পার্বত্য চট্টগ্রাম

অশান্তির সময়ে ড.ইউনূস আপনি কোথায়?

মূর্তালা রামাত এর ছবি
লিখেছেন মূর্তালা রামাত (তারিখ: সোম, ০১/১০/২০১২ - ১:২৪অপরাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

ড.ইউনূস অর্থনীতির সাথে সংশ্লিষ্ট একজন মানুষ হলেও শান্তিতে নোবেল পুরস্কার পাবার পর শান্তির একজন দূত হিসেবেই দেশ বিদেশের মানুষের কাছে পরিচিত পান। কিন্তু নিজের গ্রামীন ব্যাংক এবং হালের সামাজিক ব্যবসা ছাড়া তাকে বিশ্ব শান্তির কোন বিষয় নিয়েই সরব দেখা যায় না। বিশ্ব শান্তির কথা না হয় বাদই দিলাম দেশের শান্তি যখন বিনষ্ট তখন কেন তাকে সক্রিয় দেখা যায় না - বর্তমানে এ প্রশ্ন সবার।


অশান্ত পাহাড়

আনন্দী কল্যাণ এর ছবি
লিখেছেন আনন্দী কল্যাণ (তারিখ: বিষ্যুদ, ২১/০৪/২০১১ - ৩:৪১পূর্বাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

[justify]ফেসবুকে ঘোরাঘুরি করছিলাম। কারো বিয়ের ছবি, গ্র্যাজুয়েশনের ছবি, জন্মদিনের শুভেচ্ছা ইত্যাদি দেখছিলাম, টুকটাক মন্তব্য করছিলাম। এই ফেসবুক জায়গাটা আমার খুবই আজব লাগে। একটা নিউজ ফিডে হয়ত দেখছি, কেউ লিখেছে "অন ক্লাউড নাইন"। আর তার ঠিক নিচেই রক্তাক্ত পার্বত্য চট্টগ্রাম। এখন ভাল থাকার উপায় হল, সুখবরগুলি দেখা, এবং দুঃসংবাদগুলি এড়িয়ে যাওয়া। যে কোন খারাপ ঘটনাতেই আমার খুব প্রতিক্রিয়া হয়, আমি সাধারণত ফে


পুরু চশমার দৃষ্টি পড়েনি যেখানে

অতিথি লেখক এর ছবি
লিখেছেন অতিথি লেখক (তারিখ: বিষ্যুদ, ১৭/১২/২০০৯ - ১০:২৬অপরাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

-দীপায়ন খীসা-

পার্বত্য চট্টগ্রাম চুক্তির এক যুগ হয়ে গেল ২ ডিসেম্বর। চুক্তির এক যুগপূর্তি নিয়ে দেশের শীর্ষ চিন্তকদের অন্যতম বদরুদ্দীন উমর ১৩ ডিসেম্বর দৈনিক যুগান্তরে একটি কলাম লিখেছেন। তিনি মার্কসীয় সমাজ বিজ্ঞানের একজন বিদগ্ধ তাত্ত্বিক।

অবশ্য তাঁর মার্কসীয় ব্যাখ্যা নিয়ে এই দেশের অনেকের ভিন্ন মত রয়েছে। কিংবা বলা যায় তিনি নি...


পাহাড়ে ভূমি বিরোধ নিষ্পত্তির আগে জরিপ নয়

ইলিরা দেওয়ান এর ছবি
লিখেছেন ইলিরা দেওয়ান [অতিথি] (তারিখ: শনি, ১৭/১০/২০০৯ - ১১:০৭অপরাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

পার্বত্য চট্টগ্রাম ভূমি কমিশনের চেয়ারম্যানের ভূমি জরিপ ঘোষণায় পাহাড়ে আবার নতুন করে অনিশ্চয়তা দেখা দিয়েছে। ভূমি বিরোধ পার্বত্য চট্টগ্রামের প্রধান সমস্যা। সাম্প্রতিক একটি ঘটনার কথা উল্লেখ করা জরুরি মনে করছি।

খাগড়াছড়ি জেলার সিন্দুকছড়ির এক প্রত্যন্ত গ্রামে ফনেমালা ত্রিপুরা (৫০) তার পরিবার নিয়ে থাকতেন। জুম চাষই তার আয়ের একমাত্র উৎস। ফনেমালার স্বামী বিভিষণ ত্রিপুরা একজন ভূ...


পাহাড়ি নারী কবে তার অধিকার পাবে

ইলিরা দেওয়ান এর ছবি
লিখেছেন ইলিরা দেওয়ান [অতিথি] (তারিখ: বিষ্যুদ, ০১/১০/২০০৯ - ১১:২৮অপরাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

বাংলাদেশসহ উপমহাদেশজুড়ে পিতৃতন্ত্রের যে রকম বিস্তৃতি তা থেকে বাংলাদেশের পাহাড়ি সমাজব্যবস্থাও বেশি দূরে সরে যেতে পারেনি। এখানেও নারীকে অবদমিত করে রাখার প্রত্যক্ষ-পরোক্ষ নানা প্রবণতা লক্ষণীয়। তবে বাংলাদেশের অপরাপর সমাজব্যবস্থা থেকে পাহাড়ি সমাজব্যবস্থা কিছুটা উদার। যেমন, পাহাড়ি সমাজে পর্দাপ্রথা নেই এবং নারীর শ্রমের ওপর কোনো অলিখিত বিধিনিষেধ নেই। পাহাড়ি নারীরা তুলনামূল...


কেন আন্দোলনে এলাম: ইলিরা দেওয়ান

অতিথি লেখক এর ছবি
লিখেছেন অতিথি লেখক (তারিখ: সোম, ২৮/০৯/২০০৯ - ১০:০৯পূর্বাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

বিদ্যুৎহীন গাঁয়ে সন্ধ্যার পর পরই মনে হয় যেন গভীর রাত। সেই নিশুতি রাতে একটা গ্রামের শ দুয়েক লোক নিঃশব্দে এগিয়ে চলছে গহিন অরণ্যের দিকে- নিরাপত্তার খোঁজে। কিন্তু তার আগে পেরিয়ে যেতে হয় গাঁ ঘেষে চলে যাওয়া একটি পথ, যে পথই কিনা যোগাযোগের একমাত্র মাধ্যম। যেকোনো মুহূর্তে সেনাবাহিনীর লরি এসে হেডলাইটের আলোতে পুরো পথ আলোকিত করতে পারে। তাই সর্বদা আতঙ্ক থাকত, এই বুঝি সেনাসদস্যরা এসে পড়ল! ...


পার্বত্য সমস্যার সমাধান করতে হবে রাজনৈতিক পথেই (২)

ফিরোজ জামান চৌধুরী এর ছবি
লিখেছেন ফিরোজ জামান চৌধুরী [অতিথি] (তারিখ: শুক্র, ১৮/০৯/২০০৯ - ৬:১৭অপরাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

প্রথম পর্ব
http://www.sachalayatan.com/guest_writer/26264

সাম্প্রতিক সময়ে পাহাড়ে 'সেনা প্রত্যাহার' বা 'সেনা স্থানান্তর' নিয়ে আলোচনা আর বির্তকের শেষ নেই। অনেকেরই আশঙ্কা, সেনা প্রত্যাহার হলে পার্বত্যাঞ্চলে লঙ্কাকাণ্ড ঘটে যাবে, ওখানে আর কেউ বাস করতে পারবে না। আবার অনেকে ভাবছে, সেনা ছাউনি সরিয়ে নিলেই তবে সেখানকার নাগরিকেরা স্বাভাবিক জীবন ফিরে পাবে। এ পরিপ্রেক্ষিতে খতিয়ে দেখা যাক পার্বত্যাঞ্চলে সেনা-সংস্...


বাবুল নকরেক ইজ আপসেট এজ এড. প্রমোদ মানখিন এমপি ইজ নট ইন দ্য কেবিনেট

জুয়েল বিন জহির এর ছবি
লিখেছেন জুয়েল বিন জহির [অতিথি] (তারিখ: বিষ্যুদ, ০৮/০১/২০০৯ - ২:০৯পূর্বাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

ধান ভানতে শিবের গীত

গত ১৬ ডিসেম্বর চুনিয়ার ওয়ান্না শেষে দলবল সহ আমরা ধরাতিতে বন্ধু রিমি দিওদের বাড়ির উদ্দেশে ভ্যানে রওনা হই। দোখলা পার হয়ে সাইন্যামারি গ্রামে পৌঁছানোর পর পথে দেখা হয় সোহেল মৃর বন্ধু বিশ্বজিত ও আরো কয়েকজনের সাথে। ভ্যানে চড়তে চড়তে আমরা আমাদের গন্তব্যের কথা ওদের জানানোর পর ফিরতি পথে সবাই আমাদেরকে সাইন্যামারি তসরিফ রাখার আব্দার করল। আমরাও না করতে পারিনি। তাই ধ...