসলেই চমৎকার হয়েছে, শুরু থেকেই অবশ্য গল্পটা দারুণ ছিল..... গল্প যতই ছোট হোক গল্পের শ্রী না থাকলে তা একটানে শেষ করা যায় না বা শেষ করলও কাহিনীটাকে ঠিক অনুভব করা যায় না, এক্ষেত্রে তা খুব ভালোভাবেই পারা গেছে। সুন্দর সৃষ্টিকর্মের জন্য আপনাকে ধন্যবাদ (নাকি সাধুবাদ) আর গল্পটা যাদের জন্যে লেখা তাদেরকেও আমার পক্ষ থেকে জন্মদিনের শুভেচ্ছা।

যাযাবর ব্যাকপ্যাকার এর ছবি

ইয়ে, আমি তো আসলে গল্প-টল্প লিখতে পারি না, 'গল্প' লেখার বদলে 'গল্প করছি' এরকম ভাব আরকি...! প্রশংসার জন্যে অনেক ধন্যবাদ আপনাকে। হাসি

___________________
ঘুমের মাঝে স্বপ্ন দেখি না,
স্বপ্নরাই সব জাগিয়ে রাখে।

ফাহিম হাসান এর ছবি

গল্পটা এ্যাত্ত সুন্দর হইছে বলার না!

শুভ জন্মদিন।

যাযাবর ব্যাকপ্যাকার এর ছবি

যাযাবর ব্যাকপ্যাকার
ইয়ে, আমি তো আসলে গল্প-টল্প লিখতে পারি না, 'গল্প' লেখার বদলে 'গল্প করছি' এরকম ভাব আরকি...!

ভালো লেগেছে জেনেই আনন্দ! হাসি

___________________
ঘুমের মাঝে স্বপ্ন দেখি না,
স্বপ্নরাই সব জাগিয়ে রাখে।

পান্থ রহমান রেজা এর ছবি

শুভ জন্মদিন দুই অগ্রজ ব্লগার!
অট- বিডিয়ারের গল্পভাগ্য দেখছি ইর্ষনীয়। প্রতি জন্মদিনে দেখছি একটা করে গল্প উপহার পায়।

যাযাবর ব্যাকপ্যাকার এর ছবি

কী কাণ্ড! এইটা পড়া হয়েছিল না! হো হো হো
তবে অপ্রের বালিকাভাগ্য ঈর্ষনীয় হয়ে উঠেছে মনে হয় আসলে তার এসএমএস প্রীতির জন্যে, বলা হয় না, কমিউনিকেশনই আসল! সব সময়ে দেখবেন মোবাইলে কুটকুট করে কাওকে না কাওকে ক্ষুদেবার্তা পাঠাচ্ছে, আল্লাহ জানে কয়জন বালিকার নম্বর আছে ওর ফোনবুকে! চোখ টিপি

___________________
ঘুমের মাঝে স্বপ্ন দেখি না,
স্বপ্নরাই সব জাগিয়ে রাখে।

সুপ্রিয় দেব শান্ত (অতিথি) এর ছবি

মুর্শেদ ভাই ও প্রহরী ভাইকে জন্মদিনের শুভেচ্ছা।

লেখাটা খুউউউউউউউউউউউউউউউউউব ভালো লেগেছে।

সুপ্রিয় দেব শান্ত

যাযাবর ব্যাকপ্যাকার এর ছবি

আপনারে অসংখ্য -ধইন্যাপাতা- শান্তদা! হাসি

___________________
ঘুমের মাঝে স্বপ্ন দেখি না,
স্বপ্নরাই সব জাগিয়ে রাখে।

জি.এম.তানিম এর ছবি

গল্প সুন্দর হয়েছে...

জন্মদিনের শুভেচ্ছা!

