Warning: Creating default object from empty value in i18ntaxonomy_term_page() (line 34 of /var/www/sachalayatan/s6/sites/all/modules/i18n/i18ntaxonomy/i18ntaxonomy.pages.inc).

চলচ্চিত্র

মন্থন, ১৯৭৬

মনি শামিম এর ছবি
লিখেছেন মনি শামিম [অতিথি] (তারিখ: শুক্র, ২২/১১/২০১৩ - ৩:০৭অপরাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

Manthan


হিন্দি চলচ্চিত্রের আকাশে মান্না দে

মনি শামিম এর ছবি
লিখেছেন মনি শামিম [অতিথি] (তারিখ: বুধ, ৩০/১০/২০১৩ - ১:৫৩অপরাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

mannadey-lastalbum


এপার ওপার, সোহেল রানা, আজাদ রহমান এবং আমার ভালোবাসার মূল্য

লুৎফর রহমান রিটন এর ছবি
লিখেছেন লুৎফর রহমান রিটন (তারিখ: রবি, ২৭/১০/২০১৩ - ১১:১৪অপরাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

আমি তখন সিনেমার পোকা। সত্তরের দশক। গুলিস্তান বিল্ডিং-এর ছোট্ট মুভি থিয়েটার ‘নাজ’এ মুক্তি পেলো শাদাকালো সিনেমা ‘এপার ওপার’।
পত্রিকা মারফৎ আগেই জেনেছিলাম নতুন একজন নায়িকার আগমন ঘটতে যাচ্ছে এপার ওপারের মাধ্যমে। ছবির নায়ক নায়িকা নির্বাচনের ক্ষেত্রেও ছবির নামটি ছিলো যথার্থ। নায়ক সোহেল রানা ঢাকা অর্থাৎ এপারের আর নায়িকা সোমা মুখার্জি ওপারের, অর্থাৎ কলকাতার। ছবির পরিচালক মাসুদ পারভেজ আর সোহেল রানা যে একই ব্যক্তি সেটাও আমার জানাই ছিলো। সোহেল রানা থাকেন ঠাটারি বাজার লাগোয়া বিসিসি রোডে। আর আমি ওয়ারি হেয়ার স্ট্রিটে। হাঁটাপথের দূরত্ব। নিজের মহল্লার নায়ক বলে ছবিটার ব্যাপারে আলাদা একটা আকর্ষণও কাজ করছিলো আমার ভেতরে। কাজী আনোয়ার হোসেনের বিখ্যাত চরিত্র ‘মাসুদ রানা’র মাধ্যমে নায়ক সোহেল রানার অভিষেক ঘটলেও আমার মুগ্ধতা কেড়ে নেন তিনি এপার ওপারের মাধ্যমে।
নাজ ছিলো ঢাকার সবচে খুদে সিনেমা হল। সিট সংখ্যা বড়জোর শ খানেক। নবাবপুর স্কুলের ছাত্র ছিলাম বলে গুলিস্তান আর নাজের টিকিট সংগ্রহ করা আমার জন্যে সহজ ছিলো। অধিকাংশ টিকিট ব্ল্যাকার তখন আমার চেনাজানা, চেহারার সুবাদে। নিয়মিত দর্শক পরিচয়ের বাইরে নবাবপুর স্কুলের ছাত্র বলে ওরা আমাকে খানিকটা খাতিরও করতো। সুতরাং সিনেমা সুপারডুপার হিট হলেও সামান্য কিছু বাড়তি টাকা দিয়ে টিকিট জোগাড় করে ফেলতাম যে কোনো শো-এর।


পাগল মন !!

অতিথি লেখক এর ছবি
লিখেছেন অতিথি লেখক (তারিখ: মঙ্গল, ০৮/১০/২০১৩ - ১:১০পূর্বাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

‘প্রাণের ছবি, গানের ছবি
মন মাতানো প্রেমের ছবি
পাগল মন পাগল মন পাগল মন’

...হাঁ ভাই, আসিতেছে আসিতেছে, দর্শন সিনেমা হলের রুপালি পর্দায়, আগামি শুক্রবার থেকে, তোজাম্মেল হক বকুল পরিচালিত, পাগল মন, পাগল মন, পাগল মন...ও পাগল মন, মন রে, মন কেন এতো কথা বলে...ও পাগল মন, মন রে, মন কেন এতো কথা বলেএ এ এ এ এ এ...!!


