Warning: Creating default object from empty value in i18ntaxonomy_term_page() (line 34 of /var/www/sachalayatan/s6/sites/all/modules/i18n/i18ntaxonomy/i18ntaxonomy.pages.inc).

ব্লগরব্লগর

বড় দিনের বিগ-জ্ঞান

অতিথি লেখক এর ছবি
লিখেছেন অতিথি লেখক (তারিখ: সোম, ২৫/১২/২০১৭ - ৫:৪২অপরাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

২০১৩ সালে নটিংহ্যাম এবং ডার্বি বিশ্ববিদ্যালয়ের দুই গবেষক জেমস বন্ডের ১৪ টি বই পড়ে, বন্ডের ভদকা মার্টিনি পানের পরিমানের উপর ভিত্তি করে দাবী করে জেমস বন্ড একজন মদ্যপ মাতাল !! হ্যা, ০০৭ , লাইসেন্স টু কিল জেমস বন্ডের কথাই বলছেন দুই লেখক । ১৯৫৩ থেকে ১৯৬৫ সাল পর্যন্ত জেমস বন্ডের ১৪ বই পর্যালোচনা করে তারা আবিষ্কার করেন বন্ড প্রতি সপ্তাহে প্রায় ১লিটারের (৯২ ইউনিট) মদ খেয়ে চলেছে । এই হারে মদ খাওয়া চালাতে থাকলে অল্প বয়সেই পটল তোলার সম্ভবনা আছে । তাছাড়া মাতাল অবস্থায় জেমস বন্ড প্রায় গাড়ি চালায়, গোলাগুলি করে যা জনসাধারনের জন্যও বেশ বিপজ্জনক ।


কিভাবে মোগল হবেনঃ একটি সহজ পপি গাইড

সত্যপীর এর ছবি
লিখেছেন সত্যপীর (তারিখ: রবি, ২৪/১২/২০১৭ - ১০:৫৮অপরাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

জন্ম ও শিক্ষা পর্ব

আ। সাব্বাস। কত লক্ষ কোটি মানুষের ভিড়ে হাজারে হাজার পুলাপান জন্মায় প্রতিদিন, তার মাঝে আপনি জন্ম নিলেন আজ মোগল বংশে। আপনাকে অভিবাদন। আসুন তবে পরিবারের সাথে পরিচয় করিয়ে দেই। আপনার পিতা স্বয়ং বাদশা। বংশ তিমুরিদ। মাতা রাজপুত। আপনার আগে দুই ভাই, ভিন্ন মাতার পেটে। একটা বোন। জন্মস্থান আগ্রার কোন এক দূর্গ। রোজ শনিবার।

আলহামদুলিল্লা। আগ্রায় আজ ঈদ, ঘরে ঘরে আনন্দ। হ্যাশট্যাগ জশনে জুলুছ। পাথর ও আতর চালাচালি। বিরিয়ানি ও হালুয়া পাকশাক। রাজপথে লোকের মুখে হাসি ও হাতে মোহর।

কুটিল মোগল জীবনের পয়লা দিনে স্বাগতম পাঠক। বন্ধুর এই পথে পীরের পপি গাইড হউক আলোকবর্তিকা।


বাস কথন -০১

ষষ্ঠ পাণ্ডব এর ছবি
লিখেছেন ষষ্ঠ পাণ্ডব (তারিখ: বিষ্যুদ, ২১/১২/২০১৭ - ১১:৫৯পূর্বাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

[justify]ঢাকা মহানগরীর জনসংখ্যা কত?


গালিবের হাভেলির সন্ধানে (২)

রেজওয়ান এর ছবি
লিখেছেন রেজওয়ান (তারিখ: বিষ্যুদ, ২১/১২/২০১৭ - ৮:০৩পূর্বাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

গালিবের হাভেলির প্রবেশ পথ।

(প্রথম পর্ব এখানে)

সমাজমুখী ছিলেন না উর্দু মহাকবি মির্জা গালিব, কাব্যের উপজীব্য ছিল তার নিজের জীবনের সুখ দুঃখ, প্রেম- ভালবাসা, ভাগ্যের উত্থান পতন। ১৮৫৭ সালের সিপাহি বিদ্রোহের পর ব্রিটিশরা দিল্লির রেড ফোর্ট আর জামে মসজিদ দখল করে এ দুইয়ের মধ্যকার প্রচুর পুরোনো বিল্ডিং এবং বাজার ধ্বংস করে বিশাল অংশ খালি করে ফেলে। গালিব চোখের সামনে দেখেছেন দিল্লির খাস বাজার, উর্দু বাজার, খরম-কা বাজার মিলিয়ে যেতে।

আমি এবং দিল্লির বন্ধু অমিত যাচ্ছি বর্তমান যুগের গলি কাসিমজান খুঁজতে, যেখানে তার হাভেলি আছে।


মুক্তিযুদ্ধের শেষভাগে যুক্তরাজ্য-যুক্তরাষ্ট্রের মতদ্বৈততা

নৈষাদ এর ছবি
লিখেছেন নৈষাদ (তারিখ: বিষ্যুদ, ১৪/১২/২০১৭ - ৬:৫৮অপরাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

একাত্তরের ১০ ডিসেম্বরের পর থেকেই নিশ্চিত পরাজয় বুঝতে পেরে পাকিস্তানী কর্তৃপক্ষ যুদ্ধ বন্ধের জন্য দৌড়ঝাপ শুরু করে দেয়। মার্কিন হস্তক্ষেপের জন্য পাকিস্তানের এই প্রচেষ্টা অবমুক্ত করা মার্কিন নথিতে পাওয়া যায়। ১৪ ডিসেম্বরে (১৯৭১) পাঠানো বাংলাদেশের কনসাল জেনারেল স্পিভাকের টেলিগ্রামে (নং ৫৬২৭) জানতে পারি তৎকালীণ পূর্ব পাকিস্তানের গভর্নর মালিক এবং জেনারেল ফরমান আলী স্পিভাকের সাথে যুদ্ধ বন্ধের ব্যাপারে বিস্তারিত আলোচনা করেছেন।


রোহিঙ্গা প্রত্যাবর্তন ব্যবস্থাপত্র ২০১৭

হাসিব এর ছবি
লিখেছেন হাসিব (তারিখ: শনি, ২৫/১১/২০১৭ - ৭:০৫অপরাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

বাংলাদেশ এবং মায়ানমারের মধ্যে রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নেবার আয়োজন ঠিক কীভাবে হবে সেটা নিয়ে একটা ব্যবস্থাপত্রে দুই পক্ষ এক হয়েছে। এর মধ্যেই এই চুক্তি নিয়ে রাজনৈতিক মূলধন যোগাড় করতে হাজির হয়ে গেছে অনেকে। মিডিয়ায় ব্যবস্থাপত্রে কী আছে সেটার থেকে এইসংক্রান্ত মুখরোচক বক্তব্যগুলো নিয়ে কভারেজ দিচ্ছে। পাঠকদের সুবিধার জন্য পুরো চুক্তিপত্রটি এখানে তুলে দিচ্ছি।


গালিবের হাভেলির সন্ধানে (১)

রেজওয়ান এর ছবি
লিখেছেন রেজওয়ান (তারিখ: বুধ, ২২/১১/২০১৭ - ১০:১৪পূর্বাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

দিল্লির চাঁদনি চকের জ্যামে ঠাঁসা রাস্তায় ফুটপাথ লোকে লোকারণ্য। মানুষের ভিড়ে ঠিকমত হাটা যাচ্ছে না, রীতিমত লাইনে করে যেতে হচ্ছে। হঠাত করেই বাচ্চা সামলাতে কেউ দাঁড়াচ্ছে, আর লাইনটা থেমে যাচ্ছে, সাথে সাথেই পেছন থেকে ধাক্কা। চলার একটুকু জায়গার জন্যে যেন সবার মধ্যে একটা অসুস্থ প্রতিযোগিতা চলছে। । লাগোয়া রাস্তায় ট্রাফিক জ্যামে গাড়ি-ঠেলাগাড়ি-মোটরসাইকেলগুলো স্থবির হয়ে আছে, হঠাৎ মনে হবে যে রাস্তা জুড়ে পার্কিং করে রেখেছে । চারিদিকে লোকে লোকারণ্য এবং প্রচুর কোলাহল। আমি ছুটছি অমিতের পেছন পেছন। অমিত দিল্লির ছেলে, আইটি প্রফেশনাল আর ব্লগার। দশাসই দেহ নিয়েও কেউ এমন ছুটতে পারে তাকে না দেখলে বিশ্বাস করা যায় না।

আমাদের গন্তব্য পুরোন দিল্লীর বালিমারানের এক সরু গলি।


প্রযুক্তির যুগ ও হুজুগ

শেহাব এর ছবি
লিখেছেন শেহাব (তারিখ: শুক্র, ১৭/১১/২০১৭ - ১২:৪০অপরাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

গত কিছুদিনে দুটি খুবই নতুন ধরণের খবর চোখে পড়ল। প্রথমে অক্টোবরের আঠার তারিখ একটি তথ্যপ্রযুক্তিবিষয়ক প্রদর্শনীতে একজন খুবই গুরুত্বপূর্ণ মন্ত্রী দেশে ইন্টারনেট অব থিংকস, আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্সি, রোবোটিকস এসব প্রযুক্তি ব্যবহারে দক্ষতা বাড়ানোর কথা বলেছেন। এরপর নভেম্বরের ষোল তারিখ জানতে পারলাম ঢাকার একটি রেস্তোঁরা রোবট পরিচারক নিয়োগ দিয়েছে। মনটা খুব খারাপ হয়ে গেল। কারণ, আমার ধারণা দেশের সব ভাল ভাল আ


খুব কি বেশি খারাপ হত?

মির্জা এর ছবি
লিখেছেন মির্জা (তারিখ: রবি, ০৫/১১/২০১৭ - ১০:০৭পূর্বাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

আমি বড় হয়েছি জঙ্গলে। চার পাশে বন-বাঁদর-হনুমান, সাপ-ব্যাঙ-প্যাঁচা, বাঘ-বেড়াল (স্থানীয় নাম 'টলা')-তক্ষক-খরগোশ, কি ছিল না সেখানে!


দু’টি হত্যাকান্ড, ‘উত্তেজিত সৈনিক’ তত্ত্ব এবং অন্যান্য

নৈষাদ এর ছবি
লিখেছেন নৈষাদ (তারিখ: শনি, ০৪/১১/২০১৭ - ৬:৫৩অপরাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

মুক্তিযুদ্ধাকালীণ দুই নাম্বার সেক্টরের সেক্টর কমান্ডার এবং 'কে-ফোর্স'-এর সর্বাধিনায়ক মেজর জেনারেল খালেদ মোশাররফ বীরউত্তম, ক্র্যাক প্লাটুনের অন্যতম পরিকল্পনাকারি মেজর এটিএম হায়দার বীরউত্তম এবং আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলার আসামী কর্ণেল খোন্দকার নাজমুল হুদা বীরউত্তম – এই তিন মুক্তিযুদ্ধাকে নৃশংসভাবে হত্যা করা হয় ১৯৭৫ সালের ৭ই নভেম্বর। আরেক মুক্তিযুদ্ধা, আট নাম্বার সেক্টরের সেক্টর কমান্ডার মেজর জেনারেল মোহাম্মদ আবুল মঞ্জুর বীরউত্তমকে হত্যা করা হয় ১৯৮১ সালের ২রা জুন।

সরকারি এবং পরবর্তীতে বহল প্রাচারিত ভাষ্যমতে দুটো ঘটনাই ঘটায় ‘উত্তেজিত সৈনিকেরা’। দুটো হত্যাকান্ডের ঘটনায় কিছু মিল আছে।