শিশুপালন-১০

তাসনীম এর ছবি
লিখেছেন তাসনীম (তারিখ: বিষ্যুদ, ১১/০৮/২০১১ - ১২:২০পূর্বাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

আর উই দেয়ার ইয়েট?

মার্কিনদেশে শিশুপালন করতে গেলে এই অভিজ্ঞতার মধ্যে দিয়ে সবাইকেই যেতে হয়। এটা এক বিশাল দেশ। এই মাথা থেকে ওই মাথা পর্যন্ত সারা দেশে মুড়িয়ে রেখেছে এরা চমৎকার সব রাস্তা দিয়ে। বিমানযাত্রার খরচ বাঁচাতে এই রাস্তাগুলো দিয়ে হাজার হাজার মাইল পাড়ি দেন বহু বহু পরিবার। সমস্যা হচ্ছে বাচ্চাগুলোকে নিয়ে। হাজার মাইলটা যে আসলে কি জিনিস সেটা বোঝানো বড় দায়। ধরা যাক হিউস্টনে যাচ্ছি, শহর থেকে রওনা দিলাম শুক্রবার বিকাল সাড়ে পাঁচটায়, হাইওয়েতে ওঠে ঘড়ির দিকে তাকিয়ে দেখলাম পাঁচটা চল্লিশ...

“আব্বু, আর উই দেয়ার ইয়েট?”
“না - মা - একটু সময় লাগবে...”
“কতক্ষণ আব্বু?”
“থ্রি আওয়ার্স...”
“ইজ থ্রি আওয়ার লং অর শর্ট?”

তিনঘন্টা বেশি না কম সেই প্রশ্নের আজও সমাধা হয় নি। পরীক্ষার হলে বসলে এই তিনঘন্টাই অনেক লম্বা সময় মনে হয় আবার ডেটিং করতে গেলে এই সময়টা চোখের পলকেই চলে যায়। কী বলা যায়?

যাত্রাপথকে আনন্দময় করার জন্য গাড়িতে ডিভিডি প্লেয়ার আর ছবি চালিয়ে দেওয়া হয়। ডিজনির কার্টুন আর গানের বিস্ময়ও বেশিক্ষণ মনোযোগ ধরে রাখতে পারে না। বাইরের শোভা বলতে কিছুই নেই এই মুল্লুকে, থাকলেও শিশুরা তাতে মোটেও আগ্রহী নয়।

“আব্বু আর উই ইন চায়না?”

আকস্মিক এই প্রশ্নে থতমত খেয়ে যাই। আশেপাশে চিনের প্রাচীরের দেখা মিলে গেল নাকি?

“আই স' আ হাউজ উইথ চাইনিজ লেটারস...”
“ওটা একটা চাইনিজ রেস্টুরেন্ট মা।”
“ইজ চায়না ফার আ ওয়ে?”
“ফার ফার আ ওয়ে...”
“আব্বু ইজ ব্রাক ওবামা আ নাইস গাই?”

এই ভদ্রলোককে আমার মোটামুটি “নাইস” বলেই মনে হয়। টি-পার্টি রিপাবলিকানদের ভিন্নমত আছে যদিও।

“ইজ হি ফ্রেন্ড উইথ জর্জ ওয়াশিংটন?...জাপানে কেন আর্থ কোয়েক হয়েছে?...দাদাভাই কেন বাংলাদেশ থাকে?...হোয়াই ডোন্ট উই লিভ ইন ওয়াশিংটন ডিসি?”

প্রশ্নের পর প্রশ্ন আসতে থাকে। আমি আবারও বুঝতে পারি তিন ঘন্টা কতো লম্বা সময়। এতে একশো আশিটা মিনিট আছে, দশ হাজার আটশো সেকেন্ড আছে...হায় ঈশ্বর...পথটা এতো লম্বা কেনে? ঘড়িতে বাজে সবে মাত্র ছয়টা পঁয়ত্রিশ।

“এতো বকর বকর কেন? চুপ করে বসে থাক সবাই...বিশ মিনিট পরে আমরা একটা ম্যাকডোনাল্ড'স থামবো...সেখানে বাথরুম আর স্ন্যাক্স, এর আগে পর্যন্ত একটা শব্দও যেন না শুনি...ওকে?” হুঙ্কার দিয়ে সিদ্ধান্তটা জানিয়ে দেন গিন্নি।

এরপর একটু উশখুশ শব্দ আর গান আর প্রচুর অনুচ্চারিত জিজ্ঞাসার ভেতর দিয়ে আমরা ম্যাকডোনাল্ডস পৌঁছে যাই।

“আম্মু ইজ নট নাইস...” ফিসফিস করে মেয়েরা আমাকে জানিয়ে দেয়।

সেটা না হয়ে উপায় আছে? প্রশাসন চালাতে হবে না? জনপ্রিয় শাসক কখনো ভাল শাসক হন না - এর উদাহরন হচ্ছি আমি নিজে। গুড কপ আর ব্যাড কপের মত কঠিন আর কোমলে মিশিয়ে আমরা শিশুপালন চালিয়ে যাচ্ছি। চলে যাচ্ছে মোটামুটি আরকি।

তা আপনাদের শিশুপালনের খবর কী? আর উই দেয়ার ইয়েট?

মমতাঃ

“শোন - মেয়ে কি তোমাদের সাথেই রাতে ঘুমায়?” একটু সন্দেহ মাখা স্বরে ডাক্তার আমাদের জিজ্ঞেস করেন।

আমরা একটু আমতা আমতা করতে থাকি। মেয়েরা দু'জনেই সাথেই ঘুমায়, একদম বাবা-মায়ের মাঝখানে। এইজন্য ঢালাও বিছানা থেকে শুরু করে আরও অনেক “লজিস্টিক সাপোর্ট” আছে আমাদের।

“বাচ্চাদের একবছর বয়েসের মধ্যেই আলাদা ঘরে শোয়াতে হয়।” উনি জানালেন আমাদের। আমরাও জানলাম। উনি আদতে মার্কিনদেশি ডাক্তার নন আর আমরা চেষ্টা করলেও মার্কিনি হতে পারব না। এই ব্যাপারটা নিয়ে কেউই উচ্চবাচ্য করলাম না। সকল জ্ঞানের আধার গুগল মহাশয় ঘেঁটেও জানলাম যে এই বিষয়ে অর্থাৎ বাচ্চারা বাবা-মায়ের সাথে শুতে পারবে কিনা এটা নিয়ে মতভেদ আছে। বৈজ্ঞানিক উপায় শিশুপালনের শ্রেষ্ঠ উপায় হচ্ছে নিজের বুদ্ধিতে কাজ করা। হাজার হোক দু'পাতা বিজ্ঞান তো আমিও পড়েছি।

সেই থেকে বাচ্চাদের নিয়েই শুই। একদম সপরিবারে...এতোবড় খাট নেই দুনিয়াতে তাই ভূমিশয্যা। প্রতিরাতেই বাচ্চাদের সাথে নানান আলাপচারিতা হয়।

“আব্বু আর ইউ গেটিং ওল্ড?”