আগোড়া (Agora)

অতিথি লেখক এর ছবি
লিখেছেন অতিথি লেখক (তারিখ: সোম, ১৬/০৯/২০১৩ - ৫:১৫অপরাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

আমি দর্শনে বিশ্বাস করি।’ – আগোরা

ব্যবহারিক দিক থেকে ধর্মগুলোতে মানবতার অবস্থান নিয়ে অনেক আলোচনা-সমালোচনা হয়েছে, হয়তো আরো হবে। কিন্তু একটা বিষয়ে সম্ভবত অনেকেই একমত হবেন যে-প্রায় সব যুগের ধার্মিকদের কোন না কোন উপদলের মধ্যেই এমন কিছু লোক ছিল যারা মানবতা বিষয়টা সম্পর্কে তেমন কিছুই জানতেন না।


মুভি অফ দা উইক: এল বানিয়ো দেল পাপা (The Pope’s Toilet)

অতিথি লেখক এর ছবি
লিখেছেন অতিথি লেখক (তারিখ: রবি, ১৫/০৯/২০১৩ - ১০:৫৪অপরাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

সত্য ঘটনার ছায়া অবলম্বনে নির্মিত এই সিনেমার গল্পের প্রধান উপাদান দরিদ্র মানুষের বিশ্বাস, বন্ধুত্ব, আশা আর স্বপ্নভঙ্গের বাস্তবতা। দেশ-কাল-পাত্রভেদে চরিত্রের নাম হয়ত বদলে যায় কিন্তু সমাজের দারিদ্রসীমায় প্রতিনিয়ত জীবনযুদ্ধে লড়তে থাকা মানুষগুলির বেঁচে থাকার গল্পে খুব বেশি পার্থক্য থাকে কি? সুদূর উরুগুয়ের মেলো শহরের বেতো নামের এক পুরুষের জীবন সংগ্রামের কাহিনীতে সুস্পষ্ট দেখতে পাই বাংলাদেশের খেটে খাওয়া হতদরিদ্র কোনও আদম সন্তানের মুখচ্ছবি।


নিঃস্বার্থ ভালোবাসা-What is joke

অতিথি লেখক এর ছবি
লিখেছেন অতিথি লেখক (তারিখ: শনি, ১৪/০৯/২০১৩ - ৫:০৬অপরাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

জাতীয় সঙ্গীত শুরু হলো, দাঁড়িয়ে এক হাত বুকে দিয়ে সম্মান প্রদর্শন করছি, আচমকা নারী কন্ঠের আর্তনাদ,
‘হেল্প...হেল্প...হেল্প...প্লিজ হেল্প...’
তব্দা খেয়ে গেলাম হঠাত। চারপাশে উকি দিলাম একবার।শিট, কোন ছেলে নিজের বুকে হাত রাখতে গিয়ে আবার কোন মেয়ের...?আসতাগফিরুল্লাহ।


দ্য ক্রুডস

রকিবুল ইসলাম কমল এর ছবি
লিখেছেন রকিবুল ইসলাম কমল [অতিথি] (তারিখ: বিষ্যুদ, ২৯/০৮/২০১৩ - ১২:০০পূর্বাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

the-croods-movie-wide


যে ছবি দেখলামঃ বারান

অতিথি লেখক এর ছবি
লিখেছেন অতিথি লেখক (তারিখ: সোম, ২৯/০৭/২০১৩ - ২:৪৪পূর্বাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

220px-Baran_FilmPoster


মুভি অফ দা উইকঃ দিয়াস দে পেসকা এন পাতাগোনিয়া

অতিথি লেখক এর ছবি
লিখেছেন অতিথি লেখক (তারিখ: রবি, ২৮/০৭/২০১৩ - ৬:৩০অপরাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

স্প্যানিশ টাইটেলের বাংলা মানেটা হৃদয়গ্রাহী, পাতাগোনিয়াতে মৎস্য শিকারের দিনগুলি। আর্জেন্টিনার [url=http://bn.wikipedia.org/wiki/পাতাগোনিয়া]পাতাগোনিয়া[/url] যাবার ইচ্ছে বহুদিনের আর শৈশবে নানাবাড়িতে মাছ শিকারও করেছি বেশ। আমার পছন্দের সাথে একদম মিলে যায় এই মুভির টাইটেল। স্প্যানিশ ভাষা অল্পবিস্তর বুঝি, উপরন্তু সাথে ইংরেজি সাবটাইটেল আছে। বাতি নিভিয়ে আর হেডফোন লাগিয়ে চালিয়ে দিলাম মুভি। কিন্তু বিধিবাম...... ঝামেলা বেঁধে যায় ফিল্মের শুরুতেই ...... আর্জেন্টিনার রাজধানী বুয়েনেস আইরেস নিবাসী বায়ান্ন বছর বয়সী নিপাট ভদ্রলোক মার্কো একাই ২০৯৯ কিলোমিটার ড্রাইভ করে গিয়েছে মাছ ধরতে পাতাগোনিয়াতে(খুব ভালো কথা, শখের জন্য মানুষ কত কিছুই না করে!) যে জেলের সাথে মাছ ধরতে যাবে সে মার্কোর বড়শি দেখে ভিমড়ি খেয়ে যায়, পুঁটি মাছের বড়শি নিয়ে মার্কো এসেছে পাতাগোনিয়াতে মৎস্য শিকারে!!! আরে বাবা পুয়ের্তো দেসেয়াদোতে পুঁটি মাছ পাবে কোথায়? এখানে সারা দুনিয়া থেকে টুরিস্ট আসে আটলান্টিক মহাসাগরে হাঙ্গর আর তিমি শিকারে।