আল মাহমুদকে কি মুক্তিযোদ্ধা কবি বলা যায় ?

আরিফ জেবতিক এর ছবি
লিখেছেন আরিফ জেবতিক (তারিখ: শনি, ২৩/০৮/২০০৮ - ১:৫৫পূর্বাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

প্রসঙ্গ উঠেছিল হাসান মোরশেদের একটি পোস্টে শামসুর রহমান গুরুত্বপূর্ণ কেন ?এই প্রশ্নটির উত্তর দিতে গিয়ে হাসান মোরশেদ এক জায়গায় লিখেছিলেন -রাহমানের সমালোচনা করে কেউ কেউ মনে করিয়ে দিতে ভুলেননা আল মাহমুদ কিন্তু অস্ত্রহাতে মুক্তিযোদ্ধা ।
তিনি আমার কথার প্রসঙ্গে আরো মন্তব্য করেন -এমন ও প্রচার করা হয়, এই হুজুরই নাকি 'একমাত্র' কবি যিনি অস্ত্রহাতে যুদ্ধ করেছেন, বাকী বদমাশগুলো কলকাতায় বসে মদ আর মাগীবাজী করেছে ।

আমি তখন বলি -এই বিষয়টি নিয়ে আমার কৌতুহল আছে ।আজ পর্যন্ত কোথাও পেলাম না যে উনি অস্ত্রহাতে যুদ্ধ করেছেন ।‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌যাই হোক , একটু সময় পেলে বিষয়টি ঘেটে দেখব ।
হাসান মোরশেদ খুঁচিয়ে দেন -ঘাঁটানো দরকার ।

কারো চরিত্র চিত্রন আমার উদ্দেশ্য নয় । আল মাহমুদকে আমি খুবই শক্তিমান কবি হিসেবে মানি , তার রাজনৈতিক দূ:খজনক বিবর্তন সত্ত্বেও যে কয়জন কবি আমাদের সময়কে প্রতিনিধিত্ব করবেন , তাদের মাঝে আল মাহমুদের নাম প্রথম সারিতেই রাখতে হবে । যদিও তার ইদানিংকার মোনাজাত জাতীয় কবিতা পাঠক হিসেবে আমার পছন্দের তালিকায় নেই , তারা সাম্প্রতিক কবিতার বইটি আমি ফেলে দিয়েছি , তবু তার আগের লেখাগুলোর কারনেই তার অবস্থান আমার মনে অনেক উচ্চ আসনে রয়েছে ।

আল মাহমুদের কাব্য বিচারের সাধ বা সাধ্য কোনটাই আমার নেই । আমি শুধু তার মুগ্ধ পাঠক ।

কিন্তু জটিলতা সৃষ্ঠি হয় যখন তার রাজনৈতিক অবস্থানটি আলাদা ভাবে আমাদের বিচার্য হয়ে ওঠে । সেই জায়গায় আল মাহমুদ আমার প্রতিপক্ষ দলে অবস্থান করেন ।
তাই যখন আমার প্রতিপক্ষ দল গর্বের সাথে বলে - দেশের একমাত্র মুক্তিযোদ্ধা কবি তাদের শিবিরে অবস্থান করেন , তখন আমি হতাশ হয়ে পড়ি । শামসুর রাহমান কেন নিজের গ্রামে বসে ''স্বাধীনতা তুমি '' কবিতাটি ছদ্মনামে লিখে সেটা স্বাধীন বাংলা বেতারে পাঠিয়ে দায় সারলেন , তিনি কেন আল মাহমুদের মতো সশস্ত্র হয়ে মুক্তিযুদ্ধে অংশ নিলেন না , সেটা নিয়ে আফসোস করতে থাকি ।
কিন্তু বহুদিন ধরেই আমি কোথাও খুঁজে পাচ্ছিলাম না আল মাহমুদ কোন সেক্টরে মুক্তিযুদ্ধ করেছেন । হাসান মোরশেদের '' ঘাটানো দরকার'' মন্তব্যটি আবার আমাকে খুঁচিয়ে তুলে ।
গত কয়দিন ধরে কিছু বই ঘাটাঘাটি করছিলাম ।কিন্তু কোথাও এই বিষয়ে কিছু পেলাম না ।

আজ এক কাজিনের বই আলমারিতে অন্য একটি বই খুঁজতে গিয়ে পেয়ে গেলাম স্বয়ং আলমাহমুদের আত্মজীবনী । বইটির নাম ''বিচূর্ণ আয়নায় কবির মুখ ।" প্রকাশক : একুশে বাংলা ।

আসুন , সেখান থেকে কিছু অংশ পড়া যাক :

৭১ সালে ভারত পাড়ি দেয়ার প্রেক্ষাপট বর্ণনা করে কবি জানাচ্ছেন :

'' আমার ভগ্নিপতি পার্বত্য চট্টগ্রামের ডিসি হোসেন তৌফিক ইমাম সেখান থেকে সপরিবারে আরগতালায় পৌছেছেন । ....জেনে আমি স্বস্তি পেয়েছিলাম । এ পরিস্থিতিতে নারায়ণপুরে আমি নিরাপদ ছিলাম না । মনে মনে দেশত্যাগ করে চলে যাওয়ার একটা আকাঙ্খাও জেগে উঠেছিল ।''

যাক , না না বিপর্যয় পেরিয়ে আল মাহমুদ অবশেষে কলকাতা পৌছান ।

তিনি সেখানে তৌফিক ইমামের বাসাতেই আশ্রয় নেন ।
তবে মুক্ত পরিবেশেও কবিকে বেশি সাহসী বলে মনে হচ্ছে না , কারন তিনি বলছেন :

"এখানে এসে উডস্ট্রিট থেকে আমি একদম বেরুতাম না । কারন অতি কৈশোরে আমার খানিকটা জানা থাকলেও ওই সময়ে তা আগের মতো থাকার কথা নয় । আমি ভয় পেতাম ঠিকমতো বাসায় এসে পৌছতে পারব না । "

অর্থাৎ কবি আসলে নিজের বাসায় ফেরার ব্যাপারেই বেশি কাতর ছিলেন দেখা যাচ্ছে ।

যদিও পরের প্যারায় উনি জানাচ্ছেন :
"আমি নয়মাস কলকাতায় অবস্থানকালে আমার প্রধান নেশাই ছিল কলকাতাকে জানা । এ ব্যাপারে যারা আমাকে সাহায করেছিলেন কলকাতার ওপর বই লিখেছেন সেই পুর্ণেন্দু পত্রী এবং কবিতা সিংঞের মেয়ে রাজেশ্বরী রায় চৌধুরী ।"

অর্থাৎ , কবি নয়মাস কলকাতাতেই ছিলেন এবং পূর্ণেন্দু পত্রী আর রাজেশ্বরী রায়ের সাথে কলকাতাকে জানতেই তার সময়টি ব্যয় হয়েছে । দেশের স্বাধীনতা যুদ্ধের সময় কলকাতাকে জানাটা যদি কবির কাছে গুরুত্বপূর্ণ মনে হয় , তাহলে তাকে আর যাই হোক মুক্তিযোদ্ধাদের সাথে মিলিয়ে ফেলাটা মুক্তিযোদ্ধাদের অবমাননা ছাড়া আর কিছুই নয় ।

তারপর কবি বিভিন্ন বর্ণনায় জানাচ্ছেন , তাকে পেয়ে কলকাতার কবিকূল কেমন খুশী হয়েছিলেন । এই পর্যায়ে আমাদের গৌরবান্বিত হওয়ার অনেক তথ্যই আছে ।

কিন্তু যে মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে এতো কথা ,সেখানে কবির ভুমিকা কী ?

"ততদিনে আমার ভগ্নীপতি প্রবাসে বাংলাদেশ সরকারের সচিব হিসেবে গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব গ্রহন করেছেন । আমি তখনো তার সঙ্গেই আছি । এর মধ্যে আমার দায়িত্ব বেড়ে গেল । "

কী সেই দায়িত্ব , সেটা জানতে হলে পড়তে হবে পরের লাইনটি ।

" বিভিন্ন পত্রিকায় আমার সমর্থন একটু -আধটু সমর্থনসূচক প্রতিবেদন ছাপা হতে শুরু হয়েছে ।"

অর্থাৎ , কবি তখন আত্মপ্রেমে মগ্ন হয়ে সেই পত্রিকার কাটিং জোগাড় করে চলছেন ।
তাহলে মুক্তিযুদ্ধের সাথে তার সংযুক্তি কোথায় ?

আছে এর পরের লাইনে ।
উনি জানাচ্ছেন ,
" তা ছাড়া আট নম্বর থিয়েটার রোডে মুক্তিযুদ্ধের মূল অফিসের স্টাফ হিসেবে আমার নাম থাকায় আমি একটি পরিচয়পত্র পেয়ে গেলাম । এটা ছিল আমার জন্য একান্ত জরুরী । কারন তখন কলকাতায় চলাফেরা করার জন্য এই পরিচয়পত্রটি থাকা দরকার ছিল । "

এই পরিচয়পত্রটি নিয়ে উনি কী করেছেন ?
" আমাকে কেউ কোন নির্দিষ্ট দায়িত্ব না দিলেও আমি কলকাতার লেখক , শিল্পী , ও সাহিত্যিকদের মধ্য আমাদের মুক্তিযুদ্ধের প্রতি সমর্থন যোগানোর কাজ করে চলছিলাম ।"

কলকাতার লেখক , শিল্পী , ও সাহিত্যিকগন মুক্তিযুদ্ধের বিপক্ষে কেউ ছিলেন বলে জানা যায় নি কোনদিনই , তখনকার সময় বিবেচনা করলে ভারতবাসী কারো পক্ষেই এই বিরোধিতা করার কোন কারনই নেই । তাছাড়া কোথাও সেই ধরনের মটিভেশনে আল মাহমুদ কিছু করেছেন বলে নিজেও দাবী করেন নি , বরং বিভিন্ন জায়গায় কবি সাহিত্যিকদের সাথে ঘুরে বেড়ানোর অনেক বর্ণনা আছে । বলা বাহুল্য সেগুলো নিছকই কবি সাহিত্যিকদের চিরন্তন আড্ডাবাজী , সেখানে মুক্তিযুদ্ধের কোন বিষয়ই নেই ।

শামসুর রাহমান যখন অবরুদ্ধ দেশে থেকেও ছদ্মনামে স্বাধীনতার কবিতা লিখে স্বাধীন বাংলা বেতারে পাঠাচ্ছেন , অসংখ্য সাহিত্য সাংস্কৃতিক কর্মী যখন স্বাধীন বাংলা বেতারকে মুখর করে রেখেছেন , কবি আলমাহমুদ তখন স্বাধীন বাংলা বেতারে কী করছেন , দেখা যাক :

"এ সময় আমি মাঝে মধ্যে বালুহাককাক লেনের স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রের অফিসে হাজিরা দিতে যেতাম । কিন্তু রেডিওতে অংশগহন করিনি । কারন আমার পরিবার-পরিজন তখনো বাংলাদেশে অনিশ্চিত অবস্থঅয় কাল কাটাচ্ছিল এবং পরিবার পরিজনের কোন খবরই আমার জানা ছিল না । "

কবি আল মাহমুদের সাহস বোঝা যায় এখানে ।

কবি কি তখন কিছু লিখছেন না ? লিখছেন ।
তিনি জানাচ্ছেন , আনন্দবাজার রবিবাসরীয় বিভাগে তখন তিনি ''প্রকৃতি '' কবিতাটি লিখেছেন । প্রকৃতি কবিতাটি আমার পঠিত বলে স্মরণ আসছে না , তাই মন্তব্য করছি না , তবে কবিতার নাম দেখে সেটিকে যুদ্ধের সাথে সংশ্রব আছে , এমন কোন কবিতা বলে মনে হচ্ছে না ।

এসময় কবি কলকাতা থেকে তার কাব্যগ্রন্থ বের করার চেষ্টা করেন এবং সফল হোন । সেটি '' আল মাহমুদের কবিতা '' শিরোনামে অরুণা প্রকাশনী থেকে প্রকাশিত হয় । সেখানে যুদ্ধের কোন কবিতা ছিল বলে কবি দাবী করেন নি ।

বরং তিনি এক বস্তিবাসী যুবতীর ঘরে নিরীহ রাত যাপন করেছেন বলেও স্বীকারোক্তি দিয়েছেন , তাছাড়া পূর্বে উল্লেখিত রাজেশ্বরী রায় চৌধুরীর সাথে তার ঘনিষ্ট ঘুরাফেরা কানাঘুষার জন্ম দেয় বলেও ইঙিত পাই আমরা ।

কবি তখন নিজেকে নিয়েই মগন ছিলেন ।

"এ সময় আমার মানসিকতায় একটু শৈথিল্য দেখা দিয়েছিল ,কেমন যেন গা ছাড়া ভাব । আমি মনে প্রানে আল্লাহর কাছে যৌন সংযম প্রার্থনা করতাম ।"

কারন , কবির সনেটন নিয়ে একটি মিনিবুক প্রকাশিত হয়েছিল , সোনালি কাবিনের সেই কবিতাগুলো কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের অনেক ছাত্রী তাদের ব্লাউজের ভেতর রাখত বলে কবি খুবই আনন্দিত হয়েছিলেন ।

