Warning: Creating default object from empty value in i18ntaxonomy_term_page() (line 34 of /var/www/sachalayatan/s6/sites/all/modules/i18n/i18ntaxonomy/i18ntaxonomy.pages.inc).

আদিবাসী

মরার বাড়ি - মৃত্যু নিয়ে কিছু আদিম বিশ্বাস : শেষ পর্ব

সোহেল ইমাম এর ছবি
লিখেছেন সোহেল ইমাম [অতিথি] (তারিখ: বুধ, ১২/০৭/২০১৭ - ৪:৩৯অপরাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

হত্যার প্রতিশোধের মতই মৃতের জন্য শোক প্রকাশ করাটাও আদিবাসীরা খুব জরুরি বলে মনে করে। অসুস্থ হবার সময় থেকে শুরু করে মৃত্যুর পর তার জন্য যথেষ্ট শোক প্রকাশ করা না হলে মৃতের আত্মা ভাবে তার আত্মীয় স্বজন তাকে যথেষ্ট ভালোবাসতোনা সুতরাং ক্ষুব্ধ আত্মা তখন তার জীবিত আত্মীয়-স্বজনদের জীবনে নানান ধরণের দুর্বিপাকের সৃষ্টি করে। অসুখ বিসুখে শিশুরা মারা যায়, পর্যাপ্ত শিকার মেলেনা, মাছধরায় ভাগ্য মন্দ যায়। সুতরাং কার


মরার বাড়ি - মৃত্যু নিয়ে কিছু আদিম বিশ্বাস : দ্বিতীয় পর্ব

সোহেল ইমাম এর ছবি
লিখেছেন সোহেল ইমাম [অতিথি] (তারিখ: রবি, ০২/০৭/২০১৭ - ৭:০২অপরাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

শুধু স্বপ্নই নয় আদিবাসীরা বিশ্বাস করে মানুষের দেহের অতিরিক্ত আত্মা বলে যে আরেকটা পদার্থ আছে তার প্রমাণ মাটিতে পড়া মানুষের ছায়া আর জলে প্রতিবিম্বিত হওয়া তার প্রতিফলন। এখন এই ছায়াশরীর হলেও আদিবাসীদের বিশ্বাস মৃতের আত্মাও ক্ষুধা-তৃষ্ণা থেকে একেবারে মুক্ত নয়। অস্ট্রেলিয়ার দিয়েরি ট্রাইবের মানুষেরা মৃতের কবরের ওপরে খাবার রেখে আসে। মৃতব্যক্তি ক্ষুধার্ত হলে যেন খাবারটা কাছেই পায় সে কারণেই এই ব্যবস্থা। শুধ


মরার বাড়ি - মৃত্যু নিয়ে কিছু আদিম বিশ্বাস : প্রথম পর্ব

সোহেল ইমাম এর ছবি
লিখেছেন সোহেল ইমাম [অতিথি] (তারিখ: শনি, ১০/০৬/২০১৭ - ১০:৪৯অপরাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

যে বাড়িতে মানুষ মারা যায় সে বাড়িকে সেই মৃত্যুরদিন বা ঠিক তার পরের দিন পর্যন্ত আমাদের এলাকায় মরার বাড়ি বলে । অন্য অঞ্চলেও সম্ভবত তাই বলে, অথবা অন্য কোন শব্দবন্ধে এই ভাবটাই হয়তো প্রকাশ করা হয়। বলার কথাটা হলো এই মরার বাড়ির অভিধাটা থাকা পর্যন্ত সে বাড়িতে রান্না নিষেধ। প্রথাটা এখনও অনেক জায়গাতেই পালিত হয়। আমার আত্মীয়স্বজনদের বাড়িতে এই প্রথাটা বরাবরই পালিত হতে দেখেছি। আমার বাবা মারা গেলে আমাদের বাড়িতে দ


পুয়েবলো নিবাসীদের হাটে

জীবনযুদ্ধ এর ছবি
লিখেছেন জীবনযুদ্ধ [অতিথি] (তারিখ: রবি, ২০/০৩/২০১৬ - ২:৫২অপরাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

[justify]