-----------------------------------------------------------------
কাচের জগে, বালতি-মগে, চায়ের কাপে ছাই,
অন্ধকারে ভূতের কোরাস, “মুন্ডু কেটে খাই” ।

দময়ন্তী এর ছবি

মাহবুব মুর্শেদ ও অতন্দ্র প্রহরীকে জন্মদিনের বিলম্বিত শুভেচ্ছা৷

গন্পটা ভারী মিত্তি৷ হাসি

-----------------------------------------------------
"চিলেকোঠার দরজা ভাঙা, পাল্লা উধাও
রোদ ঢুকেছে চোরের মত, গঞ্জনা দাও'

যাযাবর ব্যাকপ্যাকার এর ছবি

দেঁতো হাসি

___________________
ঘুমের মাঝে স্বপ্ন দেখি না,
স্বপ্নরাই সব জাগিয়ে রাখে।

যাযাবর ব্যাকপ্যাকার এর ছবি

থেঙ্কু! হাসি

___________________
ঘুমের মাঝে স্বপ্ন দেখি না,
স্বপ্নরাই সব জাগিয়ে রাখে।

কনফুসিয়াস এর ছবি

ব্লগের পাতায় বহুদিন পরে এরকম ওয়েল-রিটেন একটা গল্প পড়লাম, একসময় অমিত আহমেদের গল্পগুলো পড়ে এরকম শান্তি পেতাম।
খুব ভাল হয়েছে। চলুক

-----------------------------------
বই,আর্ট, নানা কিছু এবং বইদ্বীপ

যাযাবর ব্যাকপ্যাকার এর ছবি

লইজ্জা লাগে

দেঁতো হাসি

চাল্লু

Smiley

আপনারে অসংখ্য -ধইন্যাপাতা- আপনারে অসংখ্য -ধইন্যাপাতা- আপনারে অসংখ্য -ধইন্যাপাতা-

___________________
ঘুমের মাঝে স্বপ্ন দেখি না,
স্বপ্নরাই সব জাগিয়ে রাখে।

অমিত আহমেদ এর ছবি

লেখাটি দারুণ হয়েছে! সাবলিল বর্ণনা। এবং বাস্তব। অনেক শিশুতোষ গল্পে যে জোর করে "গল্পটি বাচ্চাদের নিয়ে/জন্য" জানান দেয়ার চেষ্টা দেখতে পাই - সেটি একেবারেই অনুপস্থিত। চলুক
যাযাবর ব্যাকপ্যাকার এমন আরো শিশুতোষ গল্প লিখবে বলে আশা করি।

প্রহরী ও এসএম৩ ভাইকে জন্মদিনের শুভেচ্ছা।

যাযাবর ব্যাকপ্যাকার এর ছবি

আপনারে অসংখ্য -ধইন্যাপাতা- হাসি

খ্রাও, আরো লিখতেছি! (কম্পুতে শান দেয়ার ইমো)

___________________
ঘুমের মাঝে স্বপ্ন দেখি না,
স্বপ্নরাই সব জাগিয়ে রাখে।

টিউলিপ এর ছবি

গল্প চমৎকার।

জন্মদিনের শুভেচ্ছা!

___________________

রাতের বাসা হয় নি বাঁধা দিনের কাজে ত্রুটি
বিনা কাজের সেবার মাঝে পাই নে আমি ছুটি

যাযাবর ব্যাকপ্যাকার এর ছবি

হাসি

___________________
ঘুমের মাঝে স্বপ্ন দেখি না,
স্বপ্নরাই সব জাগিয়ে রাখে।

আয়নামতি1 এর ছবি

ভাইয়াদেরকে জন্মদিনের শুভেচ্ছা। গল্পটা খুউব ভালো লেগেছে দেঁতো হাসি

যাযাবর ব্যাকপ্যাকার এর ছবি

আপনারে অসংখ্য -ধইন্যাপাতা-

___________________
ঘুমের মাঝে স্বপ্ন দেখি না,
স্বপ্নরাই সব জাগিয়ে রাখে।

ধৈবত(অতিথি) এর ছবি

দুইজনের আবার একই জন্মদিন হয় নাকি? চিন্তিত

রাতঃস্মরণীয় এর ছবি

যাযাপুর লেখা নিয়ে নতুন করে আর কি বলবো, বরাবরের মতোই ইয়ে! হাসি হঠাৎ করেই অনেকদিন পর ছোটবেলার অনেক কথা মনে পড়ে গেলো। ১৯৭৭ সালে আমাদের সবথেকে ছোট্ট ভাইটা হওয়ার পর আমি আর মেঝো ভাই ওটাকে খুবই আদর করতাম। কিন্তু যেইনা আম্মা ওকে নিয়ে খাওয়াতো, ঘুম পাড়াতো, আমাদের খুব হিংসে হতো। এবছর আমাদের মেঝো ভাইএর বউএর বাচ্চা হবে। দেখা যাক রাফিন তখন কি করে!