কবির এই ঘুরাফেরা যে অনেকেরই পছন্দ হয় নি , সেটা বুঝা যায় যখন কবি আরো জানান :

" এর মধ্য একদিন হঠাৎ একটি পত্রিকায় আমার বিরুদ্ধে একটি প্রবন্ধ ছাপা হলো । তারা লিখেছেন , আমি নাকি ভিআইপিদের মতো পোশাক পরে কফি হাউসে ঘুরে বেড়াই ।"

কবি অবশ্য এগুলোকে নকশালপন্থী লেখকদের ষড়যন্ত্র বলে দাবী করেছেন তার বইয়ে ।

শেষ কথা :

কবির আত্মজীবনী পড়ার পরে আর অন্যান্য বইয়ের রেফারেন্স টানার দরকার মনে করছি না ।
৭১ সালে কবি কী করেছেন , কী করেন নি , সেটা উনার ব্যক্তিগত ব্যাপার ।

কিন্তু সার্বিক বিচার করে মনে হচ্ছে কবি আল মাহমুদ আসলে প্রভাবশালী ভগ্নীপতির ছত্রছায়ায় কলকাতার জীবনে খুবই আরামে ছিলেন । ভগ্নিপতি তাকে একটি আইডি কার্ড ধরিয়ে দিয়েছিলেন , মুক্তিযুদ্ধের সাথে এটাই কবির প্রত্যক্ষ যোগাযোগের বড় পরিচয় ।
দেখা যাচ্ছে , আত্মীয় স্বজন মামা চাচার জোরের বিষয়টা বাংলাদেশ সরকার গঠিত হওয়ার সাথে একই সময়েই জন্ম নিয়েছিল ।

কবি আল মাহমুদকে যদি মুক্তিযোদ্ধা কবি বলা হয় , তাহলে জামাতিদের " মুক্তিযোদ্ধা পরিষদ"কেও মুক্তিযোদ্ধাদের সংগঠন হিসেবে মেনে নিতে হবে , এটাই আমার মনে হচ্ছে ।


মন্তব্য

মাসুদা ভাট্টি এর ছবি

আরিফ
আজই বিষয়টি নিয়ে লন্ডনে কবিতা উৎসবে আমন্ত্রিত কবি বেলাল চৌধুরী এবং রফিক আজাদের সঙ্গে কথা হচ্ছিলো, রফিক আজাদ চুপচাপ হাসলেন, আর বেলাল চৌধুরী, স্পষ্ট এবং অতি স্পষ্ট করেই বললেন, আল-মাহমুদ মুক্তিযুদ্ধের গোটা সময়টা কাটিয়েছেন কোলকাতার এগলি-ওগলিতে 'বাবুয়ানি' করে, কোলকাতা শহরে কোনও পরিব্রাজকও হয়তো ওভাবে শহর পরিভ্রমণ করেন না, যা কিনা উনি করেছেন, দেশ ও জাতির ওই ভয়ঙ্কর দুঃসময়ে।
এখানে অবশ্য কবি আল-মাহমুদকে সৎই বলতে হবে কেননা তিনি আত্মজীবনীতে কোথাও বলেননি যে, তিনি সশস্ত্র মুক্তিযোদ্ধা। জামায়াতের মুক্তিযোদ্ধা সাজার এবং মুক্তিযুদ্ধকে দখল করার কৌশল হিসেবে কবিকেও যেমন ওরা ক্রয় করেছে তেমনই তার হাতে অস্ত্র দিয়ে সশস্ত্র মুক্তিযোদ্ধা সাজানোর কৃতিত্বও তাদেরই।

আসুন না আপনাদের মধ্যে থেকে কেউ একজন গিয়ে কবিকেই একদিন সরাসরি এই প্রশ্ন জিজ্ঞেস করুন, দেখুন না উনি কি সত্যি কথা বলেন না, তাকে সাজঘরে যা সাজানো হয়েছে সেই ভূমিকার কথাই বলেন?

ধন্যবাদ লেখাটির জন্য।

আরিফ জেবতিক এর ছবি

কবির সততা নি:সন্দেহে প্রশংসা যোগ্য । তবে একটা কথা আছে । এখানে ইচ্ছে করলেই বোধহয় অস্ত্র হাতে যুদ্ধ করেছি বলারও কোন উপায় নেই ,বিশেষ করে ৯ মাস কলকাতায় থাকা অবস্থায় । সেই সময়ের অনেকেই এখনও
জীবিত ।

কিন্তু মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে তাকে চিহ্নিত করা হয় বিভিন্ন স্থানে , তার প্রতিবাদেও উনি কিছু বলেছেন বলে নজরে পড়েনি কখনো ।

পুরো বইটি পড়েছি একটু আগে । বলতে হবে তার আত্মজীবনী আমাকে হতাশ করেছে ।
যতোই শোভন বাংলায় লিখেন না কেন , তার মাঝে একধরনের হিংসুটে ঈর্ষাকাতরতা পাওয়া যায় পুরো বই জুড়ে ।

একটা বয়েসের পরে বোধহয় সবারই লেখালেখি বাদ দেয়া ভাল , এই উপলব্ধিটা আজই প্রথম হলো আমার ।

তিনি ভালো থাকুন , এই প্রার্থনা করি ।

-----------------------------
কালের ইতিহাসের পাতা
সবাইকে কি দেন বিধাতা?
আমি লিখি সত্য যা তা,
রাজার ভয়ে গীত ভনি না।

রণদীপম বসু এর ছবি

হা হা হা ! ঠিক জায়গাটাতেই নক করলেন আপনি।

কিন্তু মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে তাকে চিহ্নিত করা হয় বিভিন্ন স্থানে , তার প্রতিবাদেও উনি কিছু বলেছেন বলে নজরে পড়েনি কখনো ।

প্রতিবাদে কিছু না বললেও সপক্ষে বলেছেন তিনি অবশ্যই। বিভিন্ন আলোচনা সভায় যা বলেন তা যেহেতু মৌখিক বক্তব্য, এর কোন লিখিত প্রমাণ নেই, তাই এদিকে না গিয়ে বরং কিছু লিখিত প্রমাণ উপস্থাপন করি।
আপনার লেখাটা পড়েই আমি বুক সেলফ ঘেঁটে যে বইটা সামনে নিয়ে বসেছি, এর নাম,‌ 'সাক্ষাৎকার আল মাহমুদ, সাজ্জাদ বিপ্লব সম্পাদিত'। বইটির প্রকাশক বিখ্যাত প্রকাশনা 'ঐতিহ্য'। প্রকাশকাল ফেব্রুয়ারি ২০০৩।
বইয়ের পাঁচ নম্বর সাক্ষাৎকারটিতে একটি প্রশ্ন রয়েছে ৫৬ পৃষ্ঠায়, মুক্তিযুদ্ধের মেতা ইতিহাসের একটা নির্ণায়ক ঘটনা, আমাদের কথাসাহিত্যে কতটা যথাযথভাবে রূপায়িত হয়েছে ? তাঁর দীর্ঘ উত্তরের এক জায়গায় বলছেন তিনি-
'...আমি আগেই বলেছি এদেশের প্রধান লেখকগণের প্রকৃতপক্ষে মুক্তিযুদ্ধের কোন অভিজ্ঞতা নেই। হাতে গোনা যে দু'একজন কবি মুক্তিযুদ্ধে সামিল হতে ঢাকা ছেড়ে শেষপর্যন্ত কলকাতায় গিয়ে পৌঁছেন এবং যুদ্ধের প্রোপাগান্ডায় সাধ্যমত অবদান রাখেন তাদের একজন আমি নিজে। স্বধর্ম এবং স্বদেশের সার্বভৌমত্বে আস্থা উঠে যায়নি বলে আমাকে আখ্যায়িত করা হয় মৌলবাদী বলে। এ পরিবেশে মুক্তিযুদ্ধের ওপর কালজয়ী রচনা কার হাত থেকে বেরুবে বলে আশা করেন।...'
আট নম্বর সাক্ষাৎকারের একটি প্রশ্ন এরকম, একজন মুক্তিযোদ্ধা হয়েও আপনার এ সংক্রান্ত কবিতা কম। অন্যদিকে অমুক্তিযোদ্ধা হয়েও প্রচুর কবিতা লিখে অনেকেই বাজিমাত করেছেন বা করতে চেয়েছেন। আপনার এ ব্যাপারে কী কথা ?(পৃষ্ঠা ৮২)
উত্তর: মুক্তিযুদ্ধের ভেতরটা আমি দেখেছি। যুদ্ধের সময় উদ্দীপিত হয়ে দু'য়েকটি কবিতাও লিখেছি। পরে এ নিয়ে কবিতা লিখতে না পারলেও উপন্যাস লিখেছি। আমার কবিতা হোক বা গদ্যই হোক যা কিছু মুক্তিযুদ্ধের ওপর নিজের অভিজ্ঞতা থেকে লিখেছি। যুদ্ধ শেষ পর্যন্ত একটা নিষ্ঠুর ব্যাপার। কবি হৃদয় সর্বক্ষণ এ নিয়েই পড়ে থাকতে পারে না। তাছাড়া মুক্তিযুদ্ধে আমার পরিবার পরিজনের অপরিসীম ক্ষতি হয়েছে। যে মামুদের খেয়েপরে আমি মানুষ হয়েছি সেই মামু বাড়ির বিশাল ইমারতটি পর্যন্ত ধ্বংসস্তুপে পরিণত হয়। সবই আমার কৈশোরের স্মৃতির সাথে জড়িত। স্মৃতির সমস্ত সঞ্চয় মুক্তিযুদ্ধে উলট-পালট হয়ে গেছে।......এসব আমার কাছে সুখকর বিষয় নয় যে বারবার কবিতা লিখে স্মরণ করবো। তাছাড়া মুক্তিযুদ্ধের সময় কলকাতায় আমাদের সপক্ষের লোকদের একটি অংশের যে কাপুরুষের মত আচরণ দেখেছি এখন তা মনে হলেই মনমরা হয়ে যাই। আজকাল দেখি সেইসব কাপুরুষের হাতেই মুক্তিযুদ্ধের সবটুকু সুফল। মুক্তিযুদ্ধের প্রত্যক্ষ বিরোধী লেখকরাই এখন মুক্তিযুদ্ধের চেতনার দাবিদার সেজেছে দেখে নিজের কবি জীবনের ওপর ধিক্কার এসে গেছে। আমি কোনো ব্যাপারেই বাজিমাত করার লেখক নই।
নয় নম্বরের সাক্ষাৎকারের একটি প্রশ্ন, স্বাধীনতা-পরবর্তী সময়টাতে সরকারি পক্ষের সাথে আপনি একটা সংঘাতে জড়িয়ে পড়েছিলেন। '১৯৭৫ সালে বাংলাদেশের যেসব লোক ঘরে কবরের কাপড় কিনে রেখেছিল আপনি তাদেরই একজন'। আপনি একজন মুক্তিযোদ্ধা। তবুও, কেন এমন হল ? (পৃষ্ঠা ৮৬)
উত্তর: ........মনে রাখতে হবে আমি রাজনীতিক নই, কবি। আমি মুক্তিযোদ্ধা বলে আগে থেকেই জনতাম একদিন নকল মুক্তিযোদ্ধাদের দাপটে এদেশে টেকা যাবে না। ১৯৭৫ সালটা ছিল নকল মুক্তিযোদ্ধাদের প্রতিষ্ঠার বছর। ....

বইটি ভালো ভাবে খুঁজলে আরো তথ্য পাওয়া যেতে পারে। এরপরেও কি তাঁর নিজেকে মুক্তিযোদ্ধা দাবীতে কোন সন্দেহ আছে ? মুক্তিযুদ্ধ কীভাবে করেছেন তিনি এটা তো আপনিই তার আত্মজীবনী থেকে দেখালেন। তাহলে একাত্তরে যারা প্রাণভয়ে আশ্রয় নিতে ভারতে পালিয়েছে বিভিন্ন শরণার্থী ক্যাম্পে, তাদের কষ্টতো মাহমুদের চেয়ে অনেক বেশি ছিল, তারাও কি মুক্তিযোদ্ধা ?
আল মাহমুদ আমার প্রিয় কবি একজন। কিন্তু এটা সম্পূর্ণ অন্য বিষয়। এখানে তিনি মুক্তিযোদ্ধা, এবং জামাতিদেরটাই আসল 'মুত্তিযোদ্ধা পরিষদ' !

