Warning: Creating default object from empty value in i18ntaxonomy_term_page() (line 34 of /var/www/sachalayatan/s6/sites/all/modules/i18n/i18ntaxonomy/i18ntaxonomy.pages.inc).

গান

ত্রিবেণীসঙ্গম--

অনিকেত এর ছবি
লিখেছেন অনিকেত (তারিখ: বিষ্যুদ, ০৫/০১/২০১৭ - ১০:১২পূর্বাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

আমার একটা ২০০৯ সালের ল্যাপ্টপ আছে। এটাতেই আমি আমার যাবতীয় সাঙ্গীতিক দুষ্কর্ম গুলো করে থাকি। ইন্টেলের প্রথম জেনারেশানের i7 প্রসেসর। কুলিং সিস্টেম অপর্যাপ্ত। ল্যাপ্টপ চালু করার অল্প কিছুখনের মাঝেই বিশাল শোঁ শোঁ আওয়াজ করে ফ্যান চালু হয়। এই ফ্যান আবার আমাদের দেশের নাপিতের মত---নাইন্টি পার্সেন্ট কাঁচির বাদ্য আর টেন পার্সেন্ট চুল কাটা। ফলে যেকোন প্রসেসর ইন্টেন্সিভ কাজ--যেমন মিউজিক করা, ছবি এডিট করা--করত


পাঁচটি গানের কথা

আশরাফ মাহমুদ এর ছবি
লিখেছেন আশরাফ মাহমুদ (তারিখ: শনি, ১০/১২/২০১৬ - ৯:২৯অপরাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

অনেকদিন পর গীতিকথা পোস্ট করছি, যদিও এই গানগুলো লেখা হয়েছে নানা অসময়ে অনেক আগে।


গান নিয়ে কিছু কথা--

অনিকেত এর ছবি
লিখেছেন অনিকেত (তারিখ: মঙ্গল, ২৯/১১/২০১৬ - ১০:৩৯পূর্বাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

সব জিনিস সবার জন্য না।


ঠক ঠক ঠক

সাক্ষী সত্যানন্দ এর ছবি
লিখেছেন সাক্ষী সত্যানন্দ [অতিথি] (তারিখ: রবি, ১৬/১০/২০১৬ - ৬:৩৮অপরাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

আজকে রুদ্র মুহম্মদ শহিদুল্লাহর ৬০তম জন্মবার্ষিকী। ভেবেছিলাম বিজ্ঞানময় রুদ্র নামিয়ে ফেলব। কিন্তু হাতে ম্যালা কাজ। এমন সময় ছুটির দিনের সকালে দরজায় ঠক ঠক করল আলুর দোষওলা কিছু সাহিত্য সম্পাদক। কি আর করা? জাতির বৃহত্তর স্বার্থে আন্তর্জাতিক মানের ব্যাংক ডাকাতি প্রশিক্ষক সাইফুর্স সাহেবের আগেই উনাদের জন্য গাইড বই লিখে ফেললাম। সুদীর্ঘ পোস্ট, হাতে পর্যাপ্ত সময় ও মনযোগ নিয়ে পড়ুন। [তথ্যসূত্রঃ ইন্টারনেট]


বৃক্ষ রানা ও কিছু নষ্টালজিয়া

অতিথি লেখক এর ছবি
লিখেছেন অতিথি লেখক (তারিখ: রবি, ০৩/০১/২০১৬ - ৯:৩৬পূর্বাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

পড়ুয়াদের ২০১৫, শিরোনামটা দেখেই স্মৃতিতে সদ্য বিগত হয়ে যাওয়া বছরে পড়া বইগুলো একে একে ঝলক দিয়ে উঠলো যেন! ২০১৫, পুরো বছরটাতে আমি সৈয়দ মুজতবা আলী, জাহানারা ইমাম এবং শাহাদুজ্জামানে বিভোর ছিলাম। দেশে বিদেশে-এর মত এমন সরেস রস সাহিত্যে আমি কখনোই আস্বাদন করেনি। অন্যদিকে শাহাদুজ্জামানের ছোট গল্প আমাকে সাহিত্যের নতুন স্বাদ ও ভাবনার দিগন্তে হাটিয়েছে।


বরিষ ধরা মাঝে শান্তির বারি--

অনিকেত এর ছবি
লিখেছেন অনিকেত (তারিখ: রবি, ১৫/১১/২০১৫ - ১০:০১অপরাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

এখন দুঃসময়!
দেশ, দেশের বাইরে--সবখানেই।
যে রবীন্দ্রনাথ বলেছিলেন 'শান্তির ললিত বাণী শুনাইবে ব্যর্থ পরিহাস'---সেই তিনিই আবার গেয়েছিলেন শান্তির প্রার্থনা সঙ্গীত --'বরিষ ধরা মাঝে শান্তির বারি'।
রবীন্দ্রনাথের এই প্রার্থনা হয়ত ছিল ঈশ্বরের প্রতি অথবা হয়ত প্রতিটি মানুষের মনে যে সুকুমার বৃত্তিটুকু বেঁচে থাকে সকল হীনতা-দীনতার মুখে--তার প্রতি।

আমার খুব ভাবতে ইচ্ছে করে হয়ত শেষোক্তটিই সত্যি।


এলোমেলো - দ্যা লস্ট ভয়েস

অতিথি লেখক এর ছবি
লিখেছেন অতিথি লেখক (তারিখ: রবি, ০১/১১/২০১৫ - ১:৩২পূর্বাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

কথাসাহিত্যিক শাহাদুজ্জামানের একটা গল্প আছে ‘সাড়ে সাতাশ’। সেখানে তিনি নতুন গল্পের খোজে পুরোনো সাতাশটি গল্পের চরিত্রগুলোকে ডেকে পাঠান। চরিত্রগুলো নিয়ে উনি নদীর পাড়ে গোল-টেবিল বৈঠকে বসেন। ভুলে যাওয়া, ছায়ার মত নিত্য সঙ্গী হয়ে যাওয়া চরিত্র থেকে শুরু করে ডোডো পাখি, কাঁঠাল পাতা কিংবা মাটির ঢেলা, কেউ বাদ যায় না। একটু একটু করে নষ্টালজিয়া নেমে আসে নদীর ঢেউয়ে ঢেউয়ে। তেমনি, সঙ্গীতাঙ্গনে আমারও প্রিয় কিছু চরিত্


গিটার ইশ্‌কুল: পর্ব-৭ : পাঁচটি প্রাথমিক স্ট্রামিং প‌্যাটার্ন

এস এম মাহবুব মুর্শেদ এর ছবি
লিখেছেন এস এম মাহবুব মুর্শেদ (তারিখ: বুধ, ২৮/১০/২০১৫ - ৩:৪৭পূর্বাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

এই পর্বে পাঁচটি প্রাথমিক স্ট্রামিং প্যাটার্ন দেখানো হয়েছে নীচের ভিডিওতে। খুব বেসিক এই প্যাটার্ন গুলো পরবর্তীতে অন্যান্য স্ট্রামিং শেখার জন্য কাজে লাগবে। ভিডিওটিতে E মেজর কর্ড ব্যবহার করে স্ট্রামিংগুলো দেখানো হয়েছে। কিন্তু প্রয়োজনে বাম হাত দিয়ে স্ট্রিংগুলো চেপে ধরে স্ট্রামিং প্যাটার্ন প্র্যাকটিস করতে পারেন।


নোভা, যাদের গান শুনেছি ‘আহ্বানে’

তানিম এহসান এর ছবি
লিখেছেন তানিম এহসান [অতিথি] (তারিখ: বুধ, ২১/১০/২০১৫ - ৪:০৮অপরাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

সেবার খুব বন্যা হলো, ১৯৮৮ সাল। বড়’রা সবকিছুতে বেশি বেশি চিন্তা না করতে পারলে খুব সমস্যায় পড়ে যান, ছোটদের চিন্তা করার সময় কোথায়! সারা দেশ বন্যায় তলিয়ে গেল, তলিয়ে গেল প্রায় পুরো ঢাকা শহর; ঢাকা শহরের বড় বড় রাস্তায় নেমে এলো নৌকা, তলিয়ে গেল পাড়া-মহল্লা এবং ছুটি হয়ে গেল স্কুল!


২১শে ফেব্রুয়ারি নিয়ে উন্মুক্ত প্রজেক্ট

ষষ্ঠ পাণ্ডব এর ছবি
লিখেছেন ষষ্ঠ পাণ্ডব (তারিখ: সোম, ১২/১০/২০১৫ - ১২:৫২অপরাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

‘২১শে ফেব্রুয়ারি’ শব্দটি শুনলে এদেশের মানুষের মনে সাথে সাথে অন্তত তিনটি জিনিস মনে পড়ে – এক, শহীদ মিনারের ছবি; দুই, বরকত-সালাম-রফিক-জব্বারের নাম; তিন, ‘আমার ভাইয়ের রক্তে রাঙানো’ গানটা। আবদুল গাফফার চৌধুরীর লেখা আর শহীদ আলতাফ মাহ্‌মুদের সুর করা এই গানটি এখন ভাষা আন্দোলনের ইতিহাসের অবিচ্ছেদ্য অংশ হয়ে গেছে। এই গানের সুরটি যে কী অসাধারণ আর মর্মস্পর্শী সেটা যিনি একবার শুনেছেন তিনিই জানেন।