ঘুরে এলাম মুসান্দাম

অতিথি লেখক এর ছবি
লিখেছেন অতিথি লেখক (তারিখ: মঙ্গল, ২৬/০৮/২০১৪ - ৯:৩৬অপরাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

আরব উপদ্বীপের উত্তর-পূর্ব অংশে ওমানের একটি প্রদেশ মুসান্দাম । হাযার পর্বতমালার শুরু এখানেই, এর একপাশে পারস্য উপসাগর আরেক পাশে ওমান উপসাগর। মূল ওমান ভুখন্ড থেকে সংযুক্ত আরব আমিরাত দ্বারা বিচ্ছিন্ন মুসান্দাম উপদ্বীপের মাধ্যমে বিশ্বের জ্বালানি তেল পরিবহনের জন্য বিশেষ গুরুত্বপূর্ণ হরমুজ প্রণালীর উপর ওমান তথা এই অঞ্চলের বাকি আরব দেশগুলো নজরদারি করে (কেতাবি ভাষায় এটা geopolitically strategic location)।


আইসিস এর বিরুদ্ধে বারনেস ওয়ার্সির ‘প্রতিবাদ’

অতিথি লেখক এর ছবি
লিখেছেন অতিথি লেখক (তারিখ: মঙ্গল, ২৬/০৮/২০১৪ - ৯:৩৫অপরাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

এ মাসের শুরুর দিকে (আগস্টের ৫ তারিখ) ব্রিটিশ ধর্ম ও সমাজ বিষয়ক মন্ত্রি এবং পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রি বারনেস সায়িদা ওয়ার্সি ক্যাবিনেট থেকে পদত্যাগ করেন ইজরায়েলের গাজায় চালানো গণহত্যার বিষয়ে তার দলের নিষ্ক্রিয়তার প্রতিবাদে। তখন এ নিয়ে বিশ্বের ও বিশেষ করে বাংলাদেশের ‘ধর্মপ্রাণ’ মুসলমানদের মধ্যে গণমাধ্যমে মাতামাতি ও উচ্ছাস দেখে সচলে প্রথমবারের মত লিখেছিলাম, এই পাকি বংশোদ্ভূত মহিলা আমাদের দেশের যুদ্ধাপরাধ


'প্রার্থীকে প্রদত্ত অনুদান'

শেহাব এর ছবি
লিখেছেন শেহাব [অতিথি] (তারিখ: মঙ্গল, ২৬/০৮/২০১৪ - ৯:৩৪অপরাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

নির্বাচন কমিশনের ওয়েবসাইটে গত নির্বাচনে বিভিন্ন দলের খরচাপাতির হিসেব চলে এসেছে। এর মধ্যে সারণীতে সবার উপরে প্রার্থীকে দেয়া বিভিন্ন অনুদানের হিসেব দেয়ার তালিকা আছে। কেন যেন কোন সাংবাদিক বিভিন্ন প্রার্থীকে দেয়া অনুদানের তুলনামূলক চিত্র আঁকার ব্যাপারে আমার জানামতে এখন পর্যন্ত কোন উৎসাহ দেখালেন না। আমি সব দলের এই সংক্রান্ত তথ্যগুলো একজায়গায় করলাম।


আয় তোর মুণ্ডুটা দেখি ফুটোস্কোপ দিয়ে-৩৫

সুজন চৌধুরী এর ছবি
লিখেছেন সুজন চৌধুরী (তারিখ: মঙ্গল, ২৬/০৮/২০১৪ - ৩:২৯পূর্বাহ্ন)
ক্যাটেগরি:


আমার সুরার সাথী, সচলের ত্রিমাত্রিক কবি ভ‌্যান্কুভার ছেড়ে চলে গেলো। তাই ভাবলাম ওরে ফুটোস্কোপ দিয়ে দেখে রাখি। শুভ কামনা রৈলো ত্রিমাত্রিক কবি।


ইচ্ছেঘুড়ি

আয়নামতি এর ছবি
লিখেছেন আয়নামতি [অতিথি] (তারিখ: সোম, ২৫/০৮/২০১৪ - ৫:১৮পূর্বাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

- এই আপু কী করো ওখানে বসে?
- চুপ! আয়, খাবি একটু?
- চট করে আশপাশটা দেখে নেয় তপু। তারপর একান ওকান হাসি দিয়ে
আপুর সামনে হাত পেতে দাঁড়ায়।


পারকি সমুদ্র সৈকতে একদিন

অতিথি লেখক এর ছবি
লিখেছেন অতিথি লেখক (তারিখ: সোম, ২৫/০৮/২০১৪ - ৫:১৮পূর্বাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

[justify]বেশ কিছুদিন যাবৎ ব্লগে লেখালিখির বিষয়টি মাথায় চেপে বসেছে। বাংলা ব্লগের জগতে আমার সবচেয়ে পছন্দের সাইট "সচলায়তন"। তাই "সচলায়তন" দিয়েই আমার ব্লগিং জীবন শুরু করছি। বাঘা বাঘা ব্লগার আর ফটোগ্রাফারদের সামনে লেখালিখি করাটাও একটা ভয়ের ব্যাপার। তবুও নিজের ইচ্ছেটাকে আটকে রাখা সম্ভব হচ্ছে না। তাই লিখতে বসে পড়লাম। ভুল ত্রুটিগুলোর জন্য ক্ষমা সমালোচনা দুইই করতে পারেন আপত্তি নেই।


পি’য়ের জন্য ফুল

কর্ণজয় এর ছবি
লিখেছেন কর্ণজয় (তারিখ: রবি, ২৪/০৮/২০১৪ - ৫:২২অপরাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

পি’কে জীবনে সে মাত্র একবারই দেখেছিল। অনেক দুর থেকে। তাও ত্রিশ বছর আগে।
এরপর থেকে এক মুহূর্তের জন্যও ভুলতে পারে নি।


পড়ন্ত বিকেলের চিঠি, নীল পাখির জন্য

মরুদ্যান এর ছবি
লিখেছেন মরুদ্যান [অতিথি] (তারিখ: রবি, ২৪/০৮/২০১৪ - ৪:২৮অপরাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

তোমাকে তো দেখিনি কোনদিন।


ভালোবাসা কারে কয়-২ : চম্পাবতীর গাঁয়ে

আব্দুল গাফফার রনি এর ছবি
লিখেছেন আব্দুল গাফফার রনি [অতিথি] (তারিখ: রবি, ২৪/০৮/২০১৪ - ১১:০১পূর্বাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

১৬ বছরের তরুণ তখন। মনে যৌবনের বান ডেকেছে। যা দেখি চারপাশে, সব ভাল লাগে। ছয় ঋতু যেন পরস্পরে লীন হয়ে চির বসন্তে রূপ নিয়েছে। পথ ঘাট, ভাল লাগে, ভাল লাগে পথের দুপাশের সৌন্দর্যও। ঘাস গুল্ম-লতা, ফুল পাখি--সব সব ভাল লাগে। সেই ভালোলাগার অনুভূতির সাথে আরও একটা অনুভূতি জেগে ওঠে--চম্পা। সে কী আমাকে চিনতে পারবে? সেই ছড়া কি ওর মনে আছে? মুখোমুখি হলে আমিই বা ওকে কী বলব? আচ্ছা, এই একযুগে কেন ওর সাথে দেখা হলো না? কত মানুষের সাথেই দেখা হয়? ওর মামার বাড়ি, যেটা আমার বাবার ফুফুর বাড়ি, সেখানে বছরে দু-তিনবার পা পড়ে আমার? ও কি একবারও আসে না মামার বাড়ি? নাকি ও যখন আসে আমি তখন যাই না? ভ্যানে চলতে চলতে কোথা থেকে একরাশ অভিমান এসে আচ্ছন্ন করল আমাকে? কিন্তু অভিমান তখনই মূল্যবান, যার ওপর অভিমান করছি তার কাছে এর কিঞ্চিত মূল্য যদি থাকে। নইলে ঝরাপাতার সমান মূল্যটিও তার নেই।


ছবিব্লগ-টাচ এন্ড গো-১

বন্দনা এর ছবি
লিখেছেন বন্দনা [অতিথি] (তারিখ: রবি, ২৪/০৮/২০১৪ - ১১:০০পূর্বাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

[justify]

এইবার আমেরিকা আসার মূল উদ্দেশ্য সোশাল মিটিং হলে ও এর মাঝেই কেমন করে যেন ওয়েস্ট কোস্টের দিকে একটা রোডট্রিপ এরেঞ্জ হয়ে গেল। সান ফ্রান্সসিস্কোতে কনফারেন্সে যোগ দিতে আসা রাজু আর তিন্নি ছাড়া ও নিউ ইয়র্ক থেকে রনিকে ও পাওয়া গেল এই ট্রিপে। এইবারের ট্রিপের কোন প্লানই আমার করা হয়নি, পাঁচদিনের রোডট্রীপে টাচ এন্ড গো করে যেসব জায়গা দেখা হলো তা নিয়েই আজকের ছবি ব্লগ। সান-ফ্রান্সিস্কো থেকে শুরু করে ইয়োসোমিতে ন্যাশনাল পার্ক দেখে বিশপ হয়ে ডেড ভ্যালির মাঝ দিয়ে ঘুরে এসে গ্র্যান্ড ক্যানিয়ন, উইপটকি পার্ক হয়ে সিকুইয়া পার্ক দেখে সোজা সান ফ্রান্সসিস্কোতে এয়ারপোর্টে এসে এই ট্রিপের পরিসমাপ্তি। সব মিলিয়ে প্রায় আড়াই হাজার মাইল এর মত ড্রাইভিং করতে হয়েছে সব জায়গা ঘুরে দেখতে।