-------------------------------------------
‘চিন্তারাজিকে লুকিয়ে রাখার মধ্যে কোন মাহাত্ম্য নেই।’

আরিফ জেবতিক এর ছবি

মূল্যবান সংযুক্তির জন্য ধন্যবাদ আপনাকে ।

-----------------------------
কালের ইতিহাসের পাতা
সবাইকে কি দেন বিধাতা?
আমি লিখি সত্য যা তা,
রাজার ভয়ে গীত ভনি না।

অমিত আহমেদ এর ছবি
রানা মেহের এর ছবি

Cant writein Bangla.
God knows why.
Just logged in to say
very very very much well done Arif Bhaiya
-----------------------------------
আমার মাঝে এক মানবীর ধবল বসবাস
আমার সাথেই সেই মানবীর তুমুল সহবাস

-----------------------------------
আমার মাঝে এক মানবীর ধবল বসবাস
আমার সাথেই সেই মানবীর তুমুল সহবাস

আরিফ জেবতিক এর ছবি

হ, লন্ডন থাকলে বাংলা লেখা ভুলে যাওয়াই স্বাভাবিক ।
এজন্যই রানা মেহেরের কোন লেখা চোখে পড়ে না আজকাল ।:)

-----------------------------
কালের ইতিহাসের পাতা
সবাইকে কি দেন বিধাতা?
আমি লিখি সত্য যা তা,
রাজার ভয়ে গীত ভনি না।

হাসান মোরশেদ এর ছবি

দুর্দান্ত একটা কাজ হয়েছে আরিফ ।
আল-মাহমুদ বাংলাদেশের একমাত্র অস্ত্রহাতে মুক্তিযোদ্ধা এই গর্জন তুলতে যারা আগ্রহ বোধ করেন, এই পোষ্টে তাদের মতামত জানতে পারলে ভালো হতো ।
এবার দেখা যাচ্ছে একমাত্র তো নয়ই, মিয়া সাহেব আদৌ অস্ত্র হাতে কোন মুক্তিযোদ্ধাই নয় ।

এই পোষ্ট সকলের সংরক্ষনে থাকা দরকার ।
যখন যেখানে দেখবেন রাজাকারের ছানাপোনা আল-মাহমুদ কে নিয়ে গলাবাজি করছে লিংকটা দেখিয়ে দেবেন ।

-------------------------------------
"শিয়রের কাছে কেনো এতো নীল জল? "

-------------------------------------
জীবনযাপনে আজ যতো ক্লান্তি থাক,
বেঁচে থাকা শ্লাঘনীয় তবু ।।

অনিকেত এর ছবি

আরিফ ভাই,

লক্ষ কোটি পাঁচ তারা---এ লেখার জন্য।

আর আল মাহমুদ প্রসঙ্গে---

আল মাহমুদ-ও একটা মুক্তিযোদ্ধা, আর তেলাপোকাও একটা পাখি !!

মতান্তরে, আল মাহমুদের মুক্তিযোদ্ধা সাজা আর লুঙ্গির ব্যাক-পকেট থাকা একই ব্যাপার।

সংসারে এক সন্ন্যাসী এর ছবি

‍‍‍‍‍‍‍‍‍‍‍‍‍‍‍‍‍‍‍মুক্তিযোদ্ধা তাহলে নয় আল মাহমুদ? আলহামদুলিল্লাহ!

~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~
পাকিস্তানিদের আমি অবিশ্বাস করি, যখন তারা গোলাপ নিয়ে আসে, তখনও। - হুমায়ুন আজাদ

~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~
টাকা দিয়ে যা কেনা যায় না, তার পেছনেই সবচেয়ে বেশি অর্থ ব্যয় করতে হয় কেনু, কেনু, কেনু? চিন্তিত

হিমু এর ছবি
হিমু এর ছবি

আল্লাহর কাছে যৌন সঙ্গম চাইলে কি পাওয়া যায়? আল্লাহ কি এইসব আজেবাজে কাজে কোন মুমীনকে সহায়তা করেন? ছি ছি ছি।


হাঁটুপানির জলদস্যু

স্পর্শ এর ছবি

হায় হায়!! পাউয়া যায়না নাকি? !!
তাইলে আমার কি হবে! মন খারাপ(
....................................................................................
অতঃপর ফুটে যাবার ঠিক আগে হীরক খন্ডটা বুঝলো, সে আসলে ছিল একটা মামুলি বুদবুদ!


ইচ্ছার আগুনে জ্বলছি...

মুহম্মদ জুবায়ের এর ছবি

অস্ত্রহাতে একমাত্র মুক্তিযোদ্ধা কবি আল মাহমুদ - এই প্রচারণা সম্ভবত আশির দশক থেকে বা তার পরে শুরু হয়েছে। তথ্যপ্রমাণ বা আল মাহমুদের নিজের বয়ানই সেই দাবি নাকচ করছে। অস্ত্র হাতে নেওয়া যোদ্ধা কবিদের মধ্যে ছিলেন রফিক আজাদ, আবু কায়সার, মাহবুব সাদিক এবং আরো অনেকে। আল মাহমুদের নাম সেখানে আসার কথাই নয়।

লেখাটার জন্যে ধন্যবাদ।

-----------------------------------------------
ছি ছি এত্তা জঞ্জাল!

-----------------------------------------------
ছি ছি এত্তা জঞ্জাল!

খাখা এর ছবি

`অস্ত্রহাতে একমাত্র মুক্তিযোদ্ধা কবি আল মাহমুদ - এই প্রচারণা সম্ভবত আশির দশক থেকে বা তার পরে শুরু হয়েছে। তথ্যপ্রমাণ বা আল মাহমুদের নিজের বয়ানই সেই দাবি নাকচ করছে। অস্ত্র হাতে নেওয়া যোদ্ধা কবিদের মধ্যে ছিলেন রফিক আজাদ, আবু কায়সার, মাহবুব সাদিক এবং আরো অনেকে। আল মাহমুদের নাম সেখানে আসার কথাই নয়।'
অস্ত্রহােত আল মহমুদ যুদ্ধ করেছেন, এইটা আমরা শুনি নাই। আমরা শুনেছি তিনি মুক্তিযোদ্ধা। তিনি ভারতে ছিলেন আর ভারতে কোনো রাজাকার ছিল না। এই অর্থে তিনি মুক্তিযোদ্ধা। এটা মেনে নিতে কারো আপত্তি ছিল না। আর তিনি সশস্ত্র যোদ্ধা_ এই তথ্য ঠিক নয়। কবি রফিক আজাদ (রফিকুল ইসলাম খান), কবি আবু কায়সার, কবি মাহবুব সাদিক (নুরুল আমিন খান), কবি আবিদ আনোয়ার (আবিদুর রহীম), মাহবুব হাসান-এরা ছিলেন সশস্ত্র মুক্তিযোদ্ধ। এদের সকলের বাড়ি টাঙ্গাইল অঞ্চলে। তবে এদের দেখাদেখি সাজ্জাদ কাদির নামে আরেক লেখকও কয়েকবছর ধরে সশস্ত্র মুক্তিযোদ্ধ পরিচচয় দিচ্ছে। অথচ সে ছিলো রাজাকার। একাত্তরের গোটা ৯ মাস সে পিস কমিটির অফিস ঘরে টুপি মাথায় দিয়ে বইসা থাকত। যুদ্ধশেষে কাদের বাহিনীর লোকেরা তাকে পা দিয়ে মাড়াইয়া মারতে গেছিল। যাতে গুলির দাম বেঁচে যায়। রফিক আজাদ আর মাহবুব সাদিক তাকে রক্ষা করে। এখন সে ওই দুই কবিবন্ধুকেই সহ্য করতে পারে না। এই ধরনের রাজকার থেকেও আমাদে;র সাবধান থাকা দরকার। আল মাহমুদ আর সাজ্জাদ কাদিরে মতো স্বঘোষিত ‌মুক্তিযোদ্ধা' থেকে সাবধান।

QH এর ছবি

আমার জানামতে কায়সার হক স্যারও (http://en.wikipedia.org/wiki/Kaiser_Haq) একজন মুক্তিযোদ্ধা ...

নুরুজ্জামান মানিক এর ছবি

১। আল মাহমুদ শুধু নিজেকে মুক্তিযোদ্ধা দাবিই করেননি , অযাচিতভাবে যারা ভারতে যান নি তাদের হেয় করেনও বিশেষত হাসান হাফিজুর রহমান বা শামসুর রাহমান কে ।
দেখুন কাজি জহিরুল ইসলামের নেয়া আল মাহমুদের ইন্টারভিউ

কবি তপন বাগচির প্রতিক্রিয়া আছে ।এখানে
২। কবি রফিক আজাদ , মাহবুব সাদিক দেশের ভিতর থেকে যু্দ্ধ করেছেন কাদেরিয়া বাহিনীতে । কবি ফরহাদ মজহার , আবিদ আনোয়ার প্রমুখ ভারতে পাড়ি দেন এবং যুদ্ধে অংশ নেন ।

আল মাহমুদ মুক্তিযুদ্ধে অংশ নেয়া প্রসগে কবি আবিদ আনোয়ার
বলেন -

কবি আল মাহমুদ ভারতে গিয়েছিলেন সত্যি, কিন্তু আমার জানামতে সেখানে এমন কোনো কাজ করেন
নি, যাতে তাকে "মুক্তিযোদ্ধা" বলা যায়। আমাদের মতো সরাসরি যুদ্ধ না-করলেও যারা অন্তত শরণার্থী শিবিরে নানা দায়িত্বে নিয়োজিত ছিলেন, এমনকী এম আর আকতার মুকুলের মত যেসব
সাংবাদিক স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রে অনুষ্ঠান গ্রন্থনা ও প্রচার করেছেন, খবর পড়েছেন, কিংবা যারা শিল্পী হিসেবে উদ্দীপক গান গেয়েছেন তাঁরাও মুক্তিযোদ্ধা। আল মাহমুদের মতাদর্শে বিশ্বাসী অন্য একজন সৈয়দ আলী আহসান প্রকৃত অর্থেই মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণ করেছেন। ১৯৯৭ সালে অনুষ্ঠিত ”মুক্তিযুদ্ধ উত্ সব-কলকাতা”য় গিয়ে অন্নদা শঙ্কর রায়-এর লিখিত বক্তব্য থেকে আমি এই তথ্য জানতে পারি। উত্সবের ব্রুশিয়রে প্রকাশিত সেই লিখিত বক্তব্যে অন্নদা শঙ্কর রায় বলেছেন: মুক্তিযুদ্ধের দিনগুলোতে সৈয়দ আলী আহসান স্থানীয় সংগঠন ও কলকাতায় বসবাসরত বিদেশী কুটনীতিকদের সঙ্গে প্রায় প্রতিদিন অনুষ্ঠান করে মুক্তিযুদ্ধের সপক্ষে বিশ্ববিবেক জাগ্রত করার চেষ্টা করেছেন। আল মাহমুদ কেবল শক্তি,
সুনীল ও বুদ্ধদেব বসুর সঙ্গে তাঁর কবিতা নিয়েই ব্যস্ত থেকেছেন।
ভারতে যাওয়া না-যাওয়ার সঙ্গে মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণের কোনো সম্পর্ক নেই--এ-কথা কবি আল মাহমুদ নিজেও বোঝেন! তবুও অন্যকে হেয় প্রতিপন্ন করার আবার একই সঙ্গে অযোগ্যকে সার্টিফিকেট প্রদানের একটা মানসিকতা তাঁর আছে এ-কথা তাঁর লেখা ”কবির আত্মবিশ্বাস” বইটি পড়ে আমি টের পেয়েছি।
এত বড় একজন কবির এসব মানায় কি?(বিস্তারিত পাবেন এখানে )

নুরুজ্জামান মানিক
*******************************************
বলে এক আর করে আর এক যারা
তারাই প্রচণ্ড বাঁচা বেঁচে আছে দাপটে হরষে
এই প্রতারক কালে (মুজিব মেহদী)

নুরুজ্জামান মানিক
*******************************************
বলে এক আর করে আর এক যারা
তারাই প্রচণ্ড বাঁচা বেঁচে আছে দাপটে হরষে
এই প্রতারক কালে (মুজিব মেহদী)

আরিফ জেবতিক এর ছবি

গুরুত্বপূর্ণ সংযোজনের জন্য কৃতজ্ঞতা ।

-----------------------------
কালের ইতিহাসের পাতা
সবাইকে কি দেন বিধাতা?
আমি লিখি সত্য যা তা,
রাজার ভয়ে গীত ভনি না।

ফকির ইলিয়াস এর ছবি

সোনালী কাবিন - এর কবি আল মাহমুদ সব সময়ই মধ্যসত্ত্বভোগী।
তিনি মুক্তিযুদ্ধের সময় ও সে চরিত্র নিয়ে কাজ করেছেন।তার এমন কোনো , একটি কবিতাও নেই - যা এ দেশের মানুষের অধিকার
আন্দোলন কে ধারণ করেছে।
যা লিখেছেন তা একই ধাচের। এখনও লিখেন , নিজের স্বার্থ বিবেচনায় রেখে।

সবজান্তা এর ছবি

ভরা মজলিশে কবির লুঙ্গি ধরে টান মারায় তীব্র প্রতিবাদ জানাচ্ছি।


অলমিতি বিস্তারেণ

নিঘাত তিথি এর ছবি

ঘাঁটাঘাঁটি করে খুব কাজের একটা কাজ করেছেন জেবতিক ভাই। খুবই প্রয়োজনীয় একটি পোস্ট। আপনাকে অসংখ্যবার ধন্যবাদ জানাই।
----------------------------------------------------
আমার এই পথ চাওয়াতেই আনন্দ

----------------------------------------------------
আমার এই পথ চাওয়াতেই আনন্দ

সৌরভ এর ছবি

আল মাহমুদ এই লেখা পড়লে, আত্মজীবনীর একটা সংশোধন-পর্ব বের করবেন যেটা বিভিন্ন মহল থেকে সার্টিফায়েড হয়ে তারপর বাজারে বেরুবে।



২৭. বেহেস্ত যাওনের খায়েশ হগ্গলের, আপত্তি শুধু মরনে


আবার লিখবো হয়তো কোন দিন

আরিফ জেবতিক এর ছবি

না , আল মাহমুদ এটা করবেন বলে মনে হয় না ।
তবে আরো কেউ কেউ করতে পারেন , যারা আল মাহমুদকে রাজনৈতিক নেতা বানিয়ে ফেলার প্রক্রিয়ায় আছেন ।

----------------------------
কালের ইতিহাসের পাতা
সবাইকে কি দেন বিধাতা?
আমি লিখি সত্য যা তা,
রাজার ভয়ে গীত ভনি না।

তারেক এর ছবি

স্কুলে থাকতে কবির কান গরম হয়ে যাওয়া টাইপের কিছু ছোট গল্প পড়েছিলাম। মজা লেগেছিলো দেঁতো হাসি
বিচূর্ণ আয়নায় কবির মুখ বইমেলায় হাতে নিয়ে নেড়েচেড়ে রেখে দিয়েছিলাম। কেনা হয়নি। এখন তো আফসোস হইতেছে একটা "সেইরকম বই" মিস করলাম বলে।
_________________________________
ভরসা থাকুক টেলিগ্রাফের তারে বসা ফিঙের ল্যাজে

_________________________________
ভরসা থাকুক টেলিগ্রাফের তারে বসা ফিঙের ল্যাজে

মাহবুব লীলেন এর ছবি

একটা জায়গায় আমার বেশ খটকা লাগে তা হলো বর্তমানের বাস্তবতার আলোকে আমরা অনেকেই অতীতকে ইরেজার দিয়ে মুছে এডিট করতে চাই। অতীতের অনেক পাতায় নতুন করে লাইন যোগ করতে চাই...

কেন?
ইতিহাস মানে তার সকল খানাখন্দ নিয়েই ইতিহাস
আর বর্তমান মানে ইতিহাসের অনেক উত্তরাধিকারের পবির্তন নিয়েই বর্তমান

ইতিহাসকে ইতিহাসের জায়গায় রেখেই বর্তমানটাবে বিচার করা উচিত

০২

ষাটের দশকের শেষ পর্যন্ত শামসুর রাহমানের বদনাম ছিল সাম্রাজ্যবাদের চিহ্নিত চাড়াল হিসেবে আর আর সত্তর দশকের শুরুর দিক পর্যন্ত আল মাহমুদকে চিহ্নিত করা হতো প্রগতিশীলদের অগ্রণী হিসেবে

এগুলো ইতিহাসের সত্য
এখানে এখন আর কিছুই করার নেই
ওই ইতিহাসের উপর ইরেজার টেনে নতুন লাইন যোগ করার দরকারও নেই

০৩

সাহিত্য কীর্তির উপরে শামসুর রাহমান এবং আল মাহমুদের দুইটা কমন বৈশিষ্ট্য আছে যা সম্ভবত আর কোনো বাংলা লেখকের নেই
ক) দুইজনই চূড়ান্ত ভদ্রলোক এবং বিনয়ী। কোনো অবস্থাতেই নিজেদের ভদ্রতা এবং বিনয় বর্জন করেন না কেউ

খ) এই দুইজন কবি নিজের সম্পর্কে মিথ্যে বলেন না

০৪

শামসুর রাহমান এবং আল মাহমুদ সম্পর্কে আমরা এতো বেশি জানি যে এখন আর তাদের সম্পর্কে জানতে হলে তাদরে আত্মজীবনী যেমন পড়তে হয় না তেমনি তাদরেকে কিছু জিজ্ঞেসও করতে হয় না তেমনি অন্য কোনো সাক্ষীকেও ডাকতে হয় না

০৫

অন্যরা কে কী ভাবে করেছেন জানি না কিন্তু আমি ব্যক্তিগতভাবে শামসুর রাহমান এবং আল মাহমুদকে রীতিমতো ২/৩বার আক্রমণ করেছিলাম সরাসরি এই বিষয়গুলো নিয়ে
দুজনেরই অসাধারণ বিনয় ভদ্রতা এবং মিথ্যেবিহীন উত্তগুলো তাদেরকে শ্রদ্ধা করতেই আমাকে বাধ্য করেছে
তাদের অবস্থান হয়তো আমি সমর্থন করতে পারিনি কিন্তু অস্বীকার করতে পারিনি তাদের অস্তিত্ব
যখন তাদরে অবস্থানগুলো মানতে না পারা নিয়ে তাদরেকে বারবার আক্রমণ করেছিলাম তখন দুজনেরই উত্তর ছিল এরকম- তুমি আমাকে রাজনীতিবিদ ধরে রাজনৈতিক প্রশ্নগুলো করছ না বরং তুমি আমাকে কবি হিসেবে অলরেডি গ্রহণ করে ফেলেছ অথবা কবি হিসেবে অস্বীকার করতে পারছ না বলেই তোমার রাজনৈতিক মানদন্ডে আমাকে তোমার কাছে গ্রহণযোগ্য করার জন্য এই প্রশ্নগুলো করছ

কিন্তু তোমার ব্যক্তিগত রাজনৈতিক দৃষ্টিভঙ্গি দিয়ে কবিকে পাশ করিয়ে নেয়ার আদৌ কি কোনো প্রয়োজন আছে?
নাকি আছে কবিতার দৃষ্টিভঙ্গি দিয়ে কোনো রাজনীতিবিদকে পাশ করিয়ে নেয়ার প্রয়োজনীয়তা?

০৬

শামসুর রাহমানকে জিজ্ঞেস করেছিলাম আল মাহমুদ সম্পর্কে আল মাহমুদকে জিজ্ঞেস করেছিলাম শামসুর রাহমান সম্পর্কে
দুজনেরই উত্তর ছিল অনেকটা এরকম: তিনি কি কোথাও বাংলাদেশের স্বাধীনতার বিরুদ্ধতা করেছেন?
- করেননি কেউ
না আল মাহমুদ না শামসুর রাহমান

০৭

অনেকেই আল মাহমুদকে মুক্তিযোদ্ধা সাজানোর জন্য বেশ কষ্ট করেন আবার অন্য পক্ষে অনেকেই মাথার ঘাম পায়ে ফেলেন শামসুর রাহমানকে মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের সাজাতে
দরকার কী
তাদের লেখাই তো তাদের প্রমাণ দেয় তারা কে কী করেছেন আর কে কোন জায়গায় ছিলেন

০৮

যে দেশে ৩৭ বছর পরে এখনও মুক্তিযোদ্ধাদের তালিকা নেই। নেই রাজাকারদের তালিকা সেই দেশে দুজন প্রকাশিত লেখককে তালিকাভুক্তির এই তোড়জোড় আমার কাছে বেশ হাস্যকর মনে হয়
কী আসে যায় যদি প্রমাণিত হয় আল মাহমুদ মুক্তিযোদ্ধা ছিলেন
কী আসে যায় যদি প্রমাণিত হয় আল মাহমুদ মুক্তিযোদ্ধা ছিলেন না?

আর কে মুক্তিযোদ্ধা ছিলেন আর কে রাজাকার ছিল তা কেন এখনও তাকে জিজ্ঞেস করতে হবে
মুক্তিযোদ্ধা আর রাজাকারদের তালিকা দেখলেই তো হয়

এই দুইটা তালিকা এখনও দেশে নাই কেন?

০৯

আল মাহমুদকে রাজনৈতিক চাপে ফেলে মৃত প্রায় করে রাজনৈতিকভাবে নষ্ট করার ১০০% দায়িত্ব শেখ মুজিব আর তার বাকশালের
শেখ মুজিব বাংলাদেশ বুঝতেন কিন্তু গণতন্ত্র কিংবা মত প্রকাশের প্রয়োজনীয়তা বুঝতেন শূন্যের নিচে
এটাও মনে রাখতে হবে বাংলাদেশের প্রথম স্বৈরশাসক কিন্তু শেখ মুজিব নিজে
শেখ মুজিব বাংলাদেশ বানিয়ে বাংলাদেশের অনেক কিছুই নষ্ট করে দিয়েছেন। তার মধ্যে আল মাহমুদও একজন
শেখ মুজিব বাংলাদেশের জন্য রাজনীতি করে বাংলাদেশ হবার পরে সবচে বেশি ক্ষতি করেছেন বাংলাদেশের রাজনীতির

মুক্তিযোদ্ধাদের হত্যার উৎসব কিন্তু শেখ মুজিবই শুরু করেছিলেন
ক্রস ফায়ার শুরুর কৃতিত্ব মুজিবের

১০
আমাদের দুর্ভাগ্য আমরা রাজনীতিবিদদের বিচার করি পরিবারের ইতিহাস দিয়ে আর কবিদের বিচার করি তার রাজনীতি দিয়ে
এবং এটা শুধু করি আমাদের হতভাগা বাংলাদেশের জন্যই
অথচ আমরা এজরা পাউন্ডকে বর্জন করি না ফ্যাস্স্টি হিসেবে
শেক্সপিয়রকে বর্জন করি না সাম্প্রদায়িক এবং মানবতা বিরোধী হিসেবে
ড়্যাবোকে বর্জন করি না দাস ব্যবসায়ী হিসেবে

১১

আওয়ামিলীগ যখন জামাতের সাথে একসাথে আন্দোলন করে তখন আমরা মেনে নেই
৭১র চার খলিফার এক খলিফা শাহজাহান সিরাজ যখন নিজামীর সাথে পাশাপাশি মন্ত্রীত্ব করে তখন আমরা মেনে নেই
মুজিব হত্যাকারী মুশতাক সরকারের মন্ত্রীরা যখন আবার আওয়ামীলিগে আসে তখন আমরা মেনে নেই

আমরা শুধু বিচারের লাঠি হাতে দৌড়াই নিরীহ এক কবি আল মাহমুদের পেছনে
সম্পূর্ণ একজন শেখ মুজিব- তার বাকশাল- তার লাল বাহিনী যাকে তাড়াতে তাড়াতে মৃত্যুর কাছাকাছি নিয়ে যায় তখন আমরা কিছু বলি না

আমরা বলি আল মাহমুদ তুমি ওইদিকে কেন গেলে
(অথচ আমরা শাহজান সিরাজকে ভোট দিয়ে মন্ত্রী বানাই)

১২

আল মাহমুদ রাজনীতিবিদ নন
কবি
তার বর্তমান সময়ের লেখাগুলো আমি পড়ি না স্রেফ নিচু মানের বলে
কিন্তু যেই লেখাগুলোর জন্য আমি তাকে কবি হিসেবে জানি সেই লেখার মূল্যায়ন করে আমি সব সময়ই বলি
এখনও বলছি
জীবনানন্দের পরে বাংলা ভাষায় সবচে বড়ো এবং সবচে শক্তিশালী কবি আল মাহমুদ

১৩

জামাত তাদের রাজনৈতিক প্রতিষ্ঠার জন্য এখন মুজিবের জন্মদিনেও মিলাদ পড়ে
স্বাধীনতা দিবস পালন করে
এবং মুক্তিযোদ্ধা সমাবেশও করে
সেগুলো তাদের রাজনৈতিক কর্মসূচি
সেই কর্মসূচির আওতায় তারা শিবিরে হিন্দু এবং নন মুসলিম ছেলেদেরকেও মেম্বার করে

এবং সেই কর্মসুচির আওতাতেই তারা কবি এবং বুদ্ধিজীবিদের অন্তভূর্ক্ত করে তাদের সমর্থক হিসেবে

আমরা কতটুকু বিরোধীতা করি তার?

১৪

এই সচলায়তনেই একজন কমরেড আছেন
নব্বইর ডিগবাজিতে বিএনপির নেতা এবং একটা পিস্তলের মালিক হয়ে যিনি সেই পিস্তলের নলটা ঠেসে ধরেছিলেন আমার মাথায়
তারপর তিনি রাজনীতি-ফিতি ছেড়ে দিয়ে আবার কমরেড বনে গিয়ে প্রচুর বিপ্লব এবং প্রগতিশীলতা উৎপাদন করেন এখন
তিনি একদিন মেইল করে জানালেন- পেছনের ওইসব একসিডেন্ট যেন আমি ভুলে যাই
আমি বললাম- হ

আমি তার লেখালেখিগুলো দেখি আর বিচার করি সে এখন কোথায় আছে। কারণ তাকে আমি তার কাজ দিয়েই বিচার করতে চাই
পিস্তলের মালিক হয়ে সে শুধু নলটা ঠেসে ধরেছিল
আমাকে কিংবা কাউকে গুলি করনি
তার নিজেরই উপলব্ধিতে সে পিস্তল আর রাজনীতি দুটোই ছেড়ে ছুড়ে চলে এসেছে

আমার কী দরকার সেই পিস্তলটাকেই প্রধান করে তোলা?

১৫

আল মাহমুদকে আমি তার সাহিত্য দিয়েই বিচার করতে চাই
না জামাতের রাজনীতি দিয়ে
না আওয়ামীলীগের মুক্তিযুদ্ধ ব্যবসা দিয়ে

রণদীপম বসু এর ছবি

মাহবুব লীলেনের সাথে সহমত পোষণ করেও আমি বলবো, আমাদের প্রকৃত সত্যটাকে অবশ্যই জেনে রাখতে হবে। যাতে আমরা বা কেউ ভুলভাবে ব্যবহার হয়ে না পড়ি। যা ইতোমধ্যে হচ্ছেও।
আল মাহমুদ সম্পর্কে সত্যসন্ধানে কিছুতেই তাঁর কবি প্রতিভা খাটো হবার নয়। চাইলেও কেউ এটা পারবে না।
তবে তাঁকে রাজনৈতিকভাবে ব্যবহার করে বা তিনি নিজে ব্যবহৃত হয়ে একটা গোষ্ঠীকে যে প্রশ্রয় দিচ্ছেন এটাকে খাটো করে দেখার উপায় নেই। আর এ জন্যেই সত্যটাকে ব্যবচ্ছেদ করে একটা কংক্রিট সিদ্ধান্ত ধারণ করে রাখা যায়।

আর আমাদেরকেও এ ব্যাপারে স্থির সিদ্ধান্তে আসতে হবে যে, কোনক্রমেই আমরাও এ সত্যের কোন নেতিবাচক ব্যবহারে যাবো না। আক্রোশে পড়ে সব সত্যকে ব্যবহার করতে হবে এমন কোন কথা নেই।
আপনার চমৎকার মতামতটির জন্য অভিনন্দন।

-------------------------------------------
‘চিন্তারাজিকে লুকিয়ে রাখার মধ্যে কোন মাহাত্ম্য নেই।’

আরিফ জেবতিক এর ছবি

এক.
পুরো মন্তব্যে ঝাজা ।
পোস্টে আমি নিজেই বলেছি যে আল মাহমুদকে তার কবিতার বিচারেই বিচার করতে হবে , এবং বাংলাভাষার কাব্য ইতিহাসে আল মাহমুদকে কখনোই মুছে ফেলা যাবে না ।

তার সাম্প্রতিক কবিতা আমিও পড়ি না , কারন তার মান পাঠক হিসেবে আমাকে টানে না ।
মনে হয় দুই বছর আগে উনার শেষ উপন্যাসটি পড়েছিলাম কোন এক ঈদ সংখ্যায় , উপন্যাসের নাম মনে নেই , তবে সেটি হচ্ছে আল মাহমুদের শেষ রচনা যেটি আমাকে মুগ্ধ করেছিল ।

দুই.
কিন্তু মাহবুব লীলেন বিরক্তি প্রকাশ করেছেন , কেন এতো এতো বিচ্যুতির মাঝে আলাদা ভাবে আল মাহমুদকে বিশ্লেষনের প্রয়োজন পড়ল , কেন তার রাজনৈতিক পরিচয় আমাদের কাছে মূখ্য হয়ে উঠল ।

এই প্রশ্নে আমি তার সাথে একমত নই ।
মনে রাখতে হবে রাজনৈতিক নেতাদের চরিত্র আর একজন কবির চরিত্রকে আমরা এক পাল্লায় মাপতে পারি না । আমাদের সংস্কৃতি আমাদেরকে কবির প্রতি এক ধরনের শ্রদ্ধা প্রকাশের দায় দেয় , আর রাজনীতিবিদদের প্রতি অশ্রদ্ধা ।
শাহজাহান সিরাজ তার সাবেক সব ভুমিকা সত্ত্বেও তাকে আমি খারিজ করে দেই , একই কথা গোলাম আযমের ক্ষেত্রেও । ৫২ সালে তার ভুমিকা আমাদের পক্ষে থাকলেও গোলাম আযম আমাদের কাছে ঘৃনিত হয়ে ওঠেন উনার ৭১ এর ভুমিকার জন্য ।

একজন রাজনীতিবিদকে তার রাজনীতির জন্য খারিজ করা যায় । একজন কবিকে তার রাজনীতির জন্য খারিজ করা যায় না , কারন রাজনীতি কবির মূখ্য ভুমিকা নয় ।

এই কারনেই একজন কবির রাজনৈতিক অবস্থান রাজনীতির হিসেব নিকেশে অনেক বেশি গুরুত্বপূর্ণ । আল মাহমুদকে দেশের একমাত্র মুক্তিযোদ্ধা কবি হিসেবে যখন আমার প্রতিপক্ষরা ব্যবহার করেন , তখন তিনি যতো না কবি তার চাইতে বেশি রাজনৈতিক পরিচয়ে আমার সামনে হাজির হন । সেক্ষেত্রে তার রাজনৈতিক কুষ্টি বিচার আমার জন্য প্রয়োজনীয় ও অত্যাবশকীয় হয়ে ওঠে ।

একজন রাজনৈতিক নেতার বিচ্যুতি এবং তার না না মুখী বিশ্লেষন আমার পরবর্তী প্রজন্মকে যতো না প্রভাবিত করবে ,একজন কবির রাজনৈতিক জীবন তার চাইতে অনেক অনেক বেশি প্রভাব তৈরী করতে পারবে ।
সে জন্যই কবির রাজনৈতিক অবস্থান নিয়ে আলোচনা চলতে পারে ।

মাহবুব লীলেন যদি শাহজাহান সিরাজ আর আল মাহমুদকে যদি এক পাল্লায় মাপতে যান , তাহলে তার সাথে এই প্রসঙ্গে আর কিছু বলার আছে বলে মনে হচ্ছে না ।

তিন.
শামসুর রাহমান আর আল মাহমুদ সম্পর্কে আমরা এতো বেশি জানি যে এ জণ্য তাদের আত্মজীবনী পড়তে হয় না , এটা হয়তো কবি হিসেবে মাহবুব লীলেনের পারঙ্গমতা ।
কিন্তু সাধারন পাঠকের জানার মাঝে বেশ ফাক রয়ে যায় ।
সেই ফাকটুকুতে কিছু নাড়াচাড়া মন্দ বিষয় নয় ।

চার.
শেখমুজিব , বাকশাল , মুশতাক , ছাত্রদলের ক্যাডার .. মন্তব্যের এই বিষয়গুলোকে পোস্টের সাথে প্রাসঙ্গিক মনে হয় নি বলে কিছু বলা থেকে বিরত থাকলাম ।

ধ্রুব হাসান এর ছবি

জীবনানন্দের পরে বাংলা ভাষায় সবচে বড়ো এবং সবচে শক্তিশালী কবি আল মাহমুদ

কি জানি হয়তো আমি হয়তো বেশী মাত্রায় উদারপন্থী, সেই ছোট্ট বেলা থেকে আজো জামাত-শিবিরের সাথে দা-কুমরো সম্পর্ক নিয়ে বেড়ে উঠলেও আল-মাহমুদ'কে কখনোই অবহেলায় দূরে ঠেলে দিতে পারিনি; আজো পারিনা! অনেক কষ্ট লাগে উনার রাজনৈতিক অবস্থানের জন্য, কিন্তু এখনো জীবনানন্দের পর যে লোকটি আমার ঘাড়ে ভর করে আছেন, তিনি মাহমুদ। হুমায়ুন বা আজাদ'কে যত সহজে দূরে ঠেলা যায়, আল-মাহমুদ'কে দূরে ঠেলা ততো সহজ নয়! তার সমস্ত আচরণ কে ছাপিয়ে উঠে দাড়াঁয় তার কবি সত্ত্বা; এরকম এক অসাধারন প্রতিভাকে কি করে অস্বীকার করি?

তানিম এহসান এর ছবি

পূর্ণ সহমত আপনার সাথে। শুধু একটা জিনিস বলি ভাই -- “গাঙের ঢেউয়ের মত বল কন্যা কবুল কবুল”, সেই সোনালী কাবিনের কবি যখন জামাত সংশ্রবে যান - একটা অক্ষম ক্রোধ কাজ করে। আর বেশী কিছুনা!

মাসুদ সজীব এর ছবি

লীলেনদা, আপনার করা দীর্ঘ মন্তব্যের অনেক বিষয়ের সাথে আমি দ্বিমত প্রকাশ করছি এবং কিছু মন্তব্য কে অতি সরলীকরণ হয়েছে বলে মনে করছি। সেগুলোর কিছু নিচে উল্লেখ করলাম, যদি আপনার চোখে পড়ে জানাবেন বছর সাতেক আগে করা মন্তব্যে আপনি এখনো স্থির আছেন কিনা? এই পালটানো সময়ে আল মাহমুদ কে নিরীহ মনে করে কবি হিসেবে বিবেচনা করেন কিনা?

১।

আমাদের দুর্ভাগ্য আমরা রাজনীতিবিদদের বিচার করি পরিবারের ইতিহাস দিয়ে আর কবিদের বিচার করি তার রাজনীতি দিয়ে

প্রথম কথা সেই কবি-ই যখন নিজেকে জড়ান রাজনীতির সাথে তখন কি তার রাজনীতি নিয়ে কথা বলা যাবে না। সেই রাজনৈতিক বিশ্বাস তো তার লেখায়ও এসেছে তাহলে কেন সেটা বিচার করা যাবে না। আর রাজনীতির সাথে যদি আমাদের স্বাধীনতা যুদ্ধ, মুক্তিযুদ্ধ থাকে, নিজের পূর্ব পুরুষের অস্তিত্ব জড়িয়ে থাকে তাহলে কি সেটা বিচার যোগ্য নয়? আপনার কথা যদি মেনে নেই তাহলে খেলার সাথেও রাজনীতি মিশানো যাবে না, পাকিস্তানের পতাকা উড়ানোও ঘৃনিত অপরাধ হবে না।

২।

শেখ মুজিব বাংলাদেশ বানিয়ে বাংলাদেশের অনেক কিছুই নষ্ট করে দিয়েছেন। তার মধ্যে আল মাহমুদও একজন

অনেক কিছু কি নষ্ট করেছেন বলতে আসলে কি বুঝালেন সেটার তালিকা চাইছি না, কিন্তু আল মাহমুদ কে কিভাবে নষ্ট করেছেন সেটা জানতে চাইছি। প্রাপ্ত বয়স্ক একজন লোক নষ্ট হলে তাতে অন্যের উপর কতটুকু দোষ দেওয়া যায় সে প্রশ্নও থাকছে। আপনার অবগতির জন্যে বলি, আল মাহমুদ শেখ মুজিবের বাকশালেও যোগ দিয়েছিলেন, শেখ মুজিবের দেওয়া চাকরিও করেছেন দীর্ঘদিন। আর শেখ মুজিব কতটুকু নষ্ট করেছেন আল মাহমুদ কে সেটার বিস্তারিত লিখেছেন নজু ভাইর এই পোষ্টে

৩।

মুক্তিযোদ্ধাদের হত্যার উৎসব কিন্তু শেখ মুজিবই শুরু করেছিলেন
ক্রস ফায়ার শুরুর কৃতিত্ব মুজিবের

কোথায় কিভাবে শেখ মুজিবুর রহমান মুক্তিযুদ্ধাদের হত্যায় মেতেছেন জানতে পারলে সুবিধা হতো।

৪।

আমরা শুধু বিচারের লাঠি হাতে দৌড়াই নিরীহ এক কবি আল মাহমুদের পেছনে

নিরীহ বলতে আসলে কি বুঝালেন? তিনি কারো আগে-পিছে নেই এমন? আল মাহমুদ নিরীহ কিংবা দলহীন/গোষ্ঠির বাহিরে কোন মানুষ নয়।তিনি জামায়তের পৃষ্ঠপোষকতায় একজন কবি। তিনি জামাতের গুণগান গান, তাদের বন্দনা করেন। একটা সাম্প্রদায়িক দলের পক্ষে অবস্থান নেওয়া মানুষ কি করে নিরীহ হয়?

৫।

আল মাহমুদকে আমি তার সাহিত্য দিয়েই বিচার করতে চাই
না জামাতের রাজনীতি দিয়ে
না আওয়ামীলীগের মুক্তিযুদ্ধ ব্যবসা দিয়ে

এ মন্তব্যটি যথেষ্ট আপনার অভিব্যক্তি বুঝতে। প্রথম কথা জামাতপ্রীতির কারণে আল মাহমুদের নিন্দা করলে সেটা মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে ব্যবসা হয়ে যায় না। আওয়ামীলীগ মুক্তিযুদ্ধের ব্যবসা করে এটা অতি সরলীকরণ হয়ে গেলো।

আপনার সম্পূর্ণ মন্তব্যে আপনি অপ্রাঙ্গিক ভাবে শেখ মুজিব কে টেনে এনেছেন এবং বার বার ঢালাও মন্তব্য করেছেন। আল মাহমুদ নষ্ট হওয়া সহ বাংলাদেশের পশ্চাৎমুখী চলার জন্যে একমাত্র শেখ মুজিবুর রহমান কে দায়ী করেছেন। অথচ স্বাধীনতার পর বেশিরভাগ সময় ক্ষমতায় ছিলো জিয়া-এরশাদ এবং খালেদা-নিজামীরা। তাদের কে নিয়ে একটা বাক্যও প্রয়োগ করলেন না। বাংলাদেশকে পেছনের দিকে ঠেলে দিতে এদের কারো কোন অবদান নাই। আপনার মন্তব্য দু:খজনক এবং বর্জনীয়।

-------------------------------------------
আমার কোন অতীত নেই, আমার কোন ভবিষ্যত নেই, আমি জন্ম হতেই বর্তমান।
আমি অতীত হবো মৃত্যুতে, আমি ভবিষ্যত হবো আমার রক্তকোষের দ্বি-বিভাজনে।

নুরুজ্জামান মানিক এর ছবি

লীলেন এর ঝাঝা মন্তব্য আর আরিফ -বসুর প্রতিক্রিয়া মাথা আওলাইয়া গেল দেখি !

তয় অধমের এক খান কথা -
এই বিষয়টা মানে প্রশ্নটা কিন্তু আমার মাথায় ছিল ।

আল মাহমুদ কত বড় কবি বা তিনি কালজ না কালোত্তর হবেন কি হবে বাংলা সাহিত্যের ইতিহাসে তার অবস্থান কিংবা তার কবিতার নন্দনতত্ত্ব-রস -চিত্রকল্প-অলংকরন -ছন্দ কিংবা পাঠ -পুনঃপাঠ বা একাডেমিক ক্রিটিসম বা তার কাব্য বিচার আরিফ ভাইয়ের এই ব্লগের বিবেচ্য নয় আর তা তিনি নিজেই জানিয়েছেন মুল ব্লগে আর মন্তব্যে ।

যতটুকু বুঝেছি এই ব্লগে তর্ক হচ্ছে "আল মাহমুদ " এর "মুক্তিযোদ্ধা" পরিচয় নিয়ে যা তিনি নিজেই দাবি করেছেন আর সেই দাবির সাথে অন্যদের হেয় করতেও ছাড়েন নি । আরিফ ভাই স্বয়ং কবির আত্মজৈবনিক বই থেকে বিষয়টা নিয়ে নাড়াচারা করেছেন ।

তবে ব্লগের শেষ লাইন "কবি আল মাহমুদকে যদি মুক্তিযোদ্ধা কবি বলা হয় , তাহলে জামাতিদের " মুক্তিযোদ্ধা পরিষদ"কেও মুক্তিযোদ্ধাদের সংগঠন হিসেবে মেনে নিতে হবে , এটাই আমার মনে হচ্ছে " আরেক তর্কের ইশারা আছে কিন্তু আমরা মুল বিষয়ে থাকতে চাই ।

লীলেন ভাইয়ের মন্তব্যে নানা প্রসংগ এসেছে যা নির্মম সত্য বলেই মানি আর জানি তাই দ্বিমত করছি না ।

আরেকটা নির্মম সত্য হয়ত এই ব্লগালোচনায় বেড়িয়ে আসবে আল মাহমুদের মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহন প্রসংগে ।

কবিগুরু নজরুলের মত তলোয়ার দিয়ে সেভ করেননি
আমাদের কাছে দুজনই গুরুত্বপুর্ন
তেমনি বাংলা কাব্য সাহিত্যে কবি আল মাহমুদ উজ্জল তারকা ছিলেন -আছেন -থাকবেন
এ নিয়ে সন্দেহ আরিফ করেননি
আর কেউ মন্তব্যেও প্রকাশ করেন নি ।

নুরুজ্জামান মানিক
*******************************************
বলে এক আর করে আর এক যারা
তারাই প্রচণ্ড বাঁচা বেঁচে আছে দাপটে হরষে
এই প্রতারক কালে (মুজিব মেহদী)

নুরুজ্জামান মানিক
*******************************************
বলে এক আর করে আর এক যারা
তারাই প্রচণ্ড বাঁচা বেঁচে আছে দাপটে হরষে
এই প্রতারক কালে (মুজিব মেহদী)

হাসান মোরশেদ এর ছবি

লীলেন ভাইয়ের দরকারী মন্তব্যের সাথে দু পয়সা যোগ করিঃ

আল মাহমুদ কিন্তু এজরা পাউন্ড,শেক্সপিয়ার কিংবা র‌্যাবোর মতো নিরাপদ অতীত হয়ে যাননি এখনো, এখনো তিনি বর্তমানেই অবস্থান করছেন এবং তার এই অবস্থান একজন নিরীহ কবির নয়, তার বর্তমান অবস্থান বিপদজনক ।

বিপদজনক কাদের জন্য? অবশ্যই আমাদের জন্য । অস্বীকার করার তো কোন সুযোগ নেই যে, 'আমরা' এবং 'তারা' এখনো ক্রিয়াশীল । এবং আল-মাহমুদ 'তাদের' শিবিরে যোগ দিয়েছেন স্বেচ্ছায় তার অনেক পুরনো কমরেডদের মতোই (তালিকা দীর্ঘায়িত না করে শুধু গনকন্ঠের বিপ্লবী সম্পাদক আফতাব আহমেদের কথাই বলি, যিনি শেষপর্যন্ত জাতীয় সংগীত পরিবর্তনের দাবী করেছিলেন) । শেখ মুজিব তাদের বিরুদ্ধে লালঘোড়া দাবড়িয়েছিলেন, সেই লালঘোড়ার শক্তি এতো জোর ছিলো সমাজতান্ত্রিক বিপ্লবীগন ইউটার্ন ঘুরে একেবারে জামাতী ছাড়পোকা! হ্যাঁ এর জন্য শেখ মুজিবকে দায়ী করা যেতেই পারে ।

যা হোক- যা বলতে চাইছিলাম,
শত্রু আছে বলেই শত্রুর বন্ধুদের ও চিনে নেয়া জরুরী । এই জায়গায় আমরা উদার হতে গিয়ে পিঠে ছুরি খাই । সোনালী কাবিনের আল-মাহমুদের আমি যতো ভক্তই হই, আজ তার প্রশংসায় উদার হতে গেলে সেই প্রশংসা শেষ পর্যন্ত জমা হয় গিয়ে ঐ পোষ্যদালালের ঝুলিতে যে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রসংগ্রাম পরিষদের সাথে সংঘর্ষে শিবিরের ছেলেপেলে মারা গেলে তাদেরকে 'শহীদ' আখ্যা দিয়ে কবিতা লেখে ।

আর তার সততা?
তাকে যখন বাংলাদেশের একমাত্র অস্ত্রহাতে মুক্তিযোদ্ধা বলে প্রচার করে তারই বর্তমান জামাতী চামুন্ডারা তখন তিনি এর প্রতিবাদ করেন না বরং বেশ শ্লেষের সাথেই আংগুল তুলেন রাহমান ও অন্য যারা সে সময় দেশ ছেড়ে যাননি ।

তবু ধরে নেই এই ভদ্রলোক মুক্তিযোদ্ধা এবং বিরাট বিপ্লবী ছিলেন কিন্তু তার এই থাকাকে তিনি নিজেই কবর দিয়ে দেননি? শিবিরের নিহত সদস্যকে যে 'শহীদ' আখ্যা দেয়, ছাত্রসংঘের হাতে নিহত বুদ্ধিজীবিকে ও কি সে 'শহীদ' বলবে? নাকি মুক্তিযোদ্ধাদের হাতে নিহত ছাত্রসংঘের তৎকালীন কোন সদস্যকেই সে 'শহীদ' তালিকায় টেনে নেবে?

দুঃখিত আমি বড় সংকীর্ন এইসব ভাবনায় ।
-------------------------------------
"শিয়রের কাছে কেনো এতো নীল জল? "

-------------------------------------
জীবনযাপনে আজ যতো ক্লান্তি থাক,
বেঁচে থাকা শ্লাঘনীয় তবু ।।

আরিফ জেবতিক এর ছবি

হা : হা : হা: !
এইমাত্র এক সচল পাঠক ফোনে জানতে চাইলেন ,লীলেন ভাইয়ের মাথায় পিস্তলটা কি আমি ধরেছিলাম ?

নারে ভাই , যদিও আমি ছাত্রদল করতাম এবং পিস্তল টিস্তল বয়ে বেড়াতাম বলে ঐ পাঠক সেটাকে আমার সাথে মিলিয়ে ফেলেছেন , কিন্তু ঐটা আমার কম্মো না । লীলেন ভাইদের সাথে আমাদের সদা সুন্দর সম্পর্ক । হাসি

----------------------------
কালের ইতিহাসের পাতা
সবাইকে কি দেন বিধাতা?
আমি লিখি সত্য যা তা,
রাজার ভয়ে গীত ভনি না।

হাসান মোরশেদ এর ছবি

এহহে কমরেড লীলেন এ কি করলেন?
ঠাকুর ঘরে কে কে যাইনি আমরা, এবার তো তার তত্বতালাশ হয়ে যাবে চোখ টিপি
-------------------------------------
"শিয়রের কাছে কেনো এতো নীল জল? "

-------------------------------------
জীবনযাপনে আজ যতো ক্লান্তি থাক,
বেঁচে থাকা শ্লাঘনীয় তবু ।।

মাহবুব লীলেন এর ছবি

আহারে আরিফ
সচলায়তনের সরলচিন্তা সমিতির খপ্পরে তুমিও পড়লে শেষ পর্যন্ত?
কিছুদিন আগে আমি একটা পোস্টে কোথাও মন্তব্য করেছিলাম যে আমি মারা গেছি
এই সরল সমিতির একজন আমাকে ফোন করে জানতে চেয়েছিলেন সত্যি সত্যি আমি মারা গেছি কি না

আমি বলতে ভুলে গেছিলাম সেই কমরেড একজন অতিথি সচল
মাঝে মাঝে উকি দেন...

তার নাম পরিচয় জানাতে চাচ্ছি না কারণ তার বর্তমান চিন্তাগুলো অনেক বেশি সমৃদ্ধ এবং তিনি সেই সময়টাকে একসিডেন্ট হিসেবেই দেখেন

আমিও বিশ্বাস করি সেটা ছিল একটা একসিডেন্ট

তবে পিস্তল কাহিনী নিয়ে উপন্যাস লেখার পরে সব পিস্তলের নলই যে আরিফের দিকে ঘুরে যায় এটা শুনে বেশ মজাই লাগছে
একটু সাবধানে থেকো
পরে না কোনদিন সিরাজ সিকদার হত্যার দায়ে তোমাকে কেউ সন্দেহ করে বসে...

আরিফ জেবতিক এর ছবি

হা : হা : হা : ।
সিরাজ সিকদার যদি এমন কোন মন্তব্য করে বসেন যেটা কনফিশন সৃষ্ঠি করবে , তাহলে তো দায় নিতে হবেই । কারন সিরাজ সিকদারের তো উপায় নেই এসে সেটা শুধরে দিবেন ।

ঠিক নিচের দুইটি কমেন্টে দেখা যাচ্ছে , সরল চিন্তার সচলের মাঝে দুইজন জানিয়েই দিয়েছেন যে তারা এই অধমকেই যাবতীয় কুকান্ডের হোতা মনে করেছিলেন ।

অতিথি সচল হিসেবে সেই বিপ্লবী ছাত্রদল নেতাকে স্বাগত জানাইলাম । নাম না শুনলেও চলবে , উনার বর্তমান চিন্তাধারা সমৃদ্ধ হলে , সেটা আর কারো না হোক ,উনার জন্য যে উপকারী হয়েছে , সেটা বলা যায় । হাসি

-----------------------------
কালের ইতিহাসের পাতা
সবাইকে কি দেন বিধাতা?
আমি লিখি সত্য যা তা,
রাজার ভয়ে গীত ভনি না।

সবজান্তা এর ছবি

ঈমানে কই ভাই, আমি নিজেও ভাবসিলাম এইটা আপনে মন খারাপ


অলমিতি বিস্তারেণ

কিংকর্তব্যবিমূঢ় এর ছবি

আমিও ... গ্রেট মাইন্ডস থিংক এলাইক দেঁতো হাসি
...............................................................................
objects in the rear view mirror may appear closer than they are ...

আরিফ জেবতিক এর ছবি

কানে কানে কই , আমিও প্রথমে এমন ভাবছিলাম । হাসি

অছ্যুৎ বলাই এর ছবি

সময়ের সাথে সাথে মানুষের অনেক কিছু পালটায়; কিন্তু ব্যক্তিত্বের 'মৌলিক' বিষয়গুলো সাধারণত পালটায় না। একাত্তরের একজন প্রকৃত মুক্তিযোদ্ধা আর যা-ই করুক, জামাতকে মাথায় তুলতে পারে না।

A+ লেখা।

---------
চাবি থাকনই শেষ কথা নয়; তালার হদিস রাখতে হইবো

পুতুল এর ছবি

ব্লগের একাডেমিক আলোচনায় একটু দূরে থাকি, পাছে নিজের মূর্খতা ধরা পরে যায় এই ভয়ে। আর আলোচনা করে লাভই বা কী! আমাদের দেশে আমরা সবাই কথায় বড় এম্নিতেই।
কথায় কথা বারে,
ঘিতে বারে বল,
দুধে চন্দ্র বারে,
শাকে বারে মল।
আর এ মল বারার ভয়ে আমি শাক খাওয়াইতে চাইনা কাউকে।
কিন্তু আজকের আলোচনায় একটু নাক গলাতে ইচ্ছে করছে। প্রসংগ কবি আল মাহমুদের মুক্তি যুদ্ধে অংশগ্রহন।
আমি নিতান্তই মূর্খ মানুষ। এত পড়ালেখা আমার নাই যে কবিতা বা সাহিত্য নিয়ে কিছু বলতে পারি। সত্যি বলতে কি, এসব ভাল বুঝিও না।
কিন্তু আমার মনে হয়; কবি বা লেখকদের একটা সামাজিক দায়ীত্ব থাকে। একজন কবি বা লেখককে মানুষের কবি হতে হয়। কবি বা লেখকরা একটা সামাজিক রীতি-নীতির ভেতরে থেকেই সে সমাজের রীতি-নীতির ত্রুটি-বিচ্যুতির ব্যবচ্ছেদ করতে হয়। সে সমাজের সংস্কার তাদের দায়ীত্বের ভেতর নয়। কাজেই তাদের "দাস ক্যাপিটল" লিখতে হবে এমন কোন কথা নেই।
ধরা যাক তুর্কী লেখক "অরহান পামুক" যদি তার জাতির জয় গাঁথাই রচনা করে যেতেন: তাদের সমালোচনা না করে, তাহলে তাকে বিশ্ববাসী চিনতো কখনোই! হয়তো চিনতো, হয়তো চিনতো না। কিন্তু তিনি তার দেশের মানুষের অনাচারের কথা লিখেছেন। এক রকমের সত্য তুলে ধরা।
টিন ড্রামের লেখক গুন্টার গ্রাস কম পক্ষে একশ সাংবাদিকের সামনে দাড়িয়ে বলেছে; "আমি আমার অর্থলিপ্সু জাতির জন্য লজ্জিত"।
তারো আগে আরেক জার্মান কবি "শিলার" রাজ দন্ডের সমালোচনা করে প্রাণের ভয়ে পালিয়েছেন। তাও বন্ধুরা অনেকটা জোর করে তাকে রাজ্য ত্যাগে বাধ্য করায়।
কিন্তু সব কবি তা করবেন কেন? কথা উঠে যখন তিনি কিছু না করেও তার থেকে কোন প্রাপ্তি আদায় করেন। যেমন করছেন আল মাহমুদ, নিজেকে স্বসস্ত্র মুক্তিযোদ্ধা বানিয়ে। তা করুন, তাতে দোষের কিছু নেই। তা হলে আমাদের বলার অধিকার থাকতে হবে; যদি কবিতা একটা নান্দনিক ব্যাপার হয়, এবং আমরা পড়ে মজা পাই, সেখানে আনন্দ দানই মূখ্য। সেটা তো অনেক বারবনিতারাও দিতে পারে যা অনেক আনন্দ দায়ক। তা হলে (আল মাহমুদের মত) কবিকে বারবনিতা-র থেকে বেশী সম্মান/সম্মানী কেন দেব!

**********************
কাঁশ বনের বাঘ

**********************
ছায়াবাজি পুতুলরূপে বানাইয়া মানুষ
যেমনি নাচাও তেমনি নাচি, পুতুলের কী দোষ!
!কাশ বনের বাঘ!

স্পর্শ এর ছবি

আপনার আরো অনেক লেখার মত এটাকেও গুরুত্বপূর্ণ লিঙ্ক হিসেবে রেখে দিলাম। অনেক প্রশ্নের উত্তর পেলাম মূল পোস্ট এবং মন্তব্যের মাধ্যমে।
ধন্যবাদ।
....................................................................................
অতঃপর ফুটে যাবার ঠিক আগে হীরক খন্ডটা বুঝলো, সে আসলে ছিল একটা মামুলি বুদবুদ!


ইচ্ছার আগুনে জ্বলছি...

ঝরাপাতা এর ছবি

এই লেখাটার জন্য আরিফ ভাইরে কি পুরষ্কার দেওন যায় ভাবতাছি... আপাতত স্যালুট দিলাম....


যে রাতে গুঁজেছো চুলে বেগুনি রিবন বাঁধা ভাট,
সে রাতে নরকও ছিলো প্রেমের তল্লাট।
. . . . . . . . . . . . . . . . . . (আবু হাসান শাহরিয়ার)


বিকিয়ে যাওয়া মানুষ তুমি, আসল মানুষ চিনে নাও
আসল মানুষ ধরবে সে হাত, যদি হাত বাড়িয়ে দাও।

অমি রহমান পিয়াল এর ছবি

স্বাধীনতা বিরোধী জামাত-শিবিরের নানাধরণের উজবুকি প্রোপোগান্ডার একটা বড় অনুষঙ্গ ছিলেন আল মাহমুদ। আরিফ জেবতিককে ধন্যবাদ অসাধারণ একটি কাজ করার জন্য। অসাধারণ এক দাঁতভাঙা জবাব

(উকিল বাবা, জব্বর হইছে কইলাম)


তোর জন্য আকাশ থেকে পেজা
এক টুকরো মেঘ এনেছি ভেজা
বৃষ্টি করে এক্ষুনি দে তুই
বৃষ্টি দিয়ে ছাদ বানিয়ে শুই


তোর জন্য আকাশ থেকে পেজা
এক টুকরো মেঘ এনেছি ভেজা
বৃষ্টি করে এক্ষুনি দে তুই
বৃষ্টি দিয়ে ছাদ বানিয়ে শুই

অমি রহমান পিয়াল এর ছবি

স্বাধীনতা বিরোধী জামাত-শিবিরের নানাধরণের উজবুকি প্রোপোগান্ডার একটা বড় অনুষঙ্গ ছিলেন আল মাহমুদ। আরিফ জেবতিককে ধন্যবাদ অসাধারণ একটি কাজ করার জন্য। অসাধারণ এক দাঁতভাঙা জবাব

(উকিল বাবা, জব্বর হইছে কইলাম)


তোর জন্য আকাশ থেকে পেজা
এক টুকরো মেঘ এনেছি ভেজা
বৃষ্টি করে এক্ষুনি দে তুই
বৃষ্টি দিয়ে ছাদ বানিয়ে শুই


তোর জন্য আকাশ থেকে পেজা
এক টুকরো মেঘ এনেছি ভেজা
বৃষ্টি করে এক্ষুনি দে তুই
বৃষ্টি দিয়ে ছাদ বানিয়ে শুই

লুৎফুল আরেফীন এর ছবি

... ...
আমার প্রথম প্রিয় পোস্টে সংযুক্তি ঘটলো লেখাটির।
লেখা এবং মন্তব্য -- দুটোতেই আমার মতোন পাঠকের জন্য যথেষ্ট উপাদান রয়েছে হাসি

বিশেষ ধন্যবাদ আরিফ ভাই আর লেলিন ভাইকে।

___________________________
বুড়োরা সবাই সমস্বরে বললো, "নবজন্ম", আমি চাইলাম "একটা রিওয়াইন্ড বাটন"

শিক্ষানবিস এর ছবি

অতি গুরুত্বপূর্ণ পোস্ট। এই পোস্ট কোনদিন গুরুত্ব হারাবে না।

নুরুজ্জামান মানিক এর ছবি

এখানে আল মাহমুদের উপর আলোনায় কবিদের রাজনীতি বিষয় এসেছে তাই বিনী্ত ভাবে বলছি -

এই সচলায়তনে আমার প্রথম ব্লগ ছিল -"কবি ও রাজনীতি"

নুরুজ্জামান মানিক
************************************

বলে এক আর করে আর এক যারা
তারাই প্রচণ্ড বাঁচা বেঁচে আছে দাপটে হরষে
এই প্রতারক কালে (মুজিব মেহদী)

নুরুজ্জামান মানিক
*******************************************
বলে এক আর করে আর এক যারা
তারাই প্রচণ্ড বাঁচা বেঁচে আছে দাপটে হরষে
এই প্রতারক কালে (মুজিব মেহদী)

রূপক কর্মকার এর ছবি

অসাধারণ বিষয়! প্রাঞ্জল গদ্য। কবি আল মাহমুদের নষ্টতার নতুন দলিল। আরিফ জেবতিক ভাইকে ধন্যবাদ। 'মিথ্যেবাদী রাখাল'নামে একটি বই আছে এই কবির। যতবারই বইটির নাম মনে পড়ে, আল মাহমুদের মুখ ই ভেসে ওঠে চোখে। সম্প্রতি মৃণাল বসু চৌধুরীর সঙ্গে যৌথভাবে লেখা পত্র-আখ্যান '‌নৈঃশব্দ্যের ডাকঘর'এ আল মাহমুদ সম্পর্কে আবু হাসান শাহরিয়ারের মূল্যায়ন : " আল মাহমুদের কবিতা নিয়ে কেউ কেউ বেশি আদিখ্যেতা দ্যাখান। আমার মতে তিনি মিডিয়োকার পোয়েট। বড় কবিরা জাত, ধর্ম, রাষ্ট্রসহ সব ধরনের বর্গ ভেঙে বেরিয়ে আসতে পারেন। আল মাহমুদ সেটা পারেননি।" আমি কবি আবু হাসান শাহরিয়ারের সঙ্গে সম্পূর্ণ একমত। এখানেই আল মাহমুদের চেয়ে শামসুর রাহমান অনেক বড়।
.................................................................................
"নোবেল-বুকার নিয়ে এত কেন ফুর্তি করে বোকা পাঠকেরা?/মিডিয়ার উলুবনে সবই যেনতেনপ্রকারেণ।/প্রাচ্যের পদক হাতে স্নানে যায় বনলতা সেন।" -আবু হাসান শাহরিয়ার

____________________________
বন্ধুত্ব মানেই তুমি বিচ্ছেদের চুক্তি মেনে নিলে
[আবু হাসান শাহরিয়ার]

অতিথি লেখক এর ছবি

শপথ করে বলছি পিস্তল ঠেকানো ঘটনার সাথে সাথে আমার মাথায় সিনেমা চালু হয়েছিলো।
লীলেন ভাই প্রতিবাদী নায়ক আর ভীলেন আরিফ ভাই।
মাফ করে দিও আরিফ ভাই।
আর একজন কবি কে শুধু তার কাব্য দিয়ে কি করে বিচার করা যায় ?
অসম্ভব।

-বহতা
-নাহিদ পারভেজ বাবু

রাজিব মোস্তাফিজ এর ছবি

অনেকদিন পর পোস্টটা চোখে পড়ল। অসাধারণ একটি পোস্টের জন্য আরিফ ভাইকে এবং ঋদ্ধ মন্তব্যের জন্য অন্য সবাইকে কৃতজ্ঞতাটুকু জানিয়ে যাই।
রাজিব মোস্তাফিজ

অতিথি লেখক এর ছবি

খুব ভাল এই লেখাটা একটু দেরিতেই চোখে পড়ল ।
এই লেখাটা সাধারণ মানুষের পড়া দরকার ।

বোহেমিয়ান

অতিথি লেখক এর ছবি

আরিফ ভাই, লেনিন ভাই এবং অন্যান্যদের কাছ থেকে অনেক গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে জানতে পারলাম। সাধারণ ভাবনা থেকে বলিঃ ভালো কাজ করার পর খারাপ কিছু একটা করলে আগের ভালোটা ধুয়ে মুছে যায়। কিন্তু খারাপের পর ভালো কাজ করলেও খারাপটাই মাথা উঁচু করে দাঁড়িয়ে থাকে।

রাতঃস্মরণীয়

ধৈবত(অতিথি) এর ছবি

পোস্ট করার প্রায় তিন বছর পর লেখাটা পড়লাম। এককথায় অসাধারণ। অনেক কিছু জানা হল

তারাপ কোয়াস এর ছবি

এ পোষ্টের গুরুত্ব কখনোই কমবে না।


love the life you live. live the life you love.

সাজ্জাদ সাজিদ এর ছবি

পোস্ট, মন্তব্য--এই আলোচনা গুরুত্ব হারাবে না।

নিটোল এর ছবি

এতোদিন পার হলো, কিন্তু আজো প্রাসঙ্গিক লেখাটা! আরিফ ভাইকে ধন্যবাদ।

_________________
[খোমাখাতা]

কল্যাণ এর ছবি

খুব জরুরী পোস্ট। মন্তব্যে আলোচনা পোস্টকে আরো গুরুত্বপূর্ণ করে তুলেছে।

প্রতিভাবান বা কালজয়ী বা সর্বশ্রেষ্ঠ আল মাহমুদ যাই হোক, স্বাধীনতা বিরোধীদের পক্ষে তার অবস্থান এবং মুক্তিযুদ্ধে তার অংশ গ্রহনের প্রপাগান্ডায় নিরব সমর্থনের পাওনা নিখাদ ঘৃণা। সঠিক ইতিহাস রেফারেন্স সহ লিখিত থাকার দরকার আছে। যদি আল মাহমুদ ট্রেন্ড এই রকম হয়, তাহলে আগামীতে ভিন্ন কোন প্রেক্ষাপটে তার নতুন চরিত্রের দেখা পাওয়ার শতভাগ সম্ভাবনা আছে। তখন হয়ত আজকের সব কিছু মুছে দিতে অনেকেই তৎপর হয়ে উঠবে, সুতরাং এই লেখা মন্তব্যই তখন দলিল হয়ে থাকবে।

শেখ মুজিব ও বাকশালের অত্যাচার আল মাহমুদকে অন্য শিবির সরিয়ে নিয়ে গেছে, এটা কারণ হিসেবে খুব দুর্বল। এটাকে কারণ হিসেবে আল মাহমুদের পালটি খাওয়ার সাফাই দিতে গেলে তখন প্রশ্ন আসে যদি যেতেই হয় তাহলে শুধু মাত্র বাংলাদেশের স্বাধীনতার বিরুদ্ধ পক্ষই পাওয়া গেলো? সমকালীনরা কি তার সাথে একি শিবিরের তলায় আশ্রয় নিয়েছে? তার চেতনা বা বিবেক তখন কৈ ছিল? তাহলে কি অন্য শিবিরে যোগদান কোন আদর্শগত অবস্থান থেকে নয় বরং ব্যাক্তিগত সুবিধা হাসিলের জন্যেই? তাহলে স্মাওনে কি আবার অবস্থানগত পরিবর্তন দেখা যাবে?

আল মাহমুদের রাজনৈতিক চেহারা বা মতাদর্শ বিবেচনায় না এনে তার কাব্য প্রতিভার সমাদর করতে হবে এটাও হাস্যকর। আল মাহমুদ নিজে যদি রাজনৈতিক রঙ মেখে লেখালেখি করতে থাকে, কোন রাজনৈতিক গোষ্ঠির সমর্থনে বা কোন রাজনৈতিক গোষ্ঠিকে সক্রিয় সমর্থন দিয়ে যায় তাহলে তার সাহিত্য চর্চার পাশাপাশি তার রাজনৈতিক চরিত্র বিচার অবশ্যই করতে হবে।

একটা দেশ, জাতি ও ভাষার শ্রেষ্ঠ বা স্মরণীয় হতে হলে শুধুমাত্র সেই ভাষায় অবদানের পরিমাপই যথেষ্ট নয়, সেই দেশ ও জাতির জন্যে অবদান ও অবস্থানটাও বিবেচনা করার দরকার আছে।

শুধু একাত্তর সালে রাজাকার ছিল তাই অপরাধী নাকি রাজাকারদের অতীত-বর্তমান পৃষ্ঠপোষকরাও অপরাধী এই প্রসঙ্গে নতুন করে তর্ক করার প্রয়োজনীয়তা ফুরিয়েছে বহু আগেই, কিন্তু এই সব কর্মকান্ডের লিখিত দলিল থাকার প্রয়োজনীয়তা বেড়ে যাচ্ছে দিনকে দিন।

______________
আমার নামের মধ্যে ১৩

মাসুদ সজীব এর ছবি

চলুক চলুক

-------------------------------------------
আমার কোন অতীত নেই, আমার কোন ভবিষ্যত নেই, আমি জন্ম হতেই বর্তমান।
আমি অতীত হবো মৃত্যুতে, আমি ভবিষ্যত হবো আমার রক্তকোষের দ্বি-বিভাজনে।

মাসুদ সজীব এর ছবি

১।

আমাদের দুর্ভাগ্য আমরা রাজনীতিবিদদের বিচার করি পরিবারের ইতিহাস দিয়ে আর কবিদের বিচার করি তার রাজনীতি দিয়ে

প্রথম কথা সেই কবি-ই যখন নিজেকে জড়ান রাজনীতির সাথে তখন কি তার রাজনীতি নিয়ে কথা বলা যাবে না। সেই রাজনৈতিক বিশ্বাস তো তার লেখায়ও এসেছে তাহলে কেন সেটা বিচার করা যাবে না। আর রাজনীতির সাথে যদি আমাদের স্বাধীনতা যুদ্ধ, মুক্তিযুদ্ধ থাকে, নিজের পূর্ব পুরুষের অস্তিত্ব জড়িয়ে থাকে তাহলে কি সেটা বিচার যোগ্য নয়? আপনার কথা যদি মেনে নেই তাহলে খেলার সাথেও রাজনীতি মিশানো যাবে না, পাকিস্তানের পতাকা উড়ানোও ঘৃনিত অপরাধ হবে না।

২।

শেখ মুজিব বাংলাদেশ বানিয়ে বাংলাদেশের অনেক কিছুই নষ্ট করে দিয়েছেন। তার মধ্যে আল মাহমুদও একজন

অনেক কিছু কি নষ্ট করেছেন বলতে আসলে কি বুঝালেন সেটার তালিকা চাইছি না, কিন্তু আল মাহমুদ কে কিভাবে নষ্ট করেছেন সেটা জানতে চাইছি। প্রাপ্ত বয়স্ক একজন লোক নষ্ট হলে তাতে অন্যের উপর কতটুকু দোষ দেওয়া যায় সে প্রশ্নও থাকছে। আপনার অবগতির জন্যে বলি, আল মাহমুদ শেখ মুজিবের বাকশালেও যোগ দিয়েছিলেন, শেখ মুজিবের দেওয়া চাকরিও করেছেন দীর্ঘদিন। আর শেখ মুজিব কতটুকু নষ্ট করেছেন আল মাহমুদ কে সেটার বিস্তারিত লিখেছেন নজু ভাই এই পোষ্টে

৩।

মুক্তিযোদ্ধাদের হত্যার উৎসব কিন্তু শেখ মুজিবই শুরু করেছিলেন
ক্রস ফায়ার শুরুর কৃতিত্ব মুজিবের

কোথায় কিভাবে শেখ মুজিবুর রহমান মুক্তিযুদ্ধাদের হত্যায় মেতেছেন জানতে পারলে সুবিধা হতো।

৪।

আমরা শুধু বিচারের লাঠি হাতে দৌড়াই নিরীহ এক কবি আল মাহমুদের পেছনে

নিরীহ বলতে আসলে কি বুঝালেন? তিনি কারো আগে-পিছে নেই এমন? আল মাহমুদ নিরীহ কিংবা দলহীন/গোষ্ঠির বাহিরে কোন মানুষ নয়।তিনি জামায়তের পৃষ্ঠপোষকতায় একজন কবি। তিনি জামাতের গুণগান গান, তাদের বন্দনা করেন। একটা সাম্প্রদায়িক দলের পক্ষে অবস্থান নেওয়া মানুষ কি করে নিরীহ হয়?

৫।

আল মাহমুদকে আমি তার সাহিত্য দিয়েই বিচার করতে চাই
না জামাতের রাজনীতি দিয়ে
না আওয়ামীলীগের মুক্তিযুদ্ধ ব্যবসা দিয়ে

এ মন্তব্যটি যথেষ্ট আপনার অভিব্যক্তি বুঝতে। প্রথম কথা জামাতপ্রীতির কারণে আল মাহমুদের নিন্দা করলে সেটা মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে ব্যবসা হয়ে যায় না। আওয়ামীলীগ মুক্তিযুদ্ধের ব্যবসা করে এটা অতি সরলীকরণ হয়ে গেলো।

আপনার সম্পূর্ণ মন্তব্যে আপনি অপ্রাঙ্গিক ভাবে শেখ মুজিব কে টেনে এনেছেন এবং বার বার ঢালাও মন্তব্য করেছেন। আল মাহমুদ নষ্ট হওয়া সহ বাংলাদেশের পশ্চাৎমুখী চলার জন্যে একমাত্র শেখ মুজিবুর রহমান কে দায়ী করেছেন। অথচ স্বাধীনতার পর বেশিরভাগ সময় ক্ষমতায় ছিলো জিয়া-এরশাদ এবং খালেদা-নিজামীরা। তাদের কে নিয়ে একটা বাক্যও প্রয়োগ করলেন না। বাংলাদেশকে পেছনের দিকে ঠেলে দিতে এদের কারো কোন অবদান নাই। আপনার মন্তব্য দু:খজনক এবং বর্জনীয়।

-------------------------------------------
আমার কোন অতীত নেই, আমার কোন ভবিষ্যত নেই, আমি জন্ম হতেই বর্তমান।
আমি অতীত হবো মৃত্যুতে, আমি ভবিষ্যত হবো আমার রক্তকোষের দ্বি-বিভাজনে।

সাক্ষী সত্যানন্দ এর ছবি

প্রিয় মাসুদ সজীব,
এই সুদীর্ঘ মন্তব্যটি সম্ভবতঃ লীলেনদার মন্তব্যের জবাব। কোনও যান্ত্রিক দুর্বলতায় এখানে চলে এসেছে। সম্ভব হলে যায়গামত আবার যোগ করে দিন।

আল মাহমুদকে আমি তার সাহিত্য দিয়েই বিচার করতে চাই
না জামাতের রাজনীতি দিয়ে
না আওয়ামীলীগের মুক্তিযুদ্ধ ব্যবসা দিয়ে

এই প্রসঙ্গে নজরুল ভাইয়ের সাম্প্রতিক প্রবন্ধে রানাপা'র মন্তব্যের অংশবিশেষ প্রাসঙ্গিকঃ

লজ্জ্বা লাগে ভাবতে সাহিত্যের নামে আমরা এত অন্ধ হয়ে যাই, এর মধ্যে জামাত দেখিনা। এই লোক যেমন ঘাস খেয়ে জামাত করেনা তেমনি জামাতও কাব্যপ্রেমে অন্ধ হয়ে তাকে মাথায় তুলে রাখেনা। এই একটা লোককে দিয়ে জামাতের যতটা পাপশুদ্ধি হয়, জামাতের যতটা রিক্রুট হয়, জামাত যতটা মূল্ধারায় আসতে পারে বিশটা নিবেদিত জামাতের কর্মী দিয়েও অতটা হয়না।

আমাদের কবি এবং কাব্যপ্রেমী বন্ধুরা ভুলে যান, পাকিস্তানের খেলা কিংবা কাপড় ভালোবেসে যেমন পক্ষান্তরে পাকিস্তান নামের রাষ্ট্রকেই লেভারেজ দেয়া হয়, আল মাহমুদের কাজও সেটা। জামাতকে কবিতার মোড়কে মানুষের কাছে গ্রহণযোগ্য করে তোলা।

এই প্রসঙ্গে একই উৎসের এই কথাগুলোও বলা যায়ঃ

একটা পরিনত বয়স্ক, মুক্তিযুদ্ধ জানা দলকে এইসব বাচ্চাদের ধারাপাত শোনাতে ক্লান্ত লাগে, অসহায় লাগে। তারা ক্লান্ত হয়না। তারা জামাত দেখেনা। সাহিত্য দেখে। এই ক্লান্তিকর যাত্রা হয়তো কোনদিন শেষ হবেনা। ৫০ বছর পর জামাত বলবে দেখ আমাদের দলে যুদ্ধাপরাধী নেই, রগ কাটার মতো কেউ নেই, শুধু কবিতা আছে; সোনালী কবিতা।

ঐ পোস্টেই শ্রদ্ধেয় ষষ্ঠ পাণ্ডব এই নিরীহ (!) কবির জামায়াত সংযোগের সময়কাল নিয়ে আলোকপাত করেছেন, যেটা খুব সাম্প্রতিক না। এর পরেও কেউ তাকে নিরীহ ভাবতে চাইলে কিছু না বলাই ভাল। পান্ডবদা'র ঐ মন্তব্যের শেষ বাক্যটি এক নিদারুন সারসংক্ষেপ। এর ওপর কথা নাই।

কেবল, একটা যায়গায় মাহবুব লীলেন এঁর সাথে আমিও একমত-

ইতিহাসকে ইতিহাসের জায়গায় রেখেই বর্তমানটাকে বিচার করা উচিত

____________________________________
যাহারা তোমার বিষাইছে বায়ু, নিভাইছে তব আলো,
তুমি কি তাদের ক্ষমা করিয়াছ, তুমি কি বেসেছ ভালো?

স্যাম এর ছবি

দারুন ব্লগ! 'মনের মুকুরে' আমার এখন সবচেয়ে পছন্দের বিভাগ - কিন্তু এমন কোন পেজ কি করা যায় যেখানে সচলায়তনের গুরুত্বপূর্ণ পোস্টগুলো একসাথে পাওয়া যেতে পারে?! নতুন যারা পড়বে বা হাচল/ সচল হবে তাদের কথা ভেবে আমার মনে হয় কিছু একটা ব্যবস্থা রাখা উচিত।

আব্দুল্লাহ এ.এম. এর ছবি

বহুদিন পর প্রাসঙ্গিক এক সময়ে এই অতি গুরুত্বপূর্ন ব্লগটিকে পাঁচতারা দেগে গেলাম।

এক লহমা এর ছবি

আম্মো!

--------------------------------------------------------

এক লহমা / আস্ত জীবন, / এক আঁচলে / ঢাকল ভুবন।
এক ফোঁটা জল / উথাল-পাতাল, / একটি চুমায় / অনন্ত কাল।।

এক লহমার... টুকিটাকি

নতুন মন্তব্য করুন

এই ঘরটির বিষয়বস্তু গোপন রাখা হবে এবং জনসমক্ষে প্রকাশ করা হবে না।