চিন্তা করে দেখলে শুধু আমি একা নই, এই বিশ্বব্রহ্মাণ্ড প্রতিদিন একটু একটু করে বুড়িয়ে যাচ্ছে। কিন্তু ওর জিজ্ঞাসা সেটা নয়।

“কেনো এটা মনে হলো?”
“তোমার দাড়ি হোয়াইট হয়ে গেছে।”

পৃথিবীর প্রতিটি জিনিসই পেকে যায়, আম-জাম-লিচু-কাঁঠাল, মানুষের বুদ্ধি...আর আমার দাড়ি তো কোন ছার! ওই বেচারা অনেকদিনই “কেচে” ছিল – এখন হয়ত একটু পরিপক্ক হতে শুরু করেছে।

“দাড়ি পেকে গেলে কি হবে মা?”

“তুমি ওল্ড হয়ে যাবে এন্ড ইউ উইল ডাই ওয়ান ডে...” মেয়ের গলা ধরে আসে। “আই উইল মিস ইয়ু আ লট...ইয়ু ক্যান'ট ডাই” এইবার গলাটা প্রায় কাঁদোকাঁদো হয়ে যায়।

রবীন্দ্রনাথের উপর আমার বেজায় রাগ। উনি প্রায় সব কিছুই লিখে ফেলছেন – আমাদের জন্য কিছুই বাদ রাখেন নি। তাই ব্লগ লিখতে গিয়ে আমাদের হিমশিম খেতে হয়। উনি না লিখতে আমিই লিখতাম...

ওরে মোর মূঢ় মেয়ে ,
কে রে তুই, কোথা হতে কী শকতি পেয়ে
কহিলি এমন কথা, এত স্পর্ধাভরে —
‘যেতে আমি দিব না তোমায়' ? চরাচরে
কাহারে রাখিবি ধরে দুটি ছোটো হাতে
গরবিনী, সংগ্রাম করিবি কার সাথে
বসি গৃহদ্বারপ্রান্তে শ্রান্ত ক্ষুদ্র দেহ
শুধু লয়ে ওইটুকু বুকভরা স্নেহ ।

মেয়েই অমরত্বের পথটা বাতলে দিল।

“আব্বু তুমি প্রতিদিন শেভ করবে, তাহলে ইয়ু উইল নেভার হ্যাভ হোয়াইট দাড়ি...তুমি আর ওল্ড হবে না কোনোদিন...উই উইল স্টে টুগেদার ফর এভার...”

আহ আমি জানতামই না বার্ধক্য ঠেকিয়ে রাখা এতোই সহজ। বন্ধু-বান্ধব সব্বাই কেন ক্লিন শেভড থাকেন সেটাও বুঝতে পারি। আপনাদেরকে গোপন বিদ্যাটা জানিয়ে দিলাম। আপনারাও শুভ্র জঙ্গল ছেঁটে অনন্ত যৌবন আবিষ্কার করে ফেলুন। দু'বেলা শেভ করলে গালে মাছি বসলেও পিছলে যাবে (কৃতজ্ঞতা জটায়ু)। আর আমার বাবাকেও জানাতে হবে এটা...তাহলে হয়ত উনিও আর বুড়িয়ে যাবেন না।

কী মজা তাই না?


মন্তব্য

আব্দুর রহমান এর ছবি

আমার যে চুলও পাকা, তার কি হবে?

------------------------------------------------------------------
এই জীবনে ভুল না করাই সবচেয়ে বড় ভুল

তাসনীম এর ছবি

মাথা কামায়ে দেখতে পারেন হাসি

________________________________________
অন্ধকার শেষ হ'লে যেই স্তর জেগে ওঠে আলোর আবেগে...

অপছন্দনীয় এর ছবি

দেঁতো হাসি

তাসনীম এর ছবি

দেঁতো হাসি

________________________________________
অন্ধকার শেষ হ'লে যেই স্তর জেগে ওঠে আলোর আবেগে...

তানিম এহসান এর ছবি

তাসনীম ভাই, আপনার লিটল এনজেলদের জন্য অনেক আদর রইলো! পৃথিবীর বিশাল বিছানায় ওদের মঙ্গলময় যাত্রা হোক! শুভেচ্ছা,

তাসনীম এর ছবি

আপনাকেও ধন্যবাদ।

________________________________________
অন্ধকার শেষ হ'লে যেই স্তর জেগে ওঠে আলোর আবেগে...

সজল এর ছবি

একবার এক বাংলাদেশি ভাইয়ার গাড়িতে তার পরিবারের সাথে তিন ঘন্টার জার্নিতে গিয়েছিলাম, তখন বুঝেছিলাম, এই "আর উই দেয়ার ইয়েট?" প্রশ্নের গুরুত্ব।

অনেক ভালো লাগলো ভাইয়া।

---
মানুষ তার স্বপ্নের সমান বড়

তাসনীম এর ছবি

ধন্যবাদ সজল।

________________________________________
অন্ধকার শেষ হ'লে যেই স্তর জেগে ওঠে আলোর আবেগে...

অনার্য সঙ্গীত এর ছবি

আবার শিশুপালন! অনেক দিন পর দিলেন! দুই পিচকাকে দেখতে চলে আসব দেইখেন মার্কিন মুল্লুকে হাসি

আপনার শব্দ নিয়ে তো আর কিছু বলার নেই! খালি বলে রাখলাম, ধুগো'দার ফাড়াটা কাটলেই আমিও একদিন বাচ্চা-কাচ্চা নিয়ে পোস্ট দিমু!