বাড্ডে বয়েজ মাহবুব এণ্ড প্রহরীকে অনেক শুভকামনা।

------------------------------------------------
প্রেমিক তুমি হবা?
(আগে) চিনতে শেখো কোনটা গাঁদা, কোনটা রক্তজবা।
(আর) ঠিক করে নাও চুম্বন না দ্রোহের কথা কবা।
তুমি প্রেমিক তবেই হবা।

যাযাবর ব্যাকপ্যাকার এর ছবি

সিবলিং রাইভালরি কাঁচা-মিঠা জিনিস... আমি দেখেছি ছোট বাচ্চারা অনেকেই দুষ্টুমি কমিয়ে দিয়ে অনেক রেসপনসিবল হতে শেখে ছোট ভাইবোন এলে, তাদের অনেক টেক কেয়ার করে, বাবা-মাকেও সাহায্য করতে শেখে। রাহিনের নতুন ভাইবোনের জন্যে শুভ কামান। হাসি

___________________
ঘুমের মাঝে স্বপ্ন দেখি না,
স্বপ্নরাই সব জাগিয়ে রাখে।

রাতঃস্মরণীয় এর ছবি

শুভ কামান।

অ্যাঁ

------------------------------------------------
প্রেমিক তুমি হবা?
(আগে) চিনতে শেখো কোনটা গাঁদা, কোনটা রক্তজবা।
(আর) ঠিক করে নাও চুম্বন না দ্রোহের কথা কবা।
তুমি প্রেমিক তবেই হবা।

যাযাবর ব্যাকপ্যাকার এর ছবি

মন্তব্য লাফাং-এর খ্যাতা পুড়ি রেগে টং

___________________
ঘুমের মাঝে স্বপ্ন দেখি না,
স্বপ্নরাই সব জাগিয়ে রাখে।

সুরঞ্জনা এর ছবি

আরে বাহ! সুন্দর গল্প!
শুভ জন্মদিন অপ্র, শুভ জন্মদিন মুর্শেদ ভাই হাসি

............................................................................................
এক পথে যারা চলিবে তাহারা
সকলেরে নিক্‌ চিনে।

যাযাবর ব্যাকপ্যাকার এর ছবি

আপনারে অসংখ্য -ধইন্যাপাতা- সাথে একটা ম্যাঁও ফিরি! দেঁতো হাসি

___________________
ঘুমের মাঝে স্বপ্ন দেখি না,
স্বপ্নরাই সব জাগিয়ে রাখে।

ধুসর গোধূলি এর ছবি

আহা! কতোদিন হাতের তালুতে করে চুরি করে মালটোভা খাই না! মন খারাপ

যাযাবর ব্যাকপ্যাকার এর ছবি

হুম... একটা কাজ করতারেন, একটা মালটোভার বয়াম কিনেন, তারপর নিজেরটা নিজেই চুরি করে খেয়ে ফেলেন! দেঁতো হাসি

___________________
ঘুমের মাঝে স্বপ্ন দেখি না,
স্বপ্নরাই সব জাগিয়ে রাখে।

সজল এর ছবি

পিচ্চিতোষ গল্প হিসেবে চমৎকার হয়েছে।

---
মানুষ তার স্বপ্নের সমান বড়

যাযাবর ব্যাকপ্যাকার এর ছবি

আপনারে অসংখ্য -ধইন্যাপাতা-

___________________
ঘুমের মাঝে স্বপ্ন দেখি না,
স্বপ্নরাই সব জাগিয়ে রাখে।

নতুন মন্তব্য করুন

এই ঘরটির বিষয়বস্তু গোপন রাখা হবে এবং জনসমক্ষে প্রকাশ করা হবে না।