নিজ দেশে পরবাস

রেজওয়ান এর ছবি
লিখেছেন রেজওয়ান (তারিখ: শুক্র, ৩০/১০/২০১৫ - ৪:৩৪অপরাহ্ন)
ক্যাটেগরি:


আমন্ত্রণ পোস্ট- আদিবাসী দিবসে আলোকচিত্র প্রদর্শনী "বিশ্বভরা প্রাণ "

তারেক অণু এর ছবি
লিখেছেন তারেক অণু (তারিখ: বুধ, ০৬/০৮/২০১৪ - ১১:৩৫অপরাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

Brochure-c1

৯ আগস্ট আন্তর্জাতিক আদিবাসী দিবস। সেই উপলক্ষে ৮ আগস্ট, শুক্রবার, বিকেল সাড়ে চারটায় বাংলাদেশের আদিবাসীদের উপরে তোলা আলোকচিত্রের প্রদর্শনী উদ্বোধন করা হবে।


চলচ্চিত্রে অস্ট্রেলিয়ার চুরি যাওয়া প্রজন্ম

তারেক অণু এর ছবি
লিখেছেন তারেক অণু (তারিখ: শনি, ১২/০৫/২০১২ - ৩:২৯অপরাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

মর্ত্যের বুকে এক বিশাল স্বর্গ, হিংস্র কোন পশু সেখানে নেই, নেই প্রাকৃতিক তাণ্ডব, সময়ের সাথে বিশেষ কিছুই বদল হয় না এমন এক অদ্ভুত ভূখণ্ড। মানুষের দল ৪৫ থেকে ৫০ হাজার বছর আগে অগভীর আদি সমুদ্র পাড়ি দিয়ে পৌঁছেছিল এই বিশাল দ্বীপ মহাদেশে, আড়াই শতাধিক ভিন্ন ভাষা-ভাষী নৃগোষ্ঠীর উদ্ভব ঘটল এত হাজার বছরে অতঃপর তাহারা সুখে শান্তিতে বসবাস করিতে লাগিল। এমনটাই ছিল আবহমান কাল ধরে, হঠাৎ পরিবর্তন হয়ে গেল সবকিছ


ফটোব্লগ – বান্দরবান

মেহদী হাসান খান এর ছবি
লিখেছেন মেহদী হাসান খান (তারিখ: বিষ্যুদ, ২৪/০৯/২০০৯ - ৩:১০পূর্বাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

স্কুলে পড়ার সময়ে আমার প্রাণের বন্ধু ছিল অনিক চাকমা। প্রথম যেদিন ক্লাসে আসল ওকে আমরা ঠেলেঠুলে ডায়াসে উঠিয়ে দিয়েছিলাম, গণদাবী - চাকমা ভাষায় কথা বলতে হবে। ধবধবে ফর্সা ছেলেটা লজ্জায় টমেটোর মত লাল হয়ে একটা কথাই বলতে পেরেছিল, “মুই ভাত হাং” (আমি ভাত খাই)। আমার ধারণা পার্বত্য চট্টগ্রাম আর আদিবাসীদের সম্পর্কে আমার সব ভালবাসা, কৌতুহল ওর কাছ থেকে পাওয়া।

সেই ভালবাসাকে কাছ থেকে ছুঁতে পের...


আদিবাসী শিশু শিক্ষা প্রসঙ্গে

অতিথি লেখক এর ছবি
লিখেছেন অতিথি লেখক (তারিখ: শনি, ২৫/০৭/২০০৯ - ১১:৫৭অপরাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

-তন্দ্রা চাকমা-

বাংলাদেশে ৪৫টি আদিবাসীর বসবাস । তারমধ্যে ১১ টি ভাষাভাষী আদিবাসী গোষ্ঠী বসবাস করে পার্বত্য চট্টগ্রামের তিন পার্বত্য জেলায় । এই ১১ জাতি গোষ্ঠীর প্রত্যেকেরই আলাদা মাতৃভাষা আছে ।

কিন্তু সরকারী অবকাঠামোয় মাতৃভাষায় শিক্ষা লাভের সুযোগ এই আদিবাসী শিশুদের নেই । যারা সৌভাগ্যক্রমে স্কুলে ভর্তি হয় তাদের সরকারী কারিকুলাম এবং বাংলা মাধ্যমে পড়াশোনা করতে হয় । হঠাৎ করে ...