ভগ্নদাঁড়া

ইয়াসির আরাফাত এর ছবি
লিখেছেন ইয়াসির আরাফাত [অতিথি] (তারিখ: সোম, ২৭/১০/২০১৪ - ৬:২৮পূর্বাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

কাঁপছে জাতি, ভীষণ জ্বরে
গোলাম আজম মরার পরে
গুষ্টি বেঁধে নামাজ ঘরে
মাগছে পানাহ, খোদাতা’লায়

মুনশি যখন জুতো মারে
সুশীল চেপে ধরে তারে
ফেনিয়ে ওঠা কথার ভারে
মানবতার গল্প শোনায়

ইতিহাসকে হারিয়ে খোঁজা
অস্বীকার আজ বড়ই সোজা
রাজাকারের শবের বোঝা
বাংলা মায়ের দূষণ বাড়ায়

মুক্তিসেনা, কষ্ট বুকে
রক্তে ভেজা হতাশ চোখে
ব্যাঘ্র জাতির তামশা দেখে
তীব্র ঘৃণায়, তীব্র ঘৃণায়।


কচ্ছপের দ্বীপে দুই দিন

অতিথি লেখক এর ছবি
লিখেছেন অতিথি লেখক (তারিখ: সোম, ২৭/১০/২০১৪ - ৬:২৭পূর্বাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

আরব সাগরের উষ্ণ নীল্ জলে ঝড় ঝঞ্ঝার দেখা মিলে না খুব সহজে । এই সাগরে প্রাণঘাতী বা আগ্রাসী সামুদ্রিক প্রাণীরও দেখা মিলে না তেমন (কোনো হাঙ্গর বা অক্টোপাসের আক্রমনের খবর আসেনি কোনদিন)।দুই-এ মিলে শান্ত, উষ্ণ এই সমুদ্রে তাই নিরাপদ আশ্রয় গড়ে তুলেছিল নানা জাতের মাছ, কচ্ছপ, আর কোরাল। পশ্চিমে সোমালিয়া থেকে শুরু করে ইয়েমেন, ওমান, ইরান হয়ে ভারত পর্যন্ত এই বিশাল আরব সাগরীয় অঞ্চলে গড়ে উঠেছিল এসব প্রাণীর এক নিরা


গোলাম আজমদের কথা

অতিথি লেখক এর ছবি
লিখেছেন অতিথি লেখক (তারিখ: সোম, ২৭/১০/২০১৪ - ৬:২৩পূর্বাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

১৯৭৫ স্বপরিবারে বঙ্গবন্ধু হত্যা পরবর্তী সময়ে সামরিক জান্তা, জাতীয়তাবাদী শক্তি, আধা সেকুলার আওয়ামিলীগ, মিলিত জামাতি-জাতীয়তাবাদী শক্তি এবং হালের সাচ্চা মুসলামানের দল আওয়ামিলীগ ইত্যাদি বিভিন্ন গোষ্ঠির হাতে হাত বদল হওয়া ইতিহাসের শিক্ষার উপর অনেক গুলো লেন্স পড়ে গেছে । গত চার দশকে এদের কেউ আরোপ করেছে ধর্মানুভুতির লেন্স, কেউবা আবার জাতীয় ঐক্যের লেন্স । এতো গুলো লেন্সের ভেতরে দিয়ে আসা গোলাম আজম পরিচয়টি ঝাপসা হতে হতে দেশের অনেকের কাছে এবং সমগ্র বিশ্বের কাছে গোলাম আজম পরিচিত হয় জামাত-এ-ইসলামের নেতা গোলাম আজম হিসেবে । শুভ্র দাড়ি-গোঁফ আর অশতীপর বৃদ্ধ চেহারার আড়ালে ঢেকে যায় খুনী রাজাকার গোলাম আজম পরিচয়


ছবিব্লগঃ দূর পাহাড়ের টানে (দ্বিতীয় পর্ব) ...

অনুপম ত্রিবেদি এর ছবি
লিখেছেন অনুপম ত্রিবেদি (তারিখ: সোম, ২৭/১০/২০১৪ - ২:৪৩পূর্বাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

২৪ মার্চ, ২০১৪, সোমবার আমি, রাব্বি, কুমার, আরিফ, নোমান আর রনি বেরিয়ে গেলাম বান্দরবানের উদ্দেশ্যে। গন্তব্য বগালেক, পুকুর পাড়া, রাখাইন ফলস। আর আসা-যাবার সময়ের দুর্দান্ত সব পথ তো আছেই! ৫ দিন হাঁটা আর আরাম - আয়েশের একটা ট্যুর ছিলো এটি। সাথে ছিলো আমাদের গাইড বিকাশের অসাধারণ বার্বিকিউ, আমাদের মন ভরে হুল্লোড়, ছবি তোলা এবং পাহাড়ি ললনাদের সাথে সুযোগ বুঝে টাংকিবাজী। ট্যুরের দ্বিতীয় এবং শেষ কিস্তি বগালেক থেকে পুকুর পাড়া আর রাখাইন ফলস নিয়ে দিলাম।


‘আমার কেসটা তো আলাদা’

সুমিমা ইয়াসমিন এর ছবি
লিখেছেন সুমিমা ইয়াসমিন [অতিথি] (তারিখ: রবি, ২৬/১০/২০১৪ - ১০:৩৭অপরাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

অফিসে আমার পাশের টেবিলে বসে কাজ করতো উচ্ছল একটা মেয়ে। খুব ভালো আবৃত্তি করতো সে।
তার সাথে প্রেম ছিল আমাদের আরেক সহকর্মীর। সেই ছেলে ভীষণ বাকপটু। কথার জালে সবাইকে জড়িয়ে রাখতে জানে। জুটি হিসেবে তারা চমৎকার!

প্রেমের বিষয়টা তারা স্বীকার না করলেও অফিসের প্রায় সবাই জানতো। মেয়েটিকে কেউ এই প্রসঙ্গে জিজ্ঞেস করলে মিষ্টি একটা হাসি দিতো। ছেলেটিকে জিজ্ঞেস করলে গম্ভীর হয়ে অন্য প্রসঙ্গে চলে যেতো।


বাংলার বনফুল-৩

আব্দুল গাফফার রনি এর ছবি
লিখেছেন আব্দুল গাফফার রনি [অতিথি] (তারিখ: শনি, ২৫/১০/২০১৪ - ১১:৩১অপরাহ্ন)
ক্যাটেগরি:


ইতিহাসের পায়জামা: দিমু নাকি টান?

আনু-আল হক এর ছবি
লিখেছেন আনু-আল হক [অতিথি] (তারিখ: শনি, ২৫/১০/২০১৪ - ৫:০৫পূর্বাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

ফেসবুকের কল্যাণে যত বালছাল সব ছেলিব্রেটি; মুশকিল হইতেসে অ-বালছাল ছেলিব্রেটিও আছেন। ফলে, ছেলিব্রেটি মাত্রই বালছাল এইটা নিশ্চয় করে বলা যাইতেসে না। সম্ভবত, এই বিষয়টারে অত্যন্ত নাজুক করে ছাড়বে প্রকৃত বালছালগুলা। পরে, ভালো লুকজন এইটা ছাইড়া যাবে, এবং প্রকৃত বালছালগুলার জয় হইবে, যেমন হইছে আমাদের দেশের রাজনীতি, সিনেমা, সাহিত্যসহ প্রায় সকল মাধ্যমে।


বামাতির ছড়া ০০১

হিমু এর ছবি
লিখেছেন হিমু (তারিখ: শুক্র, ২৪/১০/২০১৪ - ৬:০৩অপরাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

ফেসবুকে কিছু পড়শী
সদাই অনলবর্ষী
স্ট্যাটাসে আগুন জ্বলে শতগুণ "আমি বিপ্লব করসি!"

যখনই জামাত ধকলে,
তারা থেমে যান সকলে,
স্ট্যাটাসের খাতা ফুল-পাখি-পাতা-লতা নিয়ে যায় দখলে।

কভু ফুকো কভু গ্রামশি
তুলো ধুনে হলো আমসি
নামজাদা যতো বামজাদা কন, "শুরু হলে নাহি থামসি!"

মারা যায় যদি গোআ রে
বিপ্লবীদের খোঁয়াড়ে
দ্রোহের অনল নিভে গিয়ে ছোটে আগরবাতির ধোঁয়া রে।

ছাইভস্মতে ফুঁ দি না,


বাঘ বনাম শকুনের গল্প

সত্যপীর এর ছবি
লিখেছেন সত্যপীর (তারিখ: শুক্র, ২৪/১০/২০১৪ - ৪:২২পূর্বাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

বুড়া শকুন মারা গেছে।

এই বুড়া গোলাম আজম পাকিস্তান আদর্শ রক্ষা তহবিলে চাঁদা উঠিয়েছিল। এই যে কি চমৎকার রশিদ দেখা গেলঃ

চাঁদার টাকা দিয়ে বাংলাদেশের অভ্যুদ্যয় ঠেকানোর মতলব ছিল চান্দুর। আহারে বুড়া কদু, সেই বাংলাদেশের যে শুধু অভ্যুদয় হবে তাই না... মুক্ত স্বাধীন বাংলাদেশের মাটিতে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবের নামে হাসপাতালে যে তোকে পটল তুলতে হবে এইটা কি আর জানতি রে ময়না? জীবন চোষে বটে।


"বুদ্ধিবেশ্যা" শব্দটি যেভাবে মিথ্যাজীবিদের ভিত নাড়িয়ে দিলো

অছ্যুৎ বলাই এর ছবি
লিখেছেন অছ্যুৎ বলাই (তারিখ: বিষ্যুদ, ২৩/১০/২০১৪ - ৪:৫৩অপরাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

প্রথম আলোর বান্ধা কলামিস্ট সোহরাব হাসান আজ "সিপি গ্যাং, গং এবং ‘নিষিদ্ধ শহীদ মিনার’" শিরোনামে একটি কলাম লিখেছে। তার লেখার বিষয়বস্তু টকশোজীবি পিয়াস করিমের মরদেহ শহীদ মিনারে নেয়ার প্রতিবাদ ও তদরূপ ভাবধারার টকশোজীবিদেরকে প্রতিহত করার আহবান - এর সমালোচনা।