Archive

May 23rd, 2020

দি বডি

তারাপ কোয়াস এর ছবি
লিখেছেন তারাপ কোয়াস [অতিথি] (তারিখ: শনি, ২৩/০৫/২০২০ - ৮:৫৩পূর্বাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

বৈরী পরিবেশ আমাদের বেঁচে থাকার সক্ষমতা সম্পর্কে আমাদের জানার বড় একটা অংশ এসেছে এক অসস্তিজনক সূত্রে।


May 21st

সমন্বয়ের অর্থনীতির ভাবনা

ষষ্ঠ পাণ্ডব এর ছবি
লিখেছেন ষষ্ঠ পাণ্ডব (তারিখ: বুধ, ২০/০৫/২০২০ - ১০:১৭অপরাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

[justify]এক দশক আগে বাংলাদেশে মোবাইল ফোন অপারেটর কোম্পানীগুলোতে যতজন কাজ করতেন আজ তাঁদের সংখ্যা তার অর্ধেকের চেয়ে কম। একই সাথে কমেছে ঐসব কোম্পানীকে যারা নানাপ্রকার পণ্য বা সেবা সরবরাহ করতেন এমনসব ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানের সংখ্যা। অথচ এই এক দশকে মোবাইল ফোন ব্যবহারকারীর সংখ্যা ৬ কোটি থেকে বেড়ে ১৬ কোটি ৫৫ লাখ ৭২ হাজার হয়েছে। আমরা জানি, প্রযুক্তিগত উন্নয়নের ফলে কর্মীর প্রয়োজনীয়তা হ্রাস পায় বলে কর্মীর স


May 16th

লক ডাউননামা : কদম আলী!

সুমন চৌধুরী এর ছবি
লিখেছেন সুমন চৌধুরী (তারিখ: শুক্র, ১৫/০৫/২০২০ - ১১:৩৯অপরাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

কদম আলী পিৎসা ভালোই বানায়। শুধু পিৎসা না বেশ কয়েক ধরণের ইতালীয় পাস্তাতেও তার হাত পাকা। ফাব্রিৎসিও কাসিয়া রীতিমতো হাতে ধরে ইতালীয় রান্না শিখিয়েছেন। সে অনেক কাল আগের কথা। কদম আলীর তখন জার্মানীতে মোটে মাস ছয়েক।


May 14th

স্বাধীনতার স্বপ্ন

নুরুজ্জামান মানিক এর ছবি
লিখেছেন নুরুজ্জামান মানিক (তারিখ: বুধ, ১৩/০৫/২০২০ - ৭:৫৫অপরাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

স্বাধীনতার স্বপ্ন বাস্তবায়নের নিমিত্তে ১৯৬২ সালে তৎকালীন ছাত্রলীগ নেতা আবদুল আজিজ বাগমারের নেতৃত্বে গড়ে উঠে ‘অস্থায়ী পূর্ববঙ্গ (অপূর্ব) সরকার’ নামে একটি গোপন সংগঠন । রাজনৈতিক নেতৃত্ব যথাসময়ে যাতে স্বাধীনতার ডাক দিতে সক্ষম হন সে কাজকে সহজতর করার উদ্দেশ্যে স্বাধীনতার বানী ঘরে ঘরে পৌছেঁ দেওয়ার শপথ নিয়ে সংগঠনটি গঠিত হয় । (১) সংগঠক হিসেবে ছিলেন ঢাবি ছাত্র খন্দকার বজলুল হক, শান্তি নারায়ণ ঘোষ (উভয়ে বর্তম


May 6th

হার্ড ইমিউনিটি – আশঙ্কার নীতি

অতিথি লেখক এর ছবি
লিখেছেন অতিথি লেখক (তারিখ: বুধ, ০৬/০৫/২০২০ - ৪:১৪পূর্বাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

সাম্প্রতিক সময়ে বাংলাদেশে হার্ড ইমিউনিটি নিয়ে বেশকিছু কথাবার্তা হচ্ছে – এবং এর অধিকাংশই অত্যন্ত আশঙ্কাজনক, সেই সাথে হতাশাজনক তো বটেই। হার্ড ইমিউনিটির পক্ষের যে যুক্তিগুলো সেগুলি বিশ্লেষণ করলে দেখা যাবে যে এখানে অর্থনীতি, বাণিজ্য, সমাজ ব্যবস্থা, মানুষের বিহেভারিয়াল ব্যাপর গুলি আলোচিত হলেও, সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ব্যপারটিই কিন্তু একেবারে পুরোপুরি উপেক্ষিত হয়েছে । আর সেটা হচ্ছে ‘জীবন’ । এবং এটি কে


May 2nd

তাক থেকে নামিয়ে - ০৪

সাক্ষী সত্যানন্দ এর ছবি
লিখেছেন সাক্ষী সত্যানন্দ [অতিথি] (তারিখ: শনি, ০২/০৫/২০২০ - ১:৩১পূর্বাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

শিব ঠাকুরের আপন দেশে, আইন কানুন সর্বনেশে! কেউ যদি যায় পিছ্‌লে প'ড়ে, প্যায়দা এসে পাক্‌ড়ে ধরে, কাজির কাছে হয় বিচার- একুশ টাকা দণ্ড তার ৷৷ চলতে গিয়ে কেউ যদি চায়, এদিক ওদিক ডাইনে বাঁয়, রাজার কাছে খবর ছোটে, পল্টনেরা লাফিয়ে ওঠে, দুপুর রোদে ঘামিয়ে তায়- একুশ হাতা জল গেলায় ৷৷

তথ্যসূত্রঃ রায়, এস. (১৯২৩) আবোল তাবোল, ১ম সংস্করণ, কলকাতাঃ ইউ রায় এন্ড সন্স

কেন? জানতে হারারি পড়ুন!


দেশ থেকে দেশে

অতিথি লেখক এর ছবি
লিখেছেন অতিথি লেখক (তারিখ: শনি, ০২/০৫/২০২০ - ১২:৩৫পূর্বাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

এই দেশ ছেড়ে যাচ্ছি। সিদ্ধান্তটা একরকম হুট করেই নেয়া। আট বছর এক দেশে থাকার পর কোনো প্রস্তুতি ছাড়া আরেক দেশে যাওয়াটা ঝামেলার ব্যাপার। এখন যাচ্ছি অনেক উত্তরে। প্রথম কয়েক দিন তেমন কিছু টের পাই নি, এখন বেশ খারাপ লাগছে। এই আট বছরে কত স্মৃতি, কত মানুষের সাথে পরিচয়, কত সুখ দুঃখের ঘটনা। আমার এই এক সমস্যা, কোনো কিছু একবার ব্যবহার করলে তার প্রতি মায়া জন্মে যায়। যেকোনো কিছু একবার ব্যবহার করলে তার প্র


May 1st

ইরফানের চোখজোড়া এবং একজন শিল্পির মৃত্যু

কর্ণজয় এর ছবি
লিখেছেন কর্ণজয় (তারিখ: শুক্র, ০১/০৫/২০২০ - ৮:১৬পূর্বাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

মনের মধ্যে
একটু পর পর এক জোড়া চোখ ভেসে উঠছে।
তাকিয়ে আছে।
নীরব কথায় পরিপূর্ণ দুটো চোখ।
কথাগুলো আমার মধ্যেও কোথাও আছে।
টের পাচ্ছি। অনুভব করতে পারছি।
খুবই কষ্ট হচ্ছে।
শিল্পির মৃত্যুতো এমনই। যার সাথে সাথে আমাদেরও মৃত্যু হয়।
আমাদের গভীর অনুভূতিগুলো
আমাদের গভীর স্বপ্নগুলো
আমাদের গভীর বেদনাগুলো
গভীর আনন্দগুলো
আমাদের মধ্যে লুকিয়ে থাকে
অবচেতন হয়ে, তার হদিসগুলো আমরা ঠিক মতো জানিই না।


April 29th

ব্যাঙের ছাতা

সোহেল ইমাম এর ছবি
লিখেছেন সোহেল ইমাম [অতিথি] (তারিখ: বুধ, ২৯/০৪/২০২০ - ১:০৩পূর্বাহ্ন)
ক্যাটেগরি:


April 27th

চিত্ররেখার হীরার আংটি

সত্যপীর এর ছবি
লিখেছেন সত্যপীর (তারিখ: রবি, ২৬/০৪/২০২০ - ৯:৪২অপরাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

একটু চুপ থেকে চিত্ররেখা বলল, আমাকে বিয়ের সময় চেতন সিং ছোট একটা মণ্ডপ করেছিল গড়ের মাঠে। আমার বাবা পবন সিং রান্ধাওয়া আর দাদা পরাগ সিং বিয়ের পুরোটা সময় চোখ মেলে তাকিয়েছিল। একটা কথাও তারা বলেনি, এমনকি চোখের পলক ফেলতেও তারা ভুলে গিয়েছিল। কেন জানেন?

কেন?

চিত্ররেখা মাথা এগিয়ে ফিসফিস করে বলল, কারণ চেতন সিং তাদের মাথা কেটে বল্লমে বসিয়ে মণ্ডপে রেখেছিল। কাটা মাথা কি কথা বলতে পারে?