______________________
নিজের ভেতর কোথায় সে তীব্র মানুষ!
অক্ষর যাপন

তাসনীম এর ছবি

দুই পিচকাকে দেখতে চলে আসব দেইখেন মার্কিন মুল্লুকে

মোস্ট ওয়েলকাম।

ধূগোর ফাঁড়া এই জন্মে কাটবে বলে মনে হয় না। সেই ছোটবেলা থেকেই ফাঁড়ার কথা শুনে আসছি।

________________________________________
অন্ধকার শেষ হ'লে যেই স্তর জেগে ওঠে আলোর আবেগে...

ধুসর গোধূলি এর ছবি

আরে, আমি তো পঁপ পঁপ ভেঁপু দিয়েই যাচ্ছি। কিন্তু সামনের ট্রাফিক পুলিশ যে পইক্ষের মতো দুই ডানা দুই দিকে ছড়ায়ে রাখছে তো রাখছেই। হাত আর নামানোর নাম নাই।

কানে কানে জিগাই তাসনীম ভাই, ফাঁড়া কাটানোর কোনো পীর ফকিরের তাবিজ-কবজের সন্ধান আছে নাকি আপনার কাছে! চোখ টিপি

তাসনীম এর ছবি

ঘটক পাখি ভাই কাটাতে পারে এই ফাঁড়া হাসি

________________________________________
অন্ধকার শেষ হ'লে যেই স্তর জেগে ওঠে আলোর আবেগে...

ধুসর গোধূলি এর ছবি

হে হে হে, আমি চাই পীর-ফকিরের দোয়া (তাও নিজের জন্য না, দেখেন না পিছন থেকে ছোট ভাইরা হাইড্রলিক হর্ন বাজায়ে কানের পর্দা ফাটায়ে ফেললো!) আর আপনি কিনা আমারে দেখান রমনার বিখ্যাত সেই শুভ্র বাড়ি!

তাসনীম এর ছবি

হাইকোর্ট না দেখায়ে উপায় কি। এতো সচলের সমস্যা দূর করার জন্য এতো শালি পাই কই? শ্বশুর সাহেব তো আর নতুন করে শিশুপালন করবেন না হাসি

________________________________________
অন্ধকার শেষ হ'লে যেই স্তর জেগে ওঠে আলোর আবেগে...

কৌস্তুভ এর ছবি

হো হো হো

অনেকদিন পর শিশুপালন পেয়ে খুব মজা পেলাম!

তাসনীম এর ছবি

আমিও অনেকদিন পরে শিশুপালন লিখে বিমলানন্দ পেলাম হাসি

________________________________________
অন্ধকার শেষ হ'লে যেই স্তর জেগে ওঠে আলোর আবেগে...

মৃত্যুময় ঈষৎ এর ছবি

এরকম করে যারা কথা বলে তাদের দেখতে খুব ইচ্ছে করলো ভাইয়া!!!! বুদ্ধিমান সব প্রশ্ন আর বুদ্ধিমান উত্তর

“আব্বু তুমি প্রতিদিন শেভ করবে, তাহলে ইয়ু উইল নেভার হ্যাভ হোয়াইট দাড়ি...তুমি আর ওল্ড হবে না কোনোদিন...উই উইল স্টে টুগেদার ফর এভার...”

চলুক চলুক


_____________________
Give Her Freedom!

তাসনীম এর ছবি

দেখা একদিন নিশ্চয় হবে মৃত্যুময় ঈষৎ। আপনাকে ধন্যবাদ।

________________________________________
অন্ধকার শেষ হ'লে যেই স্তর জেগে ওঠে আলোর আবেগে...

তারেক অণু এর ছবি
তাসনীম এর ছবি

ধন্যবাদ তারেক।

________________________________________
অন্ধকার শেষ হ'লে যেই স্তর জেগে ওঠে আলোর আবেগে...

রাগিব এর ছবি

আমার ছেলে এখনো কথা বলার পর্যায়ে যায়নি, তাই গাড়ি একটানা চালানোর সর্বোচ্চ সময়সীমা প্রায় ৩-৪ ঘণ্টা। গত সপ্তাহে প্রায় আটশো মাইল পেরিয়ে এসেছি, ৩ দিনে ভাগ করে নিয়ে। বছরখানেক পর থেকে হয়তো ডিভিডি চালু করতে হবে। আপাতত আইফোন আর বেবিসাউন্ডের শব্দগুলোই ভরসা।

----------------
গণক মিস্তিরি
জাদুনগর, আম্রিকা
ওয়েবসাইট | শিক্ষক.কম | যন্ত্রগণক.কম

তাসনীম এর ছবি

বাচ্চারা একটু বড় হওয়ার পরেই গাড়িতে লম্বা পথে আপত্তি করে। তবে ২/৩ ঘন্টা পর পর থামলে খুব অসুবিধা হওয়ার কথা না। তখন নানান গ্যাজেট দিয়ে (ডিভিডির পর লাগবে ছোট গেমিং কনসোলগুলো) ঠাণ্ডা রাখতে হয়।

________________________________________
অন্ধকার শেষ হ'লে যেই স্তর জেগে ওঠে আলোর আবেগে...

স্বাধীন এর ছবি

বাচ্চারা একটু বড় হওয়ার পরেই গাড়িতে লম্বা পথে আপত্তি করে।

সেটাই মন খারাপ

ধৈবত(অতিথি) এর ছবি

বাঃ, লিটেল-তাসনীম তো খুব বুদ্ধিমতী।

তাসনীম এর ছবি

ধন্যবাদ।

________________________________________
অন্ধকার শেষ হ'লে যেই স্তর জেগে ওঠে আলোর আবেগে...

পথভ্রষ্ট পথিক এর ছবি

পিচ্চিদের সাথে অর্থহীন কথা বার্তা বলতে আমার খারাপ লাগে না। দেঁতো হাসি
অর্থহীন কথা থেকেই অর্থপূর্ণ কতকিছু শিখে নিই।

তাসনীম এর ছবি

বাচ্চাদের সাথে সময় কাটানো সবচেয়ে আনন্দময় ব্যাপার। বয়স্কলোকজন বোরিং হয়।

________________________________________
অন্ধকার শেষ হ'লে যেই স্তর জেগে ওঠে আলোর আবেগে...

অকুতোভয় বিপ্লবী এর ছবি

যথারীতি খুব ভাল লাগলো পড়ে।
আপনার এই সিরিজটা পড়লে আমার নিজের শৈশব আর তখন বিশেষ করে বাবার সাথে কাটানো নানা সময়ের কথা মনে পড়ে খালি।

------------------------------------
সময় এসেছে চল ধরি মোরা হাল,
শক্ত কৃপাণে তুলি বরাহের ছাল।

তাসনীম এর ছবি

ধন্যবাদ। বাবার সাথে কাটানো সময় আমারো মনে পড়ে - খুব পড়ে।

________________________________________
অন্ধকার শেষ হ'লে যেই স্তর জেগে ওঠে আলোর আবেগে...

অকুতোভয় বিপ্লবী এর ছবি

এই লেখাটা পড়ছিলাম আর খালি মনে পড়ছিল বাবার কাছে শোনা আমার ছোটবেলার 'প্রশ্ন' যন্ত্রণার কথা, মিনিটে শ'খানেক প্রশ্ন করে মাথা আক্ষরিক অর্থেই নাকি খারাপ করে দিতাম, বিশেষত কোথাও যাওয়ার সময়। আমার নিজেরই এখনও মনে আছে - আমি কোন জলাশয় দেখলেই জিগেস করতাম "এই নদীর নাম কী" এবং "এই নদীতে সাপ আছে কি না" খাইছে

আর খালি মনে পড়ছিল, ছোটবেলায় আমার ঘুমানোর সময় বাবার গলা জড়িয়ে না ধরলে ঘুমাতে পারতাম না, এবং অবশ্যই আমার দাবি থাকত - 'গল্প বল'......... খুব খুব মনে পড়ছিল, খুব বেশি...

------------------------------------
সময় এসেছে চল ধরি মোরা হাল,
শক্ত কৃপাণে তুলি বরাহের ছাল।

এস এম মাহবুব মুর্শেদ এর ছবি

শিশুপালন চলছে ধুমায়ে। অফিস থেকে ফিরে আসলে বাবলু খুব হাই স্পীড হামাগুড়ি দিয়ে পায়ের কাছে চলে আসে। বাইরের জীবানু সমেত কোলে নিতে চাই না দেখে দৌড়ে হাত ধুতে গেলে সেও পিছে পিছে দৌড়গুড়ি দেয়। অথচ কোলে তুলে গালে একটা হাপ্পা দিলেই আবার নামার জন্য মুচড়া মুচড়ি শুরু করে।

গত দুদিন ধরে রাত দু'টার দিকে উঠে যায়। শুয়ে শুয়ে দ্দা দ্দা দ্দা দ্দা, ন্না ন্না ন্না ন্না করে। গত রাতে আবার কান্না। কাঁদতে কাঁদতে হেঁচকি তুলে ফেলছে। পরে দাঁত ওঠার ব্যাথা ধারনা করে আইব্যুপ্রফেন খাইয়ে দিতে ঘুমালো।

আর মাঝে মাঝেই নাক মুখ দিয়ে বমি করে বাচ্চাটা। গ্যাস্ট্রোএন্ট্রোলজিস্ট এক্সরে, আল্ট্রা সাইন্ড সহ বিভিন্ন টেস্ট ধরিয়ে দিলেন।

এইসব নিয়েই আছি আরকি।

আর অমরত্বের কথা বললেন যেটা সেটা আসলে এই বাচ্চাদের মধ্যেই নিহীত আছে। দ্যা আল্টিমেট সারভাইভাল অভ দ্যা জিন। হাসি

তাসনীম এর ছবি

শিশুপালনের জয় হোক। ঠিক কথা - অমরত্ব এই বাচ্চাদের মাঝেই আছে।

________________________________________
অন্ধকার শেষ হ'লে যেই স্তর জেগে ওঠে আলোর আবেগে...

স্বাধীন এর ছবি

আর অমরত্বের কথা বললেন যেটা সেটা আসলে এই বাচ্চাদের মধ্যেই নিহীত আছে। দ্যা আল্টিমেট সারভাইভাল অভ দ্যা জিন।

চলুক

স্বাধীন এর ছবি

লেখা বরাবরের মতই উপাদেয় হয়েছে গুরু গুরু

তাসনীম এর ছবি

ধন্যবাদ স্বাধীন।

________________________________________
অন্ধকার শেষ হ'লে যেই স্তর জেগে ওঠে আলোর আবেগে...

তিথীডোর এর ছবি

উই উইল স্টে টুগেদার ফর এভার।

একজন বাবার জন্য কী চমৎকার একটা লাইন!

পরীর ছানাদের জন্য আদর। হাসি

________________________________________
"আষাঢ় সজলঘন আঁধারে, ভাবে বসি দুরাশার ধেয়ানে--
আমি কেন তিথিডোরে বাঁধা রে, ফাগুনেরে মোর পাশে কে আনে"

তাসনীম এর ছবি

ধন্যবাদ তিথিডোর।

________________________________________
অন্ধকার শেষ হ'লে যেই স্তর জেগে ওঠে আলোর আবেগে...

guest_writer এর ছবি

আমি আমার বাবার থেকে অনেক দূরে থাকি, বাবাকে প্রায়ই রাত-দুপুরে ফোন দিই-বাবা ঘুম আসছে না, ভয় লাগে (বাহানা আর কাকে বলে)। ইস! যদি আবার ছোট হয়ে যেতে পারতাম! বাবার গলা ধরে বলতাম "I miss you baba ...."

লাবণ্যাপ্রভা

তাসনীম এর ছবি

আহ...সব বাচ্চারাই যেন বাবার কাছে ফিরতে পারে।

________________________________________
অন্ধকার শেষ হ'লে যেই স্তর জেগে ওঠে আলোর আবেগে...

তাসনীম এর ছবি

- ঘ্যাচাং -

________________________________________
অন্ধকার শেষ হ'লে যেই স্তর জেগে ওঠে আলোর আবেগে...

পথভ্রষ্ট পথিক এর ছবি

পিচ্চিদের সাথে অর্থহীন কথাবার্তা চালিয়ে যেতে মন্দ লাগে না। দেঁতো হাসি অর্থহীন কথাবার্তার হঠাৎ হঠাৎ চুড়ান্ত অর্থপূর্ণ হয়ে উঠার মাধ্যমে জীবনটাকে নতুন করে ভাবতে খারাপ লাগে না।

তাসনীম এর ছবি

ডুপ্লিকেট মন্তব্য মনে হচ্ছে - উপরে একবার এসেছে।

________________________________________
অন্ধকার শেষ হ'লে যেই স্তর জেগে ওঠে আলোর আবেগে...

নীলকান্ত এর ছবি

আমিও ছোটবেলায় বাবাকে জিজ্ঞেস করতাম, "বাবা আমরা কি বুড়ো হয়ে যাচ্ছি??তুমি কি মরে যাবে?তাহলে তখন কে আমাকে পোলো কিনে দেবে?"

লেখা আগের মতই অসাধারণ। চলুক


অলস সময়

তাসনীম এর ছবি

ধন্যবাদ পলাশ। বাবার কথা বলেছিলে আগেও মনে আছে - ওনাকে নিয়েও লিখো।

________________________________________
অন্ধকার শেষ হ'লে যেই স্তর জেগে ওঠে আলোর আবেগে...

অমিত এর ছবি

এই দশটা পর্বের একটা চোথা বানায় রাখতে হবে

এস এম মাহবুব মুর্শেদ এর ছবি

কেন! চিন্তিত

তাসনীম এর ছবি

একই প্রশ্ন আমারো।

________________________________________
অন্ধকার শেষ হ'লে যেই স্তর জেগে ওঠে আলোর আবেগে...

অমিত এর ছবি

যা দিনকাল চোখ টিপি

ধুসর গোধূলি এর ছবি
রুমঝুম এর ছবি

গতকাল আমার বর শুনলাম তার বন্ধুকে বলছে, "আমার ছেলে আমাকে একদম ভয় পায়না। তার মাকে ভয় পায়।" ফোন রাখার পরপরই ছেলে এক শিশি পানি এনে ঘরএর মাঝখানে ফেলে দিল। আমি একবার মাত্র বললাম, "বাবা, please এমন করেনা।" সাথে সাথে তার কান্না আর তার বাবারও মুখ ভার। ছেলেও দেখলাম বাবার sympathy পাওয়ার জন্য কান্নার sound তুলে দিল। আমিও হুমকি দিলাম আর যেন কখনও না শুনি ছেলে কথা শুনেনা।পুরাই opposition party তে আছি বাসায়। আমিও আমার ছেলের কাছে not nice ওঁয়া ওঁয়া

শিশুপালন সিরিজ আমাদের বাসায় আমরা দুজন খুব মন দিয়ে পরি...আপনার দেবশিশুদের জন্য রইল অনেক অনেক আদর।

তাসনীম এর ছবি

বাসায় মায়ের ভূমিকা অনেকটা সরকারী দলের মতন - যাই করুক না কেন বিরোধী দল বলবে "নট নাইস"। আপানার পরিবারের জন্য অনেক অনেক শুভেচ্ছা রইল

________________________________________
অন্ধকার শেষ হ'লে যেই স্তর জেগে ওঠে আলোর আবেগে...

guest_writer এর ছবি

আপনার লেখা পড়তে পড়তে কবে যেন সচলায়তনে এসে আর যেতে পারছিনা। ইদানিং সকালে অফিসে এসে প্রথমে মেইল-ফেইসবুক দেখে তারপর সচল! হায় এভাবে দিন গেলে পরাশুনা বাদ দিয়ে জমিজমা দেখাশুনা করতে হবে দেশে গিয়ে
যাই হোক বরাবরের মতই মজার, আপনের আর পৈতা লাগবেনা আপনার নামের সাথে যে শিয়ালের ছবিটা আছে ঐটা দেখলেই মনেমনে বলি আসছে আসছে তাসনিম ভাই আসছে
মাহমুদ

তাসনীম এর ছবি

সচলের নেশায় আমি নিজেও আসক্ত। পড়ালেখা বাদ দিয়ে দেশে গিয়ে জমিজমা দেখার কাজটাও মন্দ হবে না - যেভাবে অর্থনীতি ভেঙে পড়ছে এই পাশ্চাত্যে তাতে মনে হয় পুনর্মূষিক ভব হতে হবে আবার।

প্রোফাইলের ছবিটা একটা বিড়ালের ওর নাম হচ্ছে সিলভাস্টার। গত ত্রিশ বছর ধরে একটা হলদে রঙের পাখি ধরে খাওয়ার চেষ্টা করছে সে - এখনও পারেনি। এমনি করিৎকর্মা হাসি

ধন্যবাদ মাহমুদ। সচল থাকুন।

________________________________________
অন্ধকার শেষ হ'লে যেই স্তর জেগে ওঠে আলোর আবেগে...

অপছন্দনীয় এর ছবি

করিৎকর্মা বাদেও সিলভেস্টারের আরেকটা পরিচয় সে পুংমার্জাররাগের অতি উচ্চমার্গীয় ওস্তাদবিশেষ... নিন, একখানা শুদ্ধ পুংমার্জাররাগ শুনুন,

http://www.youtube.com/watch?v=qbuVMKm4juo

(মাঝরাত্রে জানালার বাইরে হুলোর গান কী জিনিস সেটা যদি অভিজ্ঞতার মাধ্যমে জেনে থাকেন তাহলে এই রাগ পুরোপুরি উপভোগ করতে পারবেন হাসি অভিজ্ঞতা না থাকলে একটুখানি বাকি রয়ে যাবে হাসি )

তারাপ কোয়াস এর ছবি

অমরত্ব লাভের আরেকটা বিকল্প উপায় আছে তাসনীম ভাই, কলপ এণ্ড পরচুলা দেঁতো হাসি


love the life you live. live the life you love.

তাসনীম এর ছবি

শেভ করা এরচেয়ে সহজ হাসি

________________________________________
অন্ধকার শেষ হ'লে যেই স্তর জেগে ওঠে আলোর আবেগে...

ধুসর গোধূলি এর ছবি

শেভ করা মাথায় আর কতো শেভ করবেন তাসনীম ভাই! পরচুলাই বেস্ট অপশন। দেঁতো হাসি

মন_মাঝি এর ছবি

ওয়ান ফাইন মর্নিং, ঘুম থেকে উঠে মুখ ধুতে আয়নার সামনে দাঁড়াতেই - হঠাৎ করে নিজের চিবুকে এখানে সেখানে জীবনে প্রথম বারের মত ছোপ ছোপ সাদা দাগ দেখে (যা আগের দিনও ছিল না) আপনার অনুভূতি কেমন হয়েছিল জানতে কৌতুহল বোধ করছি। হাসি

শিশুপালন - পালন আর সেটা নিয়ে লেখা, দুটোই - আনন্দময় হোক।

তাসনীম এর ছবি

দাড়ি পেকে যাওয়ার অনুভূতিটা বেশ দুঃখজনক। চুলের চেয়ের দাড়ির বয়েস অন্তত ১৩/১৪ বছর কম। প্রথমে সাদা দাড়ি আবিষ্কার করি একটি মাত্র, সেটাকে "ম্যাভেরিক" ভেবে উড়িয়ে দিয়েছিলাম। অচিরেই বিদ্রোহ ছড়িয়ে পড়ল - লন্ডনের রায়টের মত গাল আর চিবুকের রাজপথ সব দখল করে নিল শুভ্রতা...সময়ের সাথে তাফালিং চলে না...মেনে নিলাম মধ্যবয়েসের চরদখল।

ইনফ্যাক্ট মধ্যবয়স নিয়ে প্রবন্ধধর্মী একটি ব্যক্তিগত অভিজ্ঞতা নিয়ে একটা লেখার চিন্তা মাথায় ঘুরছে অনেকদিন ধরেই।

________________________________________
অন্ধকার শেষ হ'লে যেই স্তর জেগে ওঠে আলোর আবেগে...

যাযাবর ব্যাকপ্যাকার এর ছবি

হি হি হি হি...
আমাদের একটা পিচ্চি বোন একবার আমাদের বাড়িতে বেড়াতে এলো, সে তখন কেবল কথা বলা শিখেছে, মাথাভর্তি প্রশ্ন তার। সারাদিন আমাদের ভাই বোনদের সাথেই থাকে, আর খানিক পর পর জিজ্ঞেস করে। "এতা কীই? ওতা কীইই?"
আমার ভাই কম কথা বলতো ছেলেবেলায়, কিন্তু আমি ভাবি আমি কী হাল করতাম বাবার! দেঁতো হাসি

আমার বাবার তো ছোট থেকেই সব চুল পাকা, তাহলে বুদ্ধি করে কলপ দিয়ে রাখতো এই জন্যেই!! চিন্তিত

___________________
ঘুমের মাঝে স্বপ্ন দেখি না,
স্বপ্নরাই সব জাগিয়ে রাখে।

তাসনীম এর ছবি

যতই বড় হয়ে মানুষ ভেতরের প্রশ্নগুলো ততই কমে যায়। কিচ্ছু আর জানতে ইচ্ছে করে না।

________________________________________
অন্ধকার শেষ হ'লে যেই স্তর জেগে ওঠে আলোর আবেগে...

যাযাবর ব্যাকপ্যাকার এর ছবি

হ! মন খারাপ

___________________
ঘুমের মাঝে স্বপ্ন দেখি না,
স্বপ্নরাই সব জাগিয়ে রাখে।

সবজান্তা এর ছবি

হা হা হা... যথারীতি দুর্দান্ত।

শিশুপালনের মতো একটা অতি সুদূর ভবিষ্যতের ব্যাপারও আপনার লেখার গুণে খুবই আগ্রহ নিয়ে পড়ি !

তাসনীম এর ছবি

হঠাৎ একদিন দেখবেন সেইদিন আর বেশি দূরে নেই।

________________________________________
অন্ধকার শেষ হ'লে যেই স্তর জেগে ওঠে আলোর আবেগে...

দ্রোহী এর ছবি

আপনি মশাই লেখেন চমৎকার! পড়তে কী যে আরাম হয়!

তাসনীম এর ছবি

আপনারে অসংখ্য -ধইন্যাপাতা-

________________________________________
অন্ধকার শেষ হ'লে যেই স্তর জেগে ওঠে আলোর আবেগে...

alamgir.kabir এর ছবি

আমার মেয়ে মোটামুটি ৪০/৫০ মাইল পরেই বলা শুরু করে "আর ঊই দেয়ার ইয়েট?" আর রাত্রে শুবার বেলায় প্রতিদিন বলে "আব্বু আজকেই শেষ রাত তুমাদের সাথে, কাল থেকে আমার খাটে শুব"! ওর মা মাঝে মাঝে বলে একা ঘুমাতে শিখ, হয়্ত আলাদা খাটে ঘুমও পারিয়ে দেয়, কিন্তু আমি যখ্ন বিছানায় যাই ঠিকি আমাদের খাটে নিয়ে আসি আবার।ওর মা বলে এত আদর ভাল না, আমি বলি আর কয়েকটাদিন থাক না।

তাসনীম এর ছবি

ঠিকই তো - আরো কয়েকটা দিন থাকলে কি হয়? বড় হয়ে গেলে তো আর আসবে না।
ধন্যবাদ আপনাকে।

________________________________________
অন্ধকার শেষ হ'লে যেই স্তর জেগে ওঠে আলোর আবেগে...

ইস্কান্দর বরকন্দাজ এর ছবি

হাসি

..................................................................
আমি ছুঁয়ে দিতে চাই সেই বৃষ্টিভেজা সুর...

তাসনীম এর ছবি

আপনারে অসংখ্য -ধইন্যাপাতা-

________________________________________
অন্ধকার শেষ হ'লে যেই স্তর জেগে ওঠে আলোর আবেগে...

সৈয়দ নজরুল ইসলাম দেলগীর এর ছবি

নিধির আবার পথক্লান্তি নাই... বেদম ঘুরতে পারে...
এই তো কয়েকমাস আগে চট্টগ্রাম, বান্দরবন, টেকনাফ, সেন্ট মার্টিন, কক্সবাজার ট্যুরে গেছিলাম, ছয়দিন ধরতে গেলে পাবলিক বাসেই...
আমরা টায়ার্ড হয়ে গেছি, কিন্তু তার একটুও ক্লান্তি নাই

______________________________________
পথই আমার পথের আড়াল

তাসনীম এর ছবি

সেই ক্ষেত্রে মনে হয় আপনারাই নিধিকে জিজ্ঞেস করতে পারেন - আর উই দেয়ার ইয়েট? হাসি
নিধিকে আদর রইল, ভালো থাকুন।

________________________________________
অন্ধকার শেষ হ'লে যেই স্তর জেগে ওঠে আলোর আবেগে...

আশালতা এর ছবি

এই "আর উই দেয়ার ইয়েট?" প্রশ্নের গুরুত্ব আমি হাড়ে হাড়ে জানি।

তাসনীম আপনি ভয়ানক ভয়ানক ভয়ানক ভালো লেখেন। [ সরি, বিশেষণগুলো ঠিক যুতমত এল না, কিন্তু সুপারলেটিভ বোঝাতে আর কিছু মাথায় আসছে না।]

----------------
স্বপ্ন হোক শক্তি

তাসনীম এর ছবি

আপনাকে অনেক অনেক অনেক ধন্যবাদ হাসি

________________________________________
অন্ধকার শেষ হ'লে যেই স্তর জেগে ওঠে আলোর আবেগে...

স্বপ্নহারা এর ছবি

গুরু গুরু

আপ্নের এই সিরিজটা বই হিসেবে বের করেন...ব্যাপক কাজে দিবে জনগণের...

-------------------------------------------------------------
জীবন অর্থহীন, শোন হে অর্বাচীন...

তাসনীম এর ছবি

ধন্যবাদ স্বপ্নহারা। হয়ত ই-বুক করতে পারি।

________________________________________
অন্ধকার শেষ হ'লে যেই স্তর জেগে ওঠে আলোর আবেগে...

পাপী [অতিথি লেখক] এর ছবি

ভাই, চরম হইছে লেখা। বাবুকে আদর দিয়েন। হাসি

তাসনীম এর ছবি

অবশ্যই দেব। আপনাকে ধন্যবাদ।

________________________________________
অন্ধকার শেষ হ'লে যেই স্তর জেগে ওঠে আলোর আবেগে...

সুমন_তুরহান এর ছবি

গুরু গুরু

তাসনীম এর ছবি

আপনারে অসংখ্য -ধইন্যাপাতা-

________________________________________
অন্ধকার শেষ হ'লে যেই স্তর জেগে ওঠে আলোর আবেগে...

The Reader এর ছবি

হো হো হো দেঁতো হাসি

তাসনীম এর ছবি

আপনারে অসংখ্য -ধইন্যাপাতা-

________________________________________
অন্ধকার শেষ হ'লে যেই স্তর জেগে ওঠে আলোর আবেগে...

sumima yasmin এর ছবি

আপনার শিশুরা অনেকদিন শিশু থাকুক...। আর 'শিশু পালন' চলতে থাকুক...

সুমিমা ইয়াসমিন

তাসনীম এর ছবি

যতদিন শিশু থাকে ততদিনই ভালো। ইনফ্যাক্ট বাবা-মার কাছে ওরা সর্বদাই শিশু।

________________________________________
অন্ধকার শেষ হ'লে যেই স্তর জেগে ওঠে আলোর আবেগে...

নৈষাদ এর ছবি

যথারীতি চমৎকার।

বাংলা ভার্সান 'আর কতদূরের' সাথে খুব পরিচিত। আমাদের ঢাকা-চিটাগাং রোডে (চার-লেন রাস্থার কাজ চলিতেছে) হাজার হাজার মাইল না থাকতে পারে, তবে 'ঘন্টার পর ঘন্টা' বসে থাকতে হতে পারে। (কুমিল্লার আগে ...টনগঞ্জ এবং গৌ...রে জ্যাম পাইনি এমন হয়নি, নোয়াখালির ড্রাইভারের হাইপোথিসিস সেখানের মানুষের নাকি আওডিনের ঘাটতি আছে, তাই নাকি ক্যালাস, রাস্থার উপর উদাস ঘুরে ফিরে...)

তাসনীম এর ছবি

ধন্যবাদ। ঢাকা-চিটাগাং রাস্তা চার লেন হচ্ছে জেনে ভালো লাগলো। আশা করি এটা তৈরি হলে আর ঘন্টার পর ঘন্টা বসতে হবে না।

________________________________________
অন্ধকার শেষ হ'লে যেই স্তর জেগে ওঠে আলোর আবেগে...

তাসনীম এর ছবি

-লাফাং মন্তব্য -

________________________________________
অন্ধকার শেষ হ'লে যেই স্তর জেগে ওঠে আলোর আবেগে...

যাযাবর ব্যাকপ্যাকার এর ছবি

মানুষের নাকি আওডিনের ঘাটতি আছে, তাই নাকি ক্যালাস, রাস্থার উপর উদাস ঘুরে ফিরে...

গড়াগড়ি দিয়া হাসি

যাক! চার লেনের রাস্তা হবার পরে জ্যাম কমে কিনা দেখা যাক! এক সময়ে যমুনা ব্রিজ পেরুবার পরে আমরা আমরা টাঙাইল-মির্জাপুরে অনন্তকাল অপেক্ষা করেছি রাজশাহী-ঢাকা মহাসড়কে। কিন্তু ঢাকা থেকে তো বেরুতে পারতে হবে আগে! সেটার কী হবে? চিন্তিত

___________________
ঘুমের মাঝে স্বপ্ন দেখি না,
স্বপ্নরাই সব জাগিয়ে রাখে।

saima এর ছবি

গড়াগড়ি দিয়া হাসি দেঁতো হাসি

তাসনীম এর ছবি

আপনারে অসংখ্য -ধইন্যাপাতা-

________________________________________
অন্ধকার শেষ হ'লে যেই স্তর জেগে ওঠে আলোর আবেগে...

জয়ন্তী এর ছবি

বাবা কে আমারা দুই ভাই বোন বাবু ডাকি। বাবু সবসময়ই শেভ করেই থাকেন। বাবুর গালে যেন ভাজ পরা শুরু হয়েছে। দেখে বাচ্চাদের মত রাগ হচ্ছে। আমার বাবুর এত সুন্দর চেহারাটা এমন কেন হয়ে যাচ্ছে????

তাসনীম এর ছবি

আমার বাবুর এত সুন্দর চেহারাটা এমন কেন হয়ে যাচ্ছে?

আমার মেয়েও আমার "সৌন্দর্য" নিয়ে চিন্তিত। ধন্যবাদ আপনাকে। আপনাদের বাবু ভালো থাকুন।

________________________________________
অন্ধকার শেষ হ'লে যেই স্তর জেগে ওঠে আলোর আবেগে...

দিফিও-1 এর ছবি

রবিন্দ্রনাথের এই কোবতেটা জানা ছিল না, পড়ে বিমলানন্দ পেলুম।

আপনার পোস্ট টাও আগে পড়া ছিল না, এটা পড়েও বিমলানন্দ পেলুম দেঁতো হাসি

তাসনীম এর ছবি

ধন্যবাদ দিফিও। এই কোবতেটাতো বেশ বিখ্যাত...যেতে নাহি দেব।

________________________________________
অন্ধকার শেষ হ'লে যেই স্তর জেগে ওঠে আলোর আবেগে...

আয়নামতি এর ছবি

খুউব কিউট একটা লেখা! হাসি আপনার বুদ্ধিমতী কন্যাদ্বয়ের জন্য অনেক আদর থাকলো ভাইয়া।

তাসনীম এর ছবি

আপনাকে ধন্যবাদ অনেক।

________________________________________
অন্ধকার শেষ হ'লে যেই স্তর জেগে ওঠে আলোর আবেগে...

guest_writer এর ছবি

আপনার লেখাটি পড়ে পনের-ষোল বছর আগের স্মৃতি মনে পড়ল। ছেলেটা তখন ছোট ছিল। বাবার কাছে তখন কত ধরনের যে আবদার ! ছেলেটাকে ঘাড়ে তুলে নিয়ে সেকি ঝাকাঝাকি আর ছেলেটার খিলখিলিয়ে হাসি। এখন সেগুলো বড়ই মিস করি। ছেলেটার এখন একটাই আবদার, টাকা লাগবে। কিছুক্ষন আপনারদের সাথে থাকায় সেই সব দিনে ফিরে গিয়েছিলাম। আমার স্ত্রীতো রীতিমত স্মৃতিমেদুরতায় আক্রান্ত হল। অনেক অনেক ধন্যবাদ সেইসব আনন্দঘন দিনগুলোয় ফিরিয়ে নেবার জন্য।
মন্তব্য লিখেছি : প্রৌঢ়ভাবনা

তাসনীম এর ছবি

আপনাকেও অনেক ধন্যবাদ প্রৌঢ়ভাবনা।

________________________________________
অন্ধকার শেষ হ'লে যেই স্তর জেগে ওঠে আলোর আবেগে...

সাফি এর ছবি

শিশু এখনও নেই, তবে দূরের যাত্রায় স্ত্রী নিয়মিত বিরতিতে ঘুম থেকে উঠে আর কত দূর জাতীয় খোঁজ দ্য স্যার্চ করেন

তাসনীম এর ছবি

শিশু এখনও নেই, তবে দূরের যাত্রায় স্ত্রী নিয়মিত বিরতিতে ঘুম থেকে উঠে আর কত দূর জাতীয় খোঁজ দ্য স্যার্চ করেন

গড়াগড়ি দিয়া হাসি

________________________________________
অন্ধকার শেষ হ'লে যেই স্তর জেগে ওঠে আলোর আবেগে...

ফাহিম হাসান এর ছবি

বাচ্চারা সত্যিই খুব ইন্টারেস্টিং।

শিশুপালন সিরিজ বন্ধ হলে আপনার চুল-দাড়ি এমনিতেই আর আস্ত থাকবে না। কাজেই...

তাসনীম এর ছবি

ধন্যবাদ আর এই সিরিজটা টুকটাক চলবে হাসি

________________________________________
অন্ধকার শেষ হ'লে যেই স্তর জেগে ওঠে আলোর আবেগে...

খরগোশ এর ছবি

ছোট বেলার কথা মনে পড়েগেল, যখন প্রথম জানলাম মানুষ একদিন বুড়ো হবে, মরে যাবে সে রাতে মাকে জিজ্ঞেস করেছিলাম আসলেই কি মানুষ বুড়ো হয়? মার মুখে হ্যাঁ শুনে হাউমাউ করে কান্না পাচ্ছিল কিন্তু লজ্জায় কাঁদতে পারছিলামনা, সারা রাত কেঁদে বালিশ ভেজানোর অভিজ্ঞতা বোধয় ওটাই আমার প্রথম।

খুব সুন্দর লেখা।

তাসনীম এর ছবি

মন্তব্যের জন্য ধন্যবাদ খরগোশ।

________________________________________
অন্ধকার শেষ হ'লে যেই স্তর জেগে ওঠে আলোর আবেগে...

রু (অতিথি) এর ছবি

ভালো লাগলো। আমার ছোট ভাগ্নীকে চেষ্টা করেও সময় দিতে পারি না। আবার এটাও বুঝি যে পরে আফসোস হবে। বেচারীর মোশন সিকনেস আছে। দুরপাল্লার যাত্রায় অবধারিতভাবে দুই থেকে তিনবার বমি করে।

তাসনীম এর ছবি

ধন্যবাদ রু। ছোটবেলার মোশন সিকনেস বড় হতে হতে সাধারণত সেরে যায়।

________________________________________
অন্ধকার শেষ হ'লে যেই স্তর জেগে ওঠে আলোর আবেগে...

অতন্দ্র প্রহরী এর ছবি

এই সিরিজের সবগুলো লেখা নিয়ে ইবুকের দাবি জানিয়ে গেলাম। দারুণ হবে তাহলে।

তাসনীম এর ছবি

তোমার জন্য ই-বুকের দাবী বেশ বিপজ্জনক, কারণ কাজটা তো তোমাকেই করতে হবে হাসি

________________________________________
অন্ধকার শেষ হ'লে যেই স্তর জেগে ওঠে আলোর আবেগে...

দিহান এর ছবি

একটা চার বছর বয়সী বাচ্চা নাকি দৈনিক গড়ে ৪৬৫ টা প্রশ্ন করে! শিশুপালন কি মুখের কথা?

ইদানীং পৃথিবী অনুভব করে, একটা সূর্যে চলছেনা আর
এতো পাপ, অন্ধকার
ডজনখানেক সূর্য দরকার।

তাসনীম এর ছবি

দুটো বাচ্চা তাহলে ৯০০ এর বেশি প্রশ্ন করবে - শিশুপালন চাট্টিখানি কাজ নয় হাসি

________________________________________
অন্ধকার শেষ হ'লে যেই স্তর জেগে ওঠে আলোর আবেগে...

শাহেনশাহ সিমন এর ছবি

চলতে থাকুক

_________________
ঝাউবনে লুকোনো যায় না

তাসনীম এর ছবি

চলবে হাসি

________________________________________
অন্ধকার শেষ হ'লে যেই স্তর জেগে ওঠে আলোর আবেগে...

বন্দনা এর ছবি

আমার জন্মের আগ থেকে আমাদের বাসায় বিরাট এক পালঙ্ক ছিল, আমি ও সেটাতে ও ছোটবেলায় ঘুমাইছি, এখন ও সেই পালঙ্কে আব্বাআম্মা ঘুমান। আমার বাবা শখ করে এই পালঙ্ক বানিয়েছিলেন সব পুলাপান নিয়ে একসাথে ঘুমাবেন বলে। শখের পালঙ্ক এখন ও ফেলতে পারেন না, আমরা যতই চাই ও্টা ফেলে নতুন খাট কিনে আনতে, ওনারা কিছুতেই রাজী হননা, বলেন এটা এখন ও কত মজবুত দেখেছো।আপ্নার লিখা পড়ে হুট করে আমার বাবার কথা মনে পড়ে গেলো, সেই খাটের কথা মনে পড়ে গেলো।

তাসনীম এর ছবি

মন্তব্যের জন্য ধন্যবাদ আপনাকে।

________________________________________
অন্ধকার শেষ হ'লে যেই স্তর জেগে ওঠে আলোর আবেগে...

মেঘলা আকাশ  এর ছবি

আমি ইউনিভার্সিটিতে ভর্তি হওয়ার আগে পর্যন্ত প্রতিদিন কিছু সময় হলেও বাবার কাছে ঘুমাতাম। এ জন্য স্বজনদের কাছ থেকে "ধাড়ি মেয়ের আদিখ্যেতা" - কম শুনতে হয়নি। আর এখন পিচ্চি দুটোকে আলাদা রাখার কথা ভাবতে পারিনা। থাকুক ওরা আমাদের সাথে যতদিন বড় না হয়। আপনার টাইমমেশিন আমাকে একই সাথে শিশুবেলা, কিশোরী বেলা ও মা বেলা-তে নিয়ে গেল। আপনার টুনটুনিরা চমৎকার শৈশব স্মৃতি নিয়ে বেড়ে উঠুক।

নতুন মন্তব্য করুন

এই ঘরটির বিষয়বস্তু গোপন রাখা হবে এবং জনসমক্ষে প্রকাশ করা হবে না।