আমি আড়াই হাজার সাঁওতাল পোড়াবাড়ি

আশরাফ মাহমুদ এর ছবি
লিখেছেন আশরাফ মাহমুদ (তারিখ: সোম, ১৪/১১/২০১৬ - ৯:৪২পূর্বাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

আমি তবে আড়াই হাজার সাঁওতাল পোড়াবাড়ি
হিন্দু মায়ের ভেঙে দেওয়া শাখা মুছে দেয়া সিঁদুর
আমি জাতীয়তাবাদের কাছে হেরে যাওয়া পাহাড়ি
আমি সমাধিকার না পাওয়া নারীর ফিকে রোদ্দুর
আমি মানুষকে জিতিয়ে দিতে গিয়ে কেবল
অমানুষের কাছে শুধু হই পরাজিত
তোমার সাথে ধর্মে মতে মিল না হলে প্রবল
বন্ধু হওয়া যায় না একেমন অযাচিত
এই মাটি তোমার আমার এই দেশ একাত্তরে মা
তবে কেনো রাজনীতির লাস্যে স্বপ্ন দিচ্ছো জমা


লাদাখের ডায়েরী (চতুর্থ পর্ব)

অতিথি লেখক এর ছবি
লিখেছেন অতিথি লেখক (তারিখ: শুক্র, ১১/১১/২০১৬ - ২:২০অপরাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

জুন ৫ , লে। রাত ৯ টা ৪৫

দূরে ধুসর পাহাড়, নীল আকাশ, দিগন্ত বিস্তৃত নীল জলরাশি। আমির খান খেলনা এরোপ্লেন ওড়াচ্ছেন আকাশে। সঙ্গে একরাশ কচিকাচা। ক্লোজ শটে করিনা এগিয়ে আসছেন একটা পুরোনো স্কুটার চড়ে।পরনে কনের বেশ। ব্যাকগ্রাউন্ডে নীল অতল জলরাশি ।


মার্কিন প্রবাসী বাঙালী "মডারেট" মুসলমানদের কাছে খোলা চিঠি

ইয়ামেন এর ছবি
লিখেছেন ইয়ামেন [অতিথি] (তারিখ: বিষ্যুদ, ১০/১১/২০১৬ - ৪:৫১পূর্বাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

চিঠিটা সবার জন্য নয়, কিন্তু সিংহভাগ মার্কিন প্রবাসী বাঙালী মুসলমানের জন্য প্রযোজ্য

আমার প্রবাসী "মডারেট" ভাই বোনেরা,


শুঁয়োপোকা

অতিথি লেখক এর ছবি
লিখেছেন অতিথি লেখক (তারিখ: বুধ, ০৯/১১/২০১৬ - ৬:৫০পূর্বাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

পূর্বজন্মে আমি ছিলাম শুঁয়োপোকা । বেগুন গাছের পাতার নিচে ছিল আমার বাস । ঢেঁড়সে কামড় বসিয়ে আমার রসনা তৃপ্ত হতো। অতঃপর দুর-গাছ পরিক্রমায় শ্রান্ত আমি, ঢেঁড়সেরই পাতার নিচে একটু গড়িয়ে নিতাম। দুর কোন শিমের পাতায় খুঁজে পেতাম আমার প্রাণেশ্বরী। জনান্তিকে বেজে উঠত মহা-মিলনের সুর; পাতারই বাঁশী দিয়ে - "আমি পরাণের সাথে খেলিব আজিকে মরণ-খেলা; নিশীথ-বেলা"। বোধ করি রিপু-চক্রের বাধ্য আমি লোভ করেছিলাম অন্য কোন ফলে। ধ


সাম্প্রদায়িক বিষবৃক্ষ

ঈয়াসীন এর ছবি
লিখেছেন ঈয়াসীন [অতিথি] (তারিখ: বুধ, ০৯/১১/২০১৬ - ১২:০৮পূর্বাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

সাম্প্রতিক নাসিরনগর বৃত্তান্ত আমাদের কলঙ্কের তালিকায় আনকোরা কোনো সংযোজন নয়, এটি আবহমান বাংলার ইতিহাসেরই এবং ঐতিহ্যেরই একটি কালো অংশ। এই নিয়ে সন্ধ্যার এক আড্ডায় জোর বিতর্ক চলছিল, পারিষদেরা সকলেই শিক্ষিত। একজন বললো- সাম্প্রদায়িক কলহ হাজার হাজার বছর ধরেই বৈশ্বিক একটি সমস্যা; সম্প্রদায়ের বিভাজন তাতে কেবল ধর্মে ধর্মে নয়, বর্ণে বর্ণেও; এতে অত্যাচারি আর অত্যাচারিতের রুপ পরিবর্তিত হয় , কিন্তু অত্যাচারের র


নভেরার সন্ধানে : ১- শৈশব দর্শন

কর্ণজয় এর ছবি
লিখেছেন কর্ণজয় (তারিখ: সোম, ০৭/১১/২০১৬ - ১১:৫৯অপরাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

একজনের শৈশবকে বোঝা গেলে, মানুষটির মনের ভেতর বাহির ধরা যায়। কেননা বলা হয়ে থাকে, মানুষ মৃত্যু পর্যন্ত শৈশবকে বহন করে চলে। তাই নভেরাকে আমরা বুঝতে গেলে, তার শৈশবের ছবি সম্পর্কে একটা ধারণা থাকা প্রয়োজন। নভেরা আহমেদকে নিয়ে আলোচনার এটি একটি সীমাবদ্ধতা, আমরা তার কাছ থেকে কোন কথা শুনিনি। অন্যদের কাছ থেকে তার সম্পর্কে যতটুকু পাওয়া যায় তা খুবই খন্ডিত এবং সীমাবদ্ধ ব্যক্তিগত অভিজ্ঞতাজাত ধারণা প্রসূত। সমস্ত কিছ


বাঁচুন, নইলে পালিয়ে মরুন

অতিথি লেখক এর ছবি
লিখেছেন অতিথি লেখক (তারিখ: সোম, ০৭/১১/২০১৬ - ১:৩৩পূর্বাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

ইদানীং ঘুম ভাঙলে অয়ন খুব আগ্রহ নিয়ে ঘরের সিলিং আর পর্দার ফাঁক গলে আলো আসা খোলা বারান্দার দিকে লোভাতুর হয়ে তাকিয়ে থাকে। খুব আপন মনে হয় সিলিংটাকে। যে ভীষণ যন্ত্রণা আর অস্থিরতায় তখন আচ্ছন্ন হয়ে থাকে অয়ন তাতে মনে হয় ঐ সিলিঙের বন্ধনে ঝুলে পড়ে আয়েশে দুলতে থাকলে একটু শান্তি মিলবে। কিংবা উঁচু বারান্দা থেকে নীচে ঝাঁপিয়ে পড়ার সময় যে ক্ষণিকের মুক্তি মিলবে চিরমুক্তির আগে সেটাই বা কম কী!


হিন্দু সম্প্রদায়ের চিতায় চাইনা উন্নয়নের শিখা অনির্বান

রানা মেহের এর ছবি
লিখেছেন রানা মেহের (তারিখ: সোম, ০৭/১১/২০১৬ - ১:১৬পূর্বাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

বাংলাদেশে হিন্দুরা যেই পরিমাণ অসহায়ত্ব নিয়ে থাকেন, আমাদের পদে পদে লজ্জা পাওয়া উচিত আমরা এরকম একটা রাষ্ট্রব্যবস্থার নাগরিকত্ব ধারণ করি বলে। আওয়ামী লীগ সরকারের প্রচুর চমৎকার সব কাজ আছে। এই সরকারের সময়ে যতটুকু উন্নয়ন হয়েছে দেশে অতটুকু আর কারো দিয়ে হতোনা এই কথা নিঃসন্দেহ হয়েই বলা যায়। কিন্তু একজন দরিদ্র কৈবর্তের শেষ সম্পদ মাছ ধরা জাল যখন লুট হয়ে যায় ধর্ম রক্ষার নামে, পূজারীর সামনে যখন ধুলায় লুটায় তার পরম আদরের প্রতিমা তখন এইসব উন্নয়নকে মনে হয় সেই মণিহারের মতো। যাকে ধরতে গেলেই লাগে, যারে পরতে গেলেই বাজে। আমরা উন্নয়নের ওম চাই চাই প্রিয় রাষ্ট্র-সুপ্রীয় সরকার কিন্তু আমার দেশের মানুষের চিতার আগুনের তাপে নয়। সময় থাকতে এই আগুন নেভান। চিতা যেন দাবানলে বদলে না যায়। দাবানল দেবালয় এড়ায় না।


শীতের পাখি

জিপসি এর ছবি
লিখেছেন জিপসি [অতিথি] (তারিখ: রবি, ০৬/১১/২০১৬ - ৬:৪৯অপরাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

বদলে গিয়েছে আমার জন্মভূমি, সেটাই অতি স্বাভাবিক। দশটি বছর পর মাত্র দশ দিনের অবস্থানে পরিবর্তনের সেই হাওয়ার রেশ কিছুটা অবশ্যই অনুভূত হয়েছে। শৈশব-কৈশোর আর যৌবন প্রারম্ভের চারণভূমি আমার অতিপ্রিয় ঢাকা শহরের সাদাকালো ছবির এ্যালবাম যা হৃদয়ে ছিল তার অনেকগুলি হয়ত আরও মলিন হয়ে গেছে।


সেদিন আর কতো দূরে?

হিমু এর ছবি
লিখেছেন হিমু (তারিখ: শনি, ০৫/১১/২০১৬ - ১২:১৬পূর্বাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

একদিন থাকবে না মন্দির
থাকবে না প্যাগোডা বা গির্জা,
ঘোষ-বোস বড়ুয়ারা পালাবে
রয়ে যাবে খান-হক-মির্জা।
প্যাঁদানোর মতো আর রবে না
এই দেশে একখানা বেদ্বীনও,
কিন্তু যে বাঁশ ঝাড়ে বেড়েছে
সেটা রয়ে যাবে ভায়া সেদিনও।
পড়শীর ঘরে লাগা আগুনে
ওম নিয়ে আলুপোড়া চাবালে
নিজ ঘরও দাহ্য, সে কথাটা
বেমালুম ভুলে যায় আবালে।
দেশ থেকে "মালাউন" ভাগিয়ে
এই কথা মনে রেখে ঘুমিও,
শতভাগ মমিনের সে